বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ২৯শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
বিদায় ২০১৫ স্বাগত ২০১৬
প্রকাশ: ১০:৪৪ am ০১-০১-২০১৬ হালনাগাদ: ১০:৪৪ am ০১-০১-২০১৬
 
 
 


 শামিমুজ্জামান চৌধুরী, ঢাকা:  

'বিদায়! বিদায়! একি কলরব ধ্বনিছে বাতাসে, ক্রন্দন ভরা অক্ষিপট/ভাসাইছে সবাই ঝর্ণার ধারা, অধর পুষ্প নাহি ফুটে আজ/মুখে সবার বিষণ্নতা, আজি মোদের বিদায় লগ্ন কহিছে কৃষ্ণপাতা।'

ঘটনাবহুল বছর ২০১৫-এর বিদায়ের দিন সমাগত।  বৃহস্পতিবার মধ্য রাত পেরোলেই পাল্টে যাবে ক্যালেন্ডারের পাতা। গোধূলি বেলায় রক্তিম সূর্যাস্তের মধ্য দিয়ে হারিয়ে যাবে লাখো ঘটনার জন্ম দেয়া আরো একটি বছর। আগামীকাল নতুন সূর্যের প্রতীক্ষায় মানুষ স্বাগত জানাবে ইংরেজি নতুন বছর  ২০১৬-কে। 

স্বাগত ২০১৬। নতুন বছর নতুন আশা।  স্মৃতির খেরোখাতা থেকে প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির হিসাব মুছে শুরু হলো নতুন বছর। অনেক ঘটন-অঘটন, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, চড়াই-উৎরাই, উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা ও আনন্দ-বেদনার সাক্ষী হল বিদায়ী বছর। রাজনৈতিক সহিংসতা, নানা দুর্যোগ-দুর্ঘটনা আর ঘটনা প্রবাহের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ইংরেজি ২০১৫ সাল।

বিদায়ী বছরটি প্রাপ্তি আর অপ্রাপ্তির দোলাচলে নিয়েছে অনেক কিছু। তারপরও নতুন বছরের নতুন সূর্যালোকিত দিনের প্রতি অসীম প্রতীক্ষা ও প্রত্যাশা মানুষের মনে। নতুন বছর মানেই নতুন স্বপ্ন। চোখের সামনে এসে দাঁড়ায় ধূসর হয়ে আসা গল্পগাঁথার সারি সারি চিত্রপট। কখনো বুকের ভেতর উঁকি দেয় একান্তই দুঃখ-যাতনা। কখনো পাওয়ার আনন্দে নেচে উঠে হৃদয়। এ বছরটি নতুন সম্ভাবনার দরজা খুলে দেবে আমাদের জীবনে, এমনটিই প্রত্যাশা আমাদের। শুভ হোক নতুন বছর। সামনের দিনগুলোতে অনিশ্চয়তা কেটে গিয়ে ছড়িয়ে যাক শুভময়তা। নতুন বছরটি ভরে উঠুক আনন্দে, শান্তিতে। হ্যাপি নিউ ইয়ার।

ইতিহাস: প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকেই বর্ষ বিদায় এবং নতুন বছরকে স্বাগত জানানো মানুষের আবেগ ও হৃদয়বোধেরই একটি অন্তর্নিহিত প্রতিফলন। ইতিহাস সচেতন পাঠকমাত্রের জানা, প্রাচীন রোমের পৌরাণিক দেবতা জেনাসের নামানুসারে নতুন বছরের প্রথম মাস জানুয়ারির নামকরণ। দেবতা জেনাসের দুটি মুখ।

