রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
রবিবার, ৫ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
মেসির হাতে বিশ্বকাপ দেখতে চান মারাদোনা
প্রকাশ: ০৪:৪৭ pm ১৬-০৬-২০১৮ হালনাগাদ: ০৪:৪৭ pm ১৬-০৬-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ফুটবলের মুহাম্মদ বিন তুঘলক তিনি! খামখেয়ালিপনায় তাঁর জুড়ি মেলা ভার। তিনি 'হ্যান্ড অফ গড'-এর সষ্ট্রা দিয়েগো আর্মান্দো মারাদোনা।রাশিয়ায় বিশ্বকাপ শুরুর কয়েকদিন আগে বলেছিলেন এবার গ্রুপ পর্বেই বিদায় নেমে আর্জেন্টিনা। আর বিশ্বকাপ শুরুর দু'দিন পর লিওনেল মেসির হাতে বিশ্বকাপ দেখার ইচ্ছেপ্রকাশ মারাদোনার। 

শনিবার মস্কোর স্পার্টাক স্টেডিয়ামে আইসল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করছে দু'বারের (১৯৭৮ ও ১৯৮৬) চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা।

১৯৮৬ মেক্সিকো বিশ্বকাপে শেষবার আর্জেন্টিনা বিশ্বজয়ের স্বাদ পেয়েছিল মারাদোনার হাত ধরে। গত ৩২ বছর যা আর্জেন্টিনা ফুটবলে লোকগাঁথা হয়ে রয়েছে। তিন দশক পর মেসির হাতে তাঁর স্বপ্নের স্মৃতিচারণ করতে চান 'ফুটবল ঈশ্বর'। দ্য টাইমস অফ ইন্ডিয়া-র কলামে মারাদোনা লিখেছেন, 'লিও-কে প্রমাণ করার জন্য বিশ্বকাপ জেতার দরকার নেই। কিন্তু এই ট্রফি জেতার জন্য ও মুখিয়ে রয়েছে। এটা দলকে মোটিভেট করবে। ওর বডি ল্যাঙ্গুয়েজ অত্যন্ত ইতিবাচক। আমরা সবাই জানি ও কীভাবে সেকেন্ডের মধ্যে ম্যাচের গতি বদলে দিতে পারে।'

৩০ বছরের আর্জেন্টিনা ফুটবলের রাজপুত্র দেশের হয়ে বিশেষ সাফল্য না-পেলেও ক্লাব বার্সেলোনার হয়ে সাফল্যের ডালি সাজিয়েছেন। এবার তাই দেশের জার্সিতে বিশ্ব মঞ্চে নিজেকে সেরা প্রমাণ করতে মরিয়া মেসি। তাঁর সাফল্য কামনা করে মারাদোনা লিখেছেন, 'বিশ্বকাপ জয়ের অভিজ্ঞতা ব্যাখ্যা করা অত্যন্ত কঠিন। আমি চাই মেসিরও সেই অভিজ্ঞতা হোক।'

২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপে স্বপ্নের ফর্মে ছিলেন মেসি। কিন্তু অল্পের জন্য স্বপ্নপূরণ হয়নি। গাঁথা হয়নি রূপকথা। ফাইনালে জার্মানদের কাছে হেরে বিশ্বজয়ে মারাদোনাকে ছোঁয়ার বাসনা অতৃপ্ত রয়ে যায় মেসির। রাশিয়ায় সেই স্বপ্নপূরণ করতে মরিয়া লিও। ৮৬ বিশ্বকাপ জয়ের নায়ক মারাদোনা লিখেছেন, ' ২০১৪ ও সেভাবে সার্পোট পায়নি। তার পর রাশিয়া বিশ্বকাপে কোয়ালিফায়ারেও স্ট্রাইকাররা সেভাবে স্কোর করতে পারেনি। লিও একাই সেটা করে দেখিয়েছে। ও যতক্ষণ দলে রয়েছে, আর্জেন্তিনার পক্ষে সব কিছু সম্ভব। তবে সতীর্থদের সাপোর্ট পাওয়াটা অত্যন্ত জরুরি।' প্রথম ম্যাচে আইসল্যান্ডকে হালকাভাবে নেওয়ার উচিত হবে না বলেই মনে করেন মারাদোনা।

তিনি জানান, 'আইসল্যান্ডকে হালকাভাবে নেওয়া উচিত হবে না, কারণ এটা ওদের প্রথম বিশ্বকাপ। দু'বছর আগে প্রথমবার ইউরো কোয়াটার্র ফাইনালে খেলেছে আইসল্যান্ড। ওদের ট্যকটিস ভালো। শর্ট বলে ওদের দক্ষতা রয়েছে। বিশেষ করে ওরা প্র্যাকটিক্যাল ফুটবলে ওরা দক্ষ। শক্তিশালী দলের বিরুদ্ধে ওরা নিজের হাফ মজবুত রাখে। এই পরিস্থিতিতে ওদের বিরুদ্ধে গোল করা সহজ হবে না। আন্ডারডগদের বিরুদ্ধে শুরুতেই এগিয়ে যাওয়াটা অত্যন্ত জরুরি। কারণ প্রতিপক্ষকে রুখে দিলে ওদের আত্মবিশ্বাস বেড়ে যাবে।'

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71