রবিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৮
রবিবার, ৬ই কার্তিক ১৪২৫
সর্বশেষ
 
 
বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপন রুখতে কঠোর আইন
প্রকাশ: ১১:০৩ am ১৯-০৩-২০১৮ হালনাগাদ: ১১:০৬ am ১৯-০৩-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


মাথার বেশিরভাগ চুল উঠে গেছে। চমকপ্রদ বিজ্ঞাপন দেখে টাকে চুল গজানোর আশায় তেল ব্যবহার করেছেন। কোনও ফল হয়নি। ঠিক তেমনই, ওজন কমানোর বিজ্ঞাপনে প্রভাবিত হয়ে পণ্য ব্যবহার করেছেন, অথচ ফল পাননি। এরকম বহু মানুষ আছেন যারা এ ধরনের চটকদারি বিজ্ঞাপন দেখে বিভিন্ন পণ্য ব্যবহার করেছেন। অথচ সময়, অর্থ সবই বিফলে গেছে। 

এখন খোঁজখবর শুরু হয়েছে, বিভ্রান্তিমূলক বিজ্ঞাপন দেখে পণ্য কিনে প্রতারিত হয়ে ক্রেতাসুরক্ষা আইনে কীভাবে সুরাহা মিলতে পারে। সম্প্রতি এরকম অনেকেই পরামর্শের জন্যে ক্রেতাসুরক্ষা আদালতের প্রাক্তন সদস্য বিচারক অজিত বসুর দ্বারস্থ হয়েছিলেন। তিনি তাদের জানিয়েছেন, ক্রেতাসুরক্ষা আইনের প্রণয়ন হয় ১৯৮৬ সালে। তার পর থেকে ওই আইন তিনবার সংশোধিত হয়েছে। কিন্তু তাতেও এ ধরনের বিভ্রান্তিমূলক বিজ্ঞাপনদাতাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া যায় এমন কোনও বিধান নেই। 

আইনে বলা হয়েছে, উপভোক্তার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তিনি পণ্য কিংবা পরিষেবা ক্রয়ের মূল্য ফেরত পেতে পারেন। একইসঙ্গে সংশ্লিষ্ট ক্রেতা আদালত বিজ্ঞাপনদাতাদের বিজ্ঞাপনকে সংশোধন এবং বাতিল করার নির্দেশ দিতে পারেন। বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপনদাতাদের বিরুদ্ধে কঠোর এবং কার্যকরী কোনও আইন না থাকায় এ ধরনের বিভ্রান্তিকর বিজ্ঞাপনে বাজারে ছেয়ে গেছে। ফলে ভুগতে হচ্ছে সাধারণ উপভোক্তাদের।

ক্রেতাসুরক্ষা আইন চালু হয়েছে ৩২ বছর আগে। যখন এই আইন প্রণয়ন হয় তখন টেলিমার্কেটিং, মাল্টিলেভেল মার্কেটিং, ডাইরেক্ট মার্কেটিংয়ের মতো ব্যবস্থাগুলি ছিল না। এইসব মার্কেটিং ব্যবস্থায় ক্রেতা বা উপভোক্তা ক্ষতিগ্রস্থ হলে তাদের সুরক্ষার বিষয়গুলি বর্তমান ক্রেতাসুরক্ষা আইনে স্থান পায়নি। 

বিএম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71