একটি সূর্য অপরটি চন্দ্র। সূর্য উত্তাপ বিকিরণ করে জীবন সঞ্চালন ঘটায়। চন্দ্র তার মধুর আলোয় জীবনের পরিপুষ্টি আনে। আবার জেনাসের একটি মুখ ভবিষ্যতের প্রতীক, অন্যটি অতীতের। তিনি পার্থিব মানুষের জীবনদ্বারের প্রহরী। তাই দৃষ্টি প্রসারিত করে আছেন আমাদের অতীত থেকে অনাগত ভবিষ্যতের দিকে। অতীত থেকে অনাগতের যাত্রাপথে যে চলমান প্রবাহমানতা, জেনাস তার নিয়ামক এবং নিয়ন্ত্রক। তিনি স্বস্তি, শান্তি আর কল্যাণের দেবতা। প্রাচীন রোমানরা একে ভক্তিভরে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করতেন বিভিন্ন বিবাহ অনুষ্ঠানে। ব্যবসা–বাণিজ্য শুরুর আগে ও পরে। শিশু জন্মের মুহূর্তে। কৃষিকাজ শুরুর আরম্ভে কিংবা শস্য সংগ্রহ শেষে সামাজিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। বহু প্রাচীনকালেই জীবন সম্বন্ধে মননশীল মানুষের মনে সুকুমার ভাবনার যে জাগরণ ভালোবাসা ও আবেগের সংমিশ্রণে ঘটেছিল, মানুষ তাকে বর্ষ বিদায়ের বেদনাময় অনুষ্ঠানে যেমন রূপায়িত করতে চেয়েছে, তেমনি জীবনের শুভ কামনায় জগতের অনিবার্য নিয়মে নতুনকেও অভিনন্দিত করতে সে ভোলেনি।

ইতিহাসবিদেরা জানিয়েছেন, চার হাজার বছর আগে প্রাচীন মেসোপটেমিয়ার বেবিলিয়নরা ‘আকিতু’ নামে নববর্ষ অনুষ্ঠান পালন করে সুখী, শান্তিপূর্ণ, শুভময় ভবিষ্যতের জন্য প্রার্থনা জানাতেন দেবতার দুয়ারে।


এক নজরে ২০১৫ সালে ঘটে যাওয়া কিছু আলোচিত ঘটনাঃ

হরতাল ও অবরোধের বছর

২০১৫ সালটা শুরু হয়েছিল টানা হরতাল-অবরোধের সহিংসতার ভেতর। পুরনো আদলের রাজনীতি। সেই একই দৃশ্যপট। সেই হরতাল। জ্বালাও-পোড়াও। জনমনে আতঙ্ক। সরকারের সতর্কবাণী। মামলা-গ্রেফতার। মিছিল-সমাবেশে বিধিনিষেধ। সারাবছর চলেছে রাজনীতিতে  এক অনিশ্চিত পরিবেশ। এ বছর ৪ জানুয়ারি বেগম খালেদা জিয়া তার গুলশান কার্যালয়ে ‘অবরুদ্ধ’ থেকে ৯৩ দিনের আন্দোলন করেছেন। এসময় সারাদেশে পেট্রোলবোমা, আগুন, ককটেল, গুলি, হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনায় ঝরেছে ১৩৭ প্রাণ। বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে জনজীবন।

তবে নৌকা এবং ধানের শীষ নিয়ে একটি উৎসব মুখর প্রচারণাময় ভোটযুদ্ধের ভেতর দিয়ে শেষ হয়েছে পুরনো বছরের শেষ মাসটি।

জঙ্গিদের হামলার শিকার


২০১৫ সাল মুক্তমনা লেখক-প্রকাশক ও ভিন্ন মতাবলম্বী ইসলামী চিন্তাবিদ ও পীরদের জন্য সীমাহীন আতঙ্কের বছর ছিল। তারাই বার বার জঙ্গিদের হামলার শিকার হয়েছেন। এ কারণে অনেকেই দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়েছেন। বছরের শুরুতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকায় জেএমবির জঙ্গিরা মুক্তমনা বিজ্ঞানমনস্ক লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায়কে প্রকাশ্যে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে। গুরুতর আহত হয় অভিজিতের স্ত্রী বন্যা। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর উদাসীনতার কারণে এ ধরনের হত্যা থেমে থাকেনি। এরপর খিলগাঁওয়ের নিজবাসায় বস্নগার নিলাদ্রী চট্টোপাধ্যায় ওরফে নিলয় নীলকেও একইভাবে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। আনসার আল-ইসলাম বাংলাদেশ এই হত্যার দায় স্বীকার করে। পরে ৩১ অক্টোবর সুপরিকল্পিতভাবে জঙ্গি হামলায় শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের জাগৃতি প্রকাশনীর নিজ অফিসে খুন হন ফয়সল আরেফিন দীপন। একই দিন লালমাটিয়ায় টুটুলের শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর অফিসে হামলার শিকার হন আহমেদুর রশীদ টুটুল, রণদীপন বসু ও তারেক রহিম। বছরের শেষদিকে নভেম্বর মাসে আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএস পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হকসহ ৭ বিশিষ্ট ব্যক্তিকেও হত্যার হুমকি দিয়ে চিঠি দেয়। অপরদিকে তেজগাঁওয়ে ওয়াশিকুর রহমান বাবু এবং সিলেটে অনন্ত বিজয় দাসকেও একই পরিণতি বরণ করে নিতে হয়। আনসারুল্লাহ বাংলাটিম এদের হত্যার দায় স্বীকার করে।

