বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
বিশ্বের প্রাচীনতম এবং রহস্যময় মন্দির তৈরি হয়েছিল ১১‚৬০০ বছর আগে !
প্রকাশ: ১১:২২ am ১১-০৫-২০১৭ হালনাগাদ: ১১:২২ am ১১-০৫-২০১৭
 
 
 


ধর্মস্থান তৈরির রীতি মানুষ আয়ত্ত করল কী করে ? এই নিয়ে বিস্তর গবেষণা হয়েছে । শেষে পুরাতাত্ত্বিকরা একমত হয়েছেন এই বিষয়ে‚ যে সবকিছুর মূলে আছে কৃষিকাজ ।

 মানুষ চাষবাস শেখার পরে থিতু হল এক জায়গায় | তৈরি হল শহর । তারপর সেই শহরে এল মন্দির কিন্তু এই তত্ত্ব আন্দোলিত হল ১৯৯৪-এ । জার্মান পুরাবিদ তখন আবিষ্কার করলেন গোরেখলিতেহপেহ । দক্ষিণ তুরস্কে আনাতোলিয়া পাহাড়ের পাদদেশে এই নির্মাণকে বলা হচ্ছে পৃথিবীর প্রাচীনতম মন্দির বা উপাসনালয় । তৈরি হয়েছিল সাড়ে এগারো হাজার বছর আগে। গিজার পিরামিডের থেকেও ৭০০ বছরের প্রাচীন এই নির্মাণ ।

এর আগে গবেষকরা মনে করতেন‚ ৮ হাজার বছর আগে মানুষ কৃষিকাজ শেখে | ক্রমে নগর সভ্যতার পত্তন হয়। কিন্তু গোরেখলিতেহপেহ চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল‚ নগর পত্তন হওয়ার অনেক আগেই মানবসভ্যতায় এসেছিল উপাসনালয় ।

কিন্তু কী আছে তুরস্কের এই পুরাতাত্ত্বিক সাইটে ? একে বলাই যায় ইংল্যান্ডের স্টোন হেঞ্জের আর এক সংস্করণ।তফাৎ হল‚ এটি তৈরি হয়েছিল স্টোন হেঞ্জের অনেক অনেক বছর আগে । গোরেখলিতেহপেহ-তে এক জায়গায় গোল হয়ে দাঁড়িয়ে আছে মসৃণ চুনাপাথরের স্তম্ভ । তার গায়ে খোদাই করা আছে হরিণ‚ বন্য শূকর‚ সাপ‚ শিয়াল‚ বিছের মতো প্রাণীর অবয়ব । ঐতিহাসিকদের ধারনা‚ এখানে উপাসনা করতেই আসত প্রাচীন মানুষ । যখন এটা নির্মিত হয়েছিল তখন মানবসভ্যতায় তৈরিই হয়নি কোনও পরিমাপ একক । কোনও সিঁড়ি বা চাকা ছাড়া প্রায় ৬০ টন ওজনের পাথর কী করে অত উপরে তোলা হল‚ সেটাও রহস্য ।

নয়ের দশকের আগে অবধি ঐতিহসিকদের ধারনা ছিল‚ নিওলিথিক বিপ্লব হয় তাইগ্রিস-ইউফ্রেতিস নদীর মাঝে।মানুষ সেখানে কৃষিকাজ শেখে তারপর বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে তারা বেরিয়ে পড়ে নতুন নতুন জায়গার সন্ধানে।কিন্তু গোরেখলিতেহপেহ আবিষ্কারের সঙ্গে মানুষের ক্রমবর্ধমানতার ইতিহাস পিছিয়ে যাচ্ছে অনেকটাই ।

তুরস্কে যখন গোরেখলিতেহপেহ তৈরি হয়‚ তখনও স্থানীয় মানুষ কৃষিকাজ শেখেনি । কৃষির প্রচলন এখানে শুরু হয় আরও ৫০০ বছর পরে। কৃষি না শেখা আধা-ভবঘুরে শিকারীরা কী করে শিলাস্তম্ভ দিয়ে আস্ত উপাসনালয় বানিয়ে ফেলল‚ ভেবে পাননি আধুনিক যুগের গবেষকরা।

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71