শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯
শুক্রবার, ৪ঠা শ্রাবণ ১৪২৬
 
 
ভগবান বিষ্ণুর অবতার
প্রকাশ: ১০:২২ pm ২৭-০৩-২০১৭ হালনাগাদ: ১০:২২ pm ২৭-০৩-২০১৭
 
 
 


দশাবতারের প্রথম চার জন অবতীর্ণ হয়েছিলেন সত্যযুগে। পরবর্তী তিন অবতারের আবির্ভাব ত্রেতাযুগে। অষ্টম অবতার দ্বাপরযুগে এবং নবম অবতারকলিযুগে অবতীর্ণ হন।

পুরাণ অনুসারে, দশম অবতার এখনো অবতীর্ণ হননি। তিনি ৪২৭,০০০ বছর পর কলিযুগের শেষ পর্বে অবতীর্ণ হবেন।

গরুড় পুরাণ অনুসারে বিষ্ণুর দশ অবতার হলেন:

১.   মৎস্য, মাছের রূপে সত্যযুগে অবতীর্ণ

২.   কূর্ম, কচ্ছপের রূপে সত্যযুগে অবতীর্ণ

৩.   বরাহ, শূকরের রূপে সত্যযুগে অবতীর্ণ

৪.   নরসিংহ, অর্ধনরসিংহ রূপে সত্যযুগে অবতীর্ণ

৫.   বামন, বামনের রূপে ত্রেতাযুগে অবতীর্ণ

৬.   পরশুরাম, পরশু অর্থাৎ কুঠারধারী রামের রূপে ত্রেতাযুগে অবতীর্ণ

৭.   রাম, রামচন্দ্র, অযোধ্যার রাজপুত্রের রূপে ত্রেতাযুগে অবতীর্ণ

৮.   কৃষ্ণ, দ্বাপরযুগে ভ্রাতা বলরামের সঙ্গে অবতীর্ণ।

৯.  বুদ্ধ, কলিযুগে অবতীর্ণ হন।

১০.  কল্কি, সর্বশেষ অবতার।কলি যুগের অন্তে তাঁর আবির্ভাব ঘটবে।

কল্কি অবতারের বর্ণনা দেওয়ার পর ভাগবত পুরাণ–এ ঘোষিত হয়েছে, বিষ্ণুর অবতার অসংখ্য। যদিও উপরি উল্লিখিত পঁচিশ অবতারের গুরুত্বই সর্বাধিক।ভাগবত পুরাণ–এর একটি শ্লোক,মহাভারত–এর কতকাংশ এবং অন্যান্য পৌরাণিক ধর্মগ্রন্থের মতে,চৈতন্য মহাপ্রভু হলেন বিষ্ণুর অন্যতম অবতার।

গৌড়ীয় বৈষ্ণব ঐতিহ্য অনুসারে তাঁকে অবতার রূপে পূজা করার বিধান রয়েছে। এই কারণেই চৈতন্য মহাপ্রভুকে গৌরাঙ্গ অবতার নামে অভিহিত করা হয়।সাধারণত বিষ্ণুকে সকল অবতারের উৎস বলে গণ্য করা হলেও, হিন্দু বৈষ্ণব শাখায় বিষ্ণু একক দিব্য সত্ত্বা যা নানা রূপে প্রকাশিত হয়েছে।

এই ধর্ম মতেনারায়ণ, বাসুদেব ও কৃষ্ণ দিব্য চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য অনুসারে একাধিক নামে অভিহিত হন, যা অনেক সময়েই অবতারকল্প রূপ ধারণ করে।এছাড়াও হিন্দুধর্মে অবতার শব্দের অন্য অর্থ ও ব্যাখ্যাও রয়েছে।

এইবেলাডটকম/এএস

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71