লেখক-প্রকাশক- ব্লগাররদের পাশাপাশি বাড্ডায় পিডিবির সাবেক চেয়ারম্যান ও কথিত পীর খিজির খানকেও তার দরবার শরিফের ভেতরে কুপিয়ে হত্যা করে।

২৩ অক্টোবর পুরান ঢাকায় হোসেনি দালানে বোমা হামলার ঘটনাটিও এ বছরের অন্যতম ঘটনাগুলোর মধ্যে একটি। ওয়েবসাইটে এক বিবৃতিতে আইএস এই হামলার দায় স্বীকার করে। তবে আইএস নিয়ে সরকারের ভেতরেও তথ্যের বিভ্রান্তি ছিল। সরকারের দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা আইএস নিয়ে স্ববিরোধী কথা বলে আলোচনার ঝড় তোলেন। বছরের শেষভাগে ঢাকা ও রংপুরে দুই বিদেশি নাগরিককে গুলি করে হত্যার ঘটনায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশ চরম সমালোচনার মুখে পড়ে। বিব্রতকর অবস্থায় পড়ে সরকার। গুলশান ২ নাম্বার সেকশনের ৯০ নাম্বার সড়কে ইতালিয়ান নাগরিক তাবেলা সিজারকে অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা গুলি করে হত্যা করে। আইএস এ হত্যার দায় স্বীকার করে। ঘটনার পর হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িতদের কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর কয়েকদিন পর রংপুরে জাপানি নাগরিক হোসে কোমিও সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন। এ ঘটনার পর বাংলাদেশে অবস্থানরত বিদেশি নাগরিকদের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্নের ঝড় ওঠে।  এরপর দিনাজপুরে অপর এক ইতালীয় নাগরিকের ওপর ধারালো অস্ত্রসহ সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। ভাগ্যক্রমে তিনি বেঁচে যান। বিদেশিদের নিরাপত্তার বিষয়টি সব মহলে বেশ নাড়া দেয়।

ক্রিকেটময় ক্রীড়াঙ্গন



বিশ্বকাপ ২০১৫ : আফগানিস্তানকে হারানোর মধ্য দিয়ে বিশ্বমঞ্চ মাতানো শুরু করে বাংলাদেশ। এরপর বাঘের গর্জনে কেঁপে উঠে স্কটল্যান্ড ও ইংল্যান্ড।
ইংল্যান্ডকে হারিয়ে বাংলাদেশ প্রথমবারের মতো কোয়ার্টার ফাইনালে ওঠে। পাকিস্তান, ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজ : বিশ্বকাপের পর পাকিস্তানকে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করে বাংলাদেশ। পাকিস্তানের পর টাইগারদের শিকারের তালিকায় যোগ হয় দুইবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ভারত। ওয়ানডে সিরিজে ২-১ ব্যবধানে জয়ের আগে বাংলাদেশ একমাত্র টেস্টও ড্র করে। ভারতের পর প্রাপ্তির খাতায় যোগ হয় দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সিরিজ জয়। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অনভিজ্ঞ বাংলাদেশ টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারলেও ওয়ানডে সিরিজ ২-১ ব্যবধানে জিতে নেয়। এরপর দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজও ড্র করে স্বাগতিক দল। 

বছরের শেষে জিম্বাবুয়ে বধ : বছরের শেষ প্রান্তে জিম্বাবুয়েকে ওয়ানডে সিরিজে হারায় টাইগাররা। ওয়ানডে সিরিজে সফরকারীদের হোয়াইটওয়াশের পর টি-টোয়েন্টি সিরিজ ড্র করে বাংলাদেশ। বিশ্বকাপে মাহমুদউল্লাহর জোড়া সেঞ্চুরি, প্রথম বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে বিশ্বকাপে সেঞ্চুরির স্বাদ পান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ৯ মার্চ অ্যাডিলেডে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১০৩ রানের পর ১৩ মার্চ নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ১২৮ রান করেন রিয়াদ। বর্ষসেরা ওয়ানডে দলে মুস্তাফিজ, ওয়ানডেতে মাত্র নয় ম্যাচে ২৬ উইকেট নিয়ে আইসিসির বর্ষসেরা তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান।


