বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯
বৃহঃস্পতিবার, ১৩ই আষাঢ় ১৪২৬
 
 
মহাভারতে কর্ণ কেন ভগবান পরশুরামের কাছে মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছিলেন?
প্রকাশ: ০৮:০১ pm ১৩-০৫-২০১৮ হালনাগাদ: ০৮:০১ pm ১৩-০৫-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


কর্ণ ছিলেন মহাভারতে বর্ণিত সর্বশ্রেষ্ঠ যোদ্ধাদের একজন এবং তিনিই ছিলেন একমাত্র যোদ্ধা যিনি মহাভারতের আরেক শ্রেষ্ঠ যোদ্ধা অর্জুনকে যুদ্ধে পরাজিত করতে সক্ষম ছিলেন। মহাভারতের বর্ণনামতে, কর্ণ ছিলেন সেযুগের একমাত্র যোদ্ধা যিনি সমগ্র পৃথিবী জয় করেছিলেন। কর্ণ একক উদ্যোগে দিগ্বিজয় যাত্রা সম্পন্ন করেছিলেন এবং বিশ্বের সকল রাজাকে পরাজিত করে বৈষ্ণব যজ্ঞ পরিচালনার মাধ্যমে তাঁর বন্ধু হস্তিনাপুরের যুবরাজ দুর্যোধনকে বিশ্বের সম্রাট হিসেবে অধিষ্ঠিত করেছিলেন।

কর্ণ ছিলেন সূর্যদেব ও কুন্তির সন্তান এবং সেই সূত্রে পাণ্ডবদের বড় ভাই। কিন্তু ভাগ্যচক্রে তিনি কৌরব রাজকুমার দুর্যোধনের ঘনিষ্ঠতম মিত্রে পরিণত হন এবং ফলশ্রুতিতে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে তিনি কৌরবদের পক্ষে নিজ ভাই পাণ্ডবদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেন। কর্ণ সমগ্র জীবনব্যাপী প্রতিকূল ভাগ্যের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেন এবং যে কোনো পরিস্থিতিতে তাঁর প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতেন। ধারণা করা হয়, বর্তমান ভারতের হরিয়ানা রাজ্যের কর্নাল শহরটি কর্ণই প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। কর্ণ তাঁর ত্যাগ, সাহসিকতা, দানশীলতা, বীরত্ব এবং নি:স্বার্থপরতার জন্য বিখ্যাত হয়ে আছেন।

কুন্তীভোজের রাজকুমারী কুন্তী যৌবনকালে দুর্বাসা মুনির কাছে আশীর্বাদরূপে পুত্রেষ্ঠী মন্ত্র লাভ করেন। কুমারী অবস্থায় একদিন কুন্তী কৌতূহলবশত মন্ত্রবলে সূর্যদেবতাকে আহ্বান করেন। মন্ত্রের সম্মান রক্ষার্থে সূর্যদেব তার গর্ভসঞ্চার করতে বাধ্য হন। ফলে কর্ণের জন্ম হয়। বিবাহের পূর্বে কর্ণের জন্ম হওয়ায় কুন্তী লোকনিন্দার ভয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়েন। সমাজে নিজের সম্মান রক্ষার তাগিদে তিনি শিশুপুত্রকে একটি বেতের পেটিকাতে শুইয়ে নদীতে ভাসিয়ে দেন। ভীষ্মের রথের সারথী অধিরথ ও তার স্ত্রী তাঁকে উদ্ধার করেন। তারা কর্ণকে পুত্রস্নেহে পালন করতে থাকে এবং তাঁর নাম হয় বসু্ষেন। কর্ণকে 'রাধেয়' নামেও ডাকা হয়ে থাকে।

বাল্যকাল থেকে কর্ণ ধনুর্বিদ্যায় আগ্রহী ছিলেন। তিনি কুরু রাজকুমারদের অস্ত্রগুরু দ্রোণাচার্যের কাছে শিক্ষালাভের উদ্দেশ্যে গেলে, দ্রোণাচার্য তাঁকে সুতপুত্র বলে প্রত্যাখ্যান করেন। দ্রোণাচার্যের প্রত্যাখ্যানের পর কর্ণ দ্রোণাচার্যের গুরু পরশুরামের নিকট শিক্ষাগ্রহণের জন্য যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। পরশুরাম যেহেতু শুধুমাত্র ব্রাহ্মণদের শিক্ষা দিতেন, তাই কর্ণ নিজেকে ব্রাহ্মণ হিসাবে পরিচয় দেন। অতঃপর পরশুরাম তাঁকে শিষ্য হিসাবে গ্রহণ করেন। তিনি কর্ণকে ব্রহ্মাস্ত্র ত্যাগ ও অস্ত্র সংবরণ করার পদ্ধতি শিখিয়ে দেন। শিক্ষার শেষে পরশুরাম তাঁকে নিজের সমতুল্য যোদ্ধা ও ধনুর্বিদ বলে ঘোষণা করেন। একদিন পরশুরাম আশ্রমের কাছে এক জায়গায় কর্ণের কোলে মাথা রেখে ঘুমিয়ে পড়েন। এমন সময়ে একটি বিছা জাতীয় কীট কর্ণের ঊরুতে দংশন করে। কিন্তু গুরুর নিদ্রাভঙ্গের হতে পারে ভেবে তিনি অসহ্য যন্ত্রণা ভোগ করেও কর্ণ নিশ্চল রইলেন। রক্তের ধারা পরশুরামের গায়ে লাগলে তাঁর ঘুম ভেঙে যায় এবং তিনি সিদ্ধান্তে আসেন যে কর্ণ ব্রাহ্মণ নয়। অতপর কর্ণ নিজের প্রকৃত পরিচয় ব্যক্ত করতে বাধ্য হন। পরশুরাম তাঁর এই মিথ্যাচারে ক্ষুব্ধ হয়ে অভিশাপ দেন যে সংকটকালে দিব্যাস্ত্র ত্যাগের কৌশল তাঁর মাথায় আসবে না। কিন্তু কর্ণের অনলস অধ্যাবসায়ে খুশি হয়ে পরশুরাম তাঁকে ভাগবাস্ত্র নামক দৈবাস্ত্র ও বিজয় নামক ধনু উপহার দেন।

কর্ণ ধনুর্বিদ্যা অভ্যাসকালে একটি গাভীকে হত্যা করায় এক ব্রাহ্মণ তাঁকে শাপ দেন যে, মৃত্যুকাল উপস্থিত হলে কর্ণের রথের চাকা যখন মাটিতে বসে যাবে তখন সে এই গাভীর মতই অসহায় হয়ে পড়বে।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71