বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৪ঠা আশ্বিন ১৪২৫
 
 
মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় বাংলাদেশ
প্রকাশ: ০২:০৬ am ০২-০৭-২০১৫ হালনাগাদ: ০২:০৬ am ০২-০৭-২০১৫
 
 
 




বিশ্বের ক্রমবর্ধমান অর্থনীতির সাথে বাংলাদেশ সমানতালে এগিয়ে চলেছে। একটা কথা এখন প্রায়শঃই শোনা যাচ্ছে যে, বাংলাদেশ অতি শীঘ্রই মধ্যম আয়ের দেশ হিসাবে বিশ্ব দরবারে আত্নপ্রকাশ করতে যাচ্ছে। মধ্যম আয়ের দেশ কি? আর কিভাবেই বা এ তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয় তা আমাদের অনেকেরই অজানা। আসুন সংক্ষেপে বিষয়টি জেনে নেওয়ার চেষ্টা করি।

মধ্যম আয়ের দেশ কি? : বিশ্বব্যাংক হতে কোন দেশকে কি পরিমান ঋণ দেওয়া হবে তা নির্ধারন করতে বিশ্বব্যাংক পৃথিবীর দেশ সমুহকে চারটি শ্রেণীতে ভাগ করে।
১) নিম্ন আয়ের দেশ: যাদের মাথাপিছু আয় ১০৪৫ডলার বা তার কম। বর্তমানে ৩৪টি দেশ এ তালিকার অন্তর্ভুক্ত।
২) নিম্ন মধ্যম আয়ের দেশ: যাদের মাথাপিছু আয় ১০৪৬ হতে ৪১২৫ ডলারের মধ্যে। বর্তমানে ৫০টি দেশ এ তালিকার অন্তর্ভুক্ত।
৩) উচ্চ মধ্যম আয়ের দেশ: যাদের মাথাপিছু আয় ৪১২৬ হতে ১২৭৪৫ ডলারের মধ্যে। বর্তমানে ৫৫টি দেশ এ তালিকার অন্তর্ভুক্ত।
৪) উচ্চ আয়ের দেশ: যাদের মাথাপিছু আয় ১২৭৪৬ ডলার বা তার বেশী। বর্তমানে ৭৫টি দেশ এ তালিকার অন্তর্ভুক্ত।
প্রতি বছর ১ জুলাই বিশ্বব্যাংক শ্রেণীকরণের এ তালিকা প্রকাশ করে থাকে। এ তালিকা প্রনয়ণের ক্ষেত্রে বিশ্বব্যাংক মাথাপিছু আয় পরিমাপ করে এটলাস পদ্ধতির মাধ্যমে। একটি দেশের স্থানীয় মুদ্রার মোট জাতীয় আয় (GNI) কে এটলাস পদ্ধতিতে মার্কিন ডলারে রুপান্তর করা হয়। এ ক্ষেত্রে তিন বছরের গড় বিনিময় হারকে সমন্বয় করা হয়। প্রসংগত উল্লেখ্য যে, এ কারনেই বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো এবং বিশ্বব্যাংক এর হিসাব এক হয় না।

জাতিসংঘ অর্থনৈতিক ও সামাজিক সূচকের ভিত্তিতে বিশ্বের দেশগুলোকে তিনটি ভাগে ভাগ করে। ১) স্বল্পোন্নত দেশ ২) উন্নয়নশীল দেশ ৩)উন্নত দেশ। স্বল্পোন্নত দেশ ধারনাটি প্রথম উদ্ভাবিত হয় ১৯৬০ সালে। অর্থনৈতিক এবং সামাজিক কাউন্সিল (ECOSOC)এর উন্নয়ন নীতিমালা বিষয়ক কমিটি বা কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি (CDP) তিনটি সূচকের ভিত্তিতে তিন বছর অন্তর স্বল্পোন্নত দেশসমুহের তালিকা প্রনয়ণ করে থাকে। প্রথম LDC এর তালিকা প্রকাশ করা হয় ১৮ নভেম্বর ১৯৭১। বাংলাদেশ LDC তালিকাভুক্ত হয় ১৯৭৫সালে। ২০১২ সালে সর্বশেষ এ তালিকা প্রনয়ণ করা হয়েছে। বর্তমানে ৪৮টি দেশ এ তালিকা ভুক্ত, যার মধ্যে আফ্রিকা মহাদেশের ৩৪টি, এশিয়া মহাদেশের ৯টি, ওশেনিয়া মহাদেশের ৪টি, এবং আমেরিকার ১টি দেশ রয়েছে। LDC হতে উত্তরনের জন্য তিনটি সূচক নিন্মরুপ।
১) মাথাপিছু আয়: তিন বছরের গড় মাথাপিছু জাতীয় আয় (GNI) । LDC হতে উত্তরনের জন্য তিন বছরের মাথাপিছু আয় ১২৪৩ ডলার হতে হবে।
২) মানব সম্পদ উন্নয়ন সূচক: পুষ্টি, স্বাস্থ্য, শিক্ষার হার, স্কুলে ভর্তি, জেন্ডার বৈষম্য, ইত্যাদির ভিত্তিতে তৈরি হয়। LDC হতে উত্তরনের জন্য ৬৬ পয়েন্ট পেতে হবে।
৩) অর্থনৈতিক নাজুকতা / ভঙ্গুরতা সূচক: বিভিন্ন প্রাকৃতিক দূর্যোগ, বানিজ্য ও অর্থনৈতিক আঘাত, বিশ্ব বাজারে একটি দেশের অবস্থান, জনসংখ্যা ইত্যাদির ওপর ভিত্তি করে তৈরি হয়। LDC হতে উত্তরনের জন্য অনুর্দ্ধ ৩২ পয়েন্ট পেতে হবে।

মধ্যম আয়ের দেশের তালিকায় বাংলাদেশের জায়গা করে নেওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। এ তালিকা হতে বের হতে হলে অর্থনৈতিক নাজুকতা ৩২.৪ পয়েন্ট হতে হতে কমিয়ে ৩২ পয়েন্ট এবং মানব সম্পদ উন্নয়ন সূচক ৫৪.৭ পয়েন্ট হতে ৬৬ পয়েন্ট এ উন্নীত করতে হবে। প্রসংগত উল্লেখ্য যে, সর্বশেষ ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে সাময়িক হিসাবে মাথাপিছু বার্ষিক আয় ১৩১৪ ডলার। এর আগের দুই অর্থবছরে মাথাপিছু বার্ষিক আয় ছিলো যথাক্রমে ১০৫৪ এবং ১৯৯০ ডলার।
এইবেলা ডট কম/এইচ আর
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71