ছিটমহলে স্বাধীনতার সূর্যোদয়



২০১৫ সালে ছিটমহলবাসী পেয়েছে নতুন পরিচয়। সেখানে উঠেছে  স্বাধীনতার নতুন সূর্য। চলতি বছরের ২০ অক্টোবর বাংলাদেশের ইতিহাসে এক নতুন পালক যুক্ত হলো। রকারের বড় অর্জনের তালিকায় যুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ-ভারত ল্যান্ড বাউন্ডারি চুক্তির বাস্তবায়ন
ও ছিটমহল বিনিময়। দীর্ঘ ৬৮ বছর পর ছিটমহল বিনিময়ের মাধ্যমে বাংলাদেশ ও ভারতের মূল ভূখণ্ডের অংশ হয়ে গেছে ছিটগুলো। এতে পূর্ণ নাগরিকের পর্যাদা পেল ৫০ হাজার মানুষ।

মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধের বিচার



বুদ্ধিজীবী হত্যাকান্ড সহ মানবতার বিরুদ্ধে বিভিন্ন অপরাধের বিচার,  বিডিআর বিদ্রোহের মামলার আপিল, চাঞ্চল্যকর রাজন-রাকিব হত্যা এবং ঐশীর মামলা ছিল
এ বছর আলোচনার কেন্দ্রে। তিনজন যুদ্ধাপরাধী মুহাম্মদ কামারুজ্জামান, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ এবং সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছে।
যুদ্ধাপরাধের ফাঁসির রায় কার্যকর নিয়ে পাকিস্তানের সঙ্গে উত্তেজনা চরমে উঠেছে। মানবতাবিরোধী অপরাধ সংঘটনের দায়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত তিনজনের ফাঁসি কার্যকর হয়েছে।


কূটনৈতিক ক্ষেত্রে অর্জনঃ






২০১৫ সালে কূটনৈতিক ক্ষেত্রে এসেছে অর্জন ও চ্যালেঞ্জ। বিশ্বব্যাপী জলবায়ু পরিবর্তন রোধে বাংলাদেশের ভূমিকা ও নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণের কার্যক্রম এ দেশকে আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে নতুন মাত্রায় উন্নীত করেছে।  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘের পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ সম্মান ‘চ্যাম্পিয়নস অব দ্য আর্থ’ পুরস্কার গ্রহণ করেছেন।

বিশ্বে মৎস্য উৎপাদনে বাংলাদেশ চতুর্থ স্থান করে নিয়েছে। সবজি উৎপাদনে সুনাম করেছে। অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড আরও শক্ত হয়েছে দেশের। মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে যুদ্ধাপরাধীদের মৃত্যুদণ্ড দেওয়ায় জাতির কলঙ্ক মোচন হয়েছে। যদিও সহিংসতায় অসংখ্য নিরীহ মানুষের মৃত্যু, আহতদের আর্তচিৎকার, ব্লগার হত্যা, জঙ্গিদের উত্থান, বিদেশি নাগরিক হত্যার মতো ঘটনায় বারবার হোঁচট খেতে হয়েছে সবাইকে। তবে বছর শেষে ২৩৪ পৌরসভায় সব রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণে ভোট উৎসব হয়ে ওঠে ২০১৫ সালের আলোচিত ঘটনা।

এ বছর ওয়াশিংটনভিত্তিক প্রভাবশালী ম্যাগাজিন ফরেন পলিসির একশ বিশিষ্ট দৃঢ়চিন্তার ব্যক্তিত্বের তালিকায় স্থান করে নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জাতিসংঘ সম্মেলনে পরিবেশ বিষয়ক সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক পুরস্কার 'চ্যাম্পিয়ন্স অব দি আর্থ' ও বাংলাদেশে আইসিটির প্রসারে জাতিসংঘের 'টেকসই উন্নয়ন পুরস্কার' লাভ করেন প্রধানমন্ত্রী। মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশের উত্থান আলোচিত হয়। বাংলাদেশ সফর করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

