বুধবার, ২৬ জুন ২০১৯
বুধবার, ১২ই আষাঢ় ১৪২৬
 
 
বিলুপ্তির পথে টাঙ্গাইলের কাঁসা-পিতল শিল্প
প্রকাশ: ০৪:১৩ pm ০৬-১০-২০১৭ হালনাগাদ: ০৬:৫২ pm ০৬-১০-২০১৭
 
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি:
 
 
 
 


টাঙ্গাইলকে প্রসিদ্ধ করেছে কাসা ও পিতল শিল্প। এক সময় টাঙ্গাইলের সমৃদ্ধশালী ব্যবসা ছিলো এটি। শুধু টাঙ্গাইল নয় বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গে এই শিল্পের সুনাম ছিল। টাঙ্গাইলের কাঁসা ও পিতলের তৈরি তৈজস পত্রের ব্যাপক চাহিদা ছিলো সারা দেশে। দেশের চাহিদা মিটিয়েও কাঁসা ও পিতলের তৈজসপত্র বিদেশেও রফতানি হতো। বিশেষ করে এগুলো ছিলো ভারত বিখ্যাত। অবিভক্ত বাংলায় একদিন প্রসিদ্ধ ছিলো টাঙ্গাইলের তামা, কাঁসা ও পিতল শিল্প। এটি বিগলন ঢালাই প্রযুক্তির অন্তর্গত। আর সুদৃশ্য কারুকার্য ও অনুপম গুণগত মানের জন্যই টাঙ্গাইলের কাঁসা ও পিতলের তৈরি তৈজসপত্র এতটা প্রসিদ্ধ হয়ে উঠেছিলো।

টাঙ্গাইলের কর্মকারগণ অত্যন্ত সুনিপূণ কৌশলে নিরলস শ্রম দিয়ে আজো তৈরি করছে তামা, কাঁসা ও পিতলের থালা, বাটি, কলসী, গ্লাস, জগ, ঝারি, বদনা, ঘটি, লোটা, পঞ্চ প্রদীপদান, মোমবাতিদান আগর বাতিদান, কুপি, চামচ, কাজলদানী, ডেকচি, ডেগ, বোল, খুন্তি, সড়তা, বাটি, পুতুল, ঝুনঝুনি, করতাল, মেডেলসহ প্রভৃতি জিনিসপত্র।

বাঙালী রমনীর কণ্ঠে ধ্বনিত হবে না নানা রকমের মিষ্টি সুরের প্রেমের লোক গান। কতই না গান রচিত হয়েছিল কাঁসা ও পিতল শিল্প নিয়ে। মহাজনী পুঁজি প্রবেশ লাভ করেছে এ লোক শিল্পে। এতে কারিগর শ্রেণী দ্রুত মজুরে পরিণত হবে অথচ গড়ে উঠতে পারবে না এ লোক শিল্প শক্ত ভিতের উপর। উপযুক্ত প্রযুক্তির অভাব হেতু ক্ষুদ্র্রায়তন শিল্পে রূপান্তরিত হওয়ায় সুযোগও আজ অনুপস্থিত।

আরডি/
 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71