মধ্যম আয়ের দেশ


বিশ্বজুড়েই উন্নয়নের রোল মডেল হয়ে উঠেছে বাংলাদেশ। আর্থসামাজিক উন্নয়নের বাংলাদেশের সাফল্য পেয়েছে বিশ্ব স্বীকৃতি। বাংলাদেশ হয়ে উঠেছে মধ্যম আয়ের দেশ।
১ জুলাই ২০১৫ বাংলাদেশকে নিম্নআয়ের দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় উন্নীত করে আন্তর্জাতিক আর্থিক সংস্থা বিশ্বব্যাংক। বাংলাদেশ এখন পরিচিত হবে নিম্নমধ্যম
আয়ের দেশ হিসেবে। স্বাধীনতার পর থেকে দীর্ঘ ৪৪ বছর ধরে বাংলাদেশ ছিল নিম্নআয়ের দেশের তালিকায়। প্রতিবছরের ১ জুলাই বিশ্বব্যাংক আনুষ্ঠানিকভাবে এ শ্রেণিকরণের
তালিকা প্রকাশ করে। বিশ্বব্যাংক ‘এটলাস মেথড’ নামের বিশেষ এক পদ্ধতিতে মাথাপিছু জাতীয় আয় পরিমাপ করে থাকে। এক্ষেত্রে একটি দেশের স্থানীয় মুদ্রার মোট জাতীয়
আয়কে (GNI) মার্কিন ডলারে রূপান্তর করা হয় ক্ষেত্রে তিন বছরের গড় বিনিময় হারকে সমন্বয় করা হয়, যাতে করে আন্তর্জাতিক মূল্যস্ফীতি ও বিনিময় হারের ওঠানামা
সমন্বিত হয়।

স্বপ্নের পদ্মা সেতু



নিজেদের অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ শুরু হয়েছে এ বছর। মূল সেতুর দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিমি।  দ্বিতীয় তলায় (আপার ডেকে) ৭২ ফুটের চার লেনের সড়ক

বিজ্ঞানযাত্রা



সোলার সাইকেল : বাংলাদেশে প্রথম তৈরি সোলার সাইকেল দিনাজপুর পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের তিন ছাত্র বিজয় মল্লিক, সাব্বির হোসেন ও শান্ত কুমার রায় তৈরি করেন পরিবেশবান্ধব এই সাইকেল। সূর্যের অলোতে চার্জ নেওয়া এ সাইকেল ১ ঘণ্টায় চলবে ২০/২৫ কিলোমিটার। য়োচার চুল্লির আবিষ্কার : পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (পবিপ্রবি) সহকারী অধ্যাপক মো. শামীম মিয়া উদ্ভাবন করেন বায়োচার চুল্লি। বায়োচার এক ধরনের চার বা কয়লা, যা মাটির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি করে, রাসায়নিক সারের কার্যকারিতা বাড়ায়, মাটিতে এবং মাটির অম্লত্ব দূর করে।

ডিজিটাল বাংলাদেশ



সরকারের সময়োচিত পদক্ষেপের ফলে গত সাড়ে ছয় বছরে দেশে তথ্যপ্রযুক্তি উন্নয়নের ক্ষেত্রে এক যুগান্তকারী বিপ্লব ঘটেছে। দেশে ইন্টারনেট ব্যবহার বেড়েছে গাণিতিক হারে। প্রযুক্তি বিজ্ঞানীদের মতে, ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন আর স্বপ্ন নয়, বাস্তবতা। বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট গ্রাহক সংখ্যা ৫ কোটি ৪৯ লাখ ৫৯ হাজার জন। দেশের ৯৯ ভাগ এলাকা মোবাইল নেটওয়ার্কের আওতায় এসেছে। দেশে থ্রি-জি প্রযুক্তির মোবাইল নেটওয়ার্ক চালু করা হয়েছে। আমাদের অর্থনীতির এই মুহূর্তে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হয়ে গেছে ইন্টারনেট।

গুগল স্ট্রিটে বাংলাদেশ



গুগল ম্যাপ ও গুগল আর্থের একটি বাড়তি সেবা হলো গুগল স্ট্রিট ভিউ, যা বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের রাস্তাসহ নানা ঐতিহাসিক স্থাপনার ছবি প্রদর্শন করে। খানে যোগ হয়েছে বাংলাদেশ। গুগল স্ট্রিট ভিউয়ে বাংলাদেশের সংযুক্তি প্রশংসনীয়। এ স্ট্রিট ভিউ ব্যবহারকারীকে তার নিকটবর্তী এলাকার প্যানোরামিক একটি চিত্র তুলে ধরার মাধ্যমে সহজেই কোনো জায়গার দিকনির্দেশনা পেতে সাহায্য করে। যবহারকারীর কাঙ্ক্ষিত জায়গাটি নিজের চোখে দেখার সুযোগ মেলে। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ বাংলাদেশ সরকারের অনুমোদনে গুগল ঢাকা এবং চট্টগ্রামজুড়ে স্ট্রিট ভিউ গাড়িতে তাদের কার্যক্রম শুরু করে।

নারীর সাফল্যের বছর


সেনাবাহিনীতে নারী সৈনিক, বিমানবাহিনীতে নারী বৈমানিক, বর্ডারগার্ড বাংলাদেশের সীমান্ত প্রহরায় নারী,

সাত চূড়ায় ওয়াসফিয়া



প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে বিশ্বের সাত মহাদেশের সাতটি সর্বোচ্চ শৃঙ্গ জয় করেছেন ওয়াসফিয়া নাজরীন। চার বছর আগে ‘বাংলাদেশ অন সেভেন সামিট’ নামে অভিযান শুরু
করেছিলেন তিনি।

অমোঘ মৃত্যুর নির্মম দুয়ারে যাদের হারালাম :


২০১৫ সালে আমরা হারিয়েছি বেশ কয়েকজন প্রিয় ব্যক্তিত্বকে। তাদের মধ্যে রয়েছেন_ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের অন্যতম রূপকার ভাস্কর নভেরা আহমেদ, কবি গোবিন্দ হালদার, সাবেক স্পিকার শেখ রাজ্জাক আলী, সাবেক প্রধানমন্ত্রী কাজী জাফর আহমদ, প্রবীণ সাংবাদিক হাসানউজ্জামান খান, প্রখ্যাত সাংবাদিক সিরাজুর রহমান,
সঙ্গীতশিল্পী ফরিদা ইয়াসমিন, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এএমএস কিবরিয়ার স্ত্রী চিত্রশিল্পী আসমা কিবরিয়া, সাবেক সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসিন আলী, চলচ্চিত্র নির্মাতা চাষী নজরুল ইসলাম প্রমুখ।


বাংলাদেশ নিয়ে মানুষের বিপুল প্রত্যাশা এই যে, নতুন বছরে অভিযাত্রা হবে রাজনৈতিক অনিশ্চয়তার অচলায়তন ভেঙে হঠাৎ আলোর ঝলকানি লেগে ঝলমল করে উঠুক চিত্ত।
২০১৬ সালকে দেখতে চাই ভিন্ন আঙ্গিকে। হিংসা-প্রতিহিংসার ঊর্ধ্বে উঠে রাজনীতিকরা পরমতসহিষ্ণু হয়ে প্রতিপক্ষের সঙ্গে পারস্পরিক শ্রদ্ধার আবহ তৈরি করে জনকল্যাণে সবাই একসঙ্গে মনোযোগী হবেন। নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকবে। আইন হয়ে উঠবে সব কিছুর নিয়ামক। নিশ্চিত হবে শাসকদের জবাবদিহিতা।


নতুন বছরে বই উৎসব হবে, শিক্ষার্থীদের হাতে হাতে নতুন বই পৌঁছবে, নিঃসন্দেহে জাতির জন্য খুবই আনন্দের। প্রতিবারের মতো এবারো বছরের প্রথমদিনেই শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেয়ার সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এরই মধ্যে দেশের প্রান্তিক পর্যায়ে বই পৌঁছে গেছে বলে জানিয়েছে এনসিটিবি।

নতুন বই বিতরণের ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। বিনা মূল্যের বই বিতরণে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল। সারা বিশ্ব যা কখনো ভাবতেও পারেনি, বাংলাদেশ তা করে দেখিয়েছে। সাত বছর ধরে একই দৃষ্টান্ত দেখিয়ে চলেছে বাংলাদেশ। এ বছর প্রাক প্রাথমিক থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত সাড়ে চার কোটি শিক্ষার্থী বিনা মূল্যে পাবে প্রায় ৩৩ কোটি বই। দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শিশুরাও পাবে ব্রেইল পদ্ধতির বই।  বছরের প্রথম কর্মদিবসেই প্রাথমিক ও মাধ্যমিকের সব শিশু হাতে পাবে এসব নতুন বই। ফলে নতুন উদ্যম আর আগ্রহে শিশুরা শুরু করবে নতুন বছরের পড়ালেখা।

শিশুদের এই আনন্দের মধ্যদিয়ে নতুন বছর সকলের জন্য শুভ হয়ে উঠুক।


এইবেলা ডটকম
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71