বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮
বুধবার, ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
ময়মনসিংহে জেলা ও মহানগর আ’লীগের পুর্নাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় কর্মীরা হতাশ
প্রকাশ: ০৫:১০ pm ৩০-০৬-২০১৭ হালনাগাদ: ০৫:১০ pm ৩০-০৬-২০১৭
 
 
 


রবীন্দ্র নাথ; (ময়মনসিংহ): জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগ এক বছর আগে সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক মনোনিত করা হলেও এখন পর্যন্ত পুর্নাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় কর্মীদের মধ্য চাঞ্চল্য নেই।

ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের ত্যাগী নেতা অধ্যক্ষ মতিউর রহমান দলীয় পদে থাকতে অপরাগতা প্রকাশ করায় জেলা আওয়ামীলীগ কার্যত এখন বিএনপি’র মত রাজনৈতিক সংগঠনে পরিণত হয়েছে।

ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে যখন মতিউর রহমান দায়িত্বে ছিলেন, তখন রাজনীতি ছিল রমরমা। ঠিক মরহুম এ কে এম ফজলুল হক যখন বিএনপি’র রাজনীতির কর্নধার ছিলেন,তখন বিএনপি ছিল রমরমা। প্রয়াত ফজলুল হকের সময় বিএনপি রাজনীতি ছিল চাঙ্গা।সেই অবস্থা এখন আর নেই।ময়মনসিংহের রাজনীতিতে অধ্যক্ষ মতিউর রহমান ও বিএনপি’র রাজনীতিতে প্রয়াত ফজলুল হকের বিকল্প তৈরী না হওয়ায় রাজনীতির মাঠে এখন শূন্যতা বিরাজ করছে। মাঝি ঠিক না থাকলে নৌকা যেমন পথহারা,ঠিক তেমনই অবস্থা এখন দুই প্রধান রাজনৈতিক দলের। দীর্ঘদিন যারা আওয়ামীলীগ ও বিএনপি’র রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন, আজ সে সব তৃণমুলের নেতা কর্মীরা পথহারা বিভ্রান্ত।

বিএনপি ক্ষমতায় নেই। হালুয়া রুটি নেই বলেই তাদের নেতারা এখন আর অফিসে যান না। কেন্দ্রের কর্মসুচী নামকা ওয়াস্তে পালন করে অফিস সংলগ্ন স্থানে। আর সন্ধ্যায় প্রেস রিলিজ পত্রিকা অফিসে পাঠিয়ে দায় খালাসের মত রাজনীতি করে নিজেদের নিভু নিভু মোমবাতির মত টিকিয়ে রাখছে। হয়তো তারা বলবেন আমাদের মাঠে নামতে দেয়না, পুলিশ দিয়ে আমাদের মিটিং মিছিল বানচালই বর্তমান সরকারের গনতান্ত্রিক ষ্টাইল। নাম প্রকাশ না করে ্িবএনপি’র এক নেতা বলেন. আমাদের নেতা কর্মীদের কারো কারো নামে ২০/২৫ টি মামলা রয়েছে।

আদালত আর বাড়ী আসা যাওয়া করতে করতে দিন পার হয়ে যায়। মাঠে নামলেই মামলা হয়। মিথ্যা মামলায় নেতা কর্মীরা জেলে থাকতে থাকতে এখন আর মাঠে থাকতে চায়না। তবে এ অবস্থা বেশিদিন থাকবে না। সময় হলেই জেগে উঠবে দলীয় নেতা কর্মীরা। অপরদিকে আওয়ামীলীগের সে অবস্থা না থাকলেও রাজনীতির মাঠে নেতা কর্মীরা তেমন সক্রিয় নেই।

দীর্ঘ এক বছর আগে জেলা ও মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি/সেক্রেটারী ঘোষনা করা হলেও পুর্নাঙ্গ কমিটি না থাকায় ত্যাগী নেতা কর্মীরা চুপচাপ রয়েছেন। সহজে কেউ মুখ খুলতে চায় না। যদি তাদের দলে রাখা না হয় সেই আশংকায়। বৃহত্তর ময়মনসিংহ আওয়ামীলীগের ক্ষমতায় যাবার প্রসস্থ ঁিসড়ি। এ অঞ্চলে আ’লীগের ভোটার ও সমর্থক বেশী। শুধুমাত্র নৌকার হালধরার মাঝি যদি
ঠিকমত হাল ধরতে পারেন,তবেই এখানে নৌকার সহজ বিজয় নিশ্চিত।

জেলা ও মহানগর আ’লীগে এক বছর আগে সভাপতি/সাধারন সম্পাদক মনোনিত করা হলেও আজ পর্যন্ত পুর্নাঙ্গ কমিটি গঠন করতে না পারায় কর্মীদের মাঝে হতাশা সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘদিন যারা আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত থেকে জেল জুলুম খেটে নৌকা ছাড়া কিছুই বোঝে না, তারা এখন কমিটি না থাকায় নিস্ক্রিয় অবস্থায় দিন যাপন করছে। এভাবে বেশীদিন থাকলে কর্মীরা আস্থা হারিয়ে ফেলবেন। দীর্ঘ এক বছর পরও পুর্নাঙ্গ কমিটি না থাকায় জেলায় আওয়ামী রাজনীতিতে শূন্যতা সৃষ্টি হতে পারে। শোনা যাচ্ছে,দীর্ঘদিনের ত্যাগী নেতা কর্মীদের কেউ কেউ বর্তমান কমিটি থেকে বাদ পড়তে পারেন।

সেক্ষেত্রে জেলা ও মহানগরের রাজনীতিতে বিরূপ প্রভাব পড়তে পারে। এক সময় যারা মাঠ কাপিয়ে আওয়ামী রাজনীতিকে ধরে রেখেছেন ,তাদের মধ্যে বর্তমান জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড, মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল একজন। তিনি ভাল করেই জানেন কারা হাইব্রীড আর কারা তুনমুলের আওয়ামীলীগার। হাইব্রীড কর্মীরা দল ক্ষমতায় না থাকলে তাদের পাওয়া যাবে কিনা সন্দেহ। সুতরাং জেলা ও মহ্নাগর আওয়ামীলীগে যেন তৃণমুলের প্রকৃত নৌকার জানপ্রাণ যারা, তাদেরই প্রাধান্য দিয়ে দল গুছিয়ে নিলে সামনের দিনগুলোতে তাদের কাঙ্খিত জয়যাত্রা অব্যাহত থাকবে, নয়তো হাইব্রীড কর্মীদের সংগঠন বিরোধী কাজের দায়ভার তাদের উপর বর্তাবে তাতে সন্দেহ নেই। জেলা ও মহানগর কমিটির মেয়াদ এক বছর হতে চললেও কেন পূর্ণাঙ্গ কমিটি হয়নি জানতে চাইলে সাবেক ত্যাগী ছাত্রনেতা ও বর্তমানে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এড, মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল জানান, জেলার পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হয়েছে। অচিরেই অনুমোদনের জন্য কেন্দ্রীয় কমিটির কাছে পাঠানো হবে।  

মহানগর আওয়ামীলীগের  সভাপতি এহতেশামূল আলমকে ফোন করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। ময়মনসিংহে বড় দুদলেই এখন রাজিৈতক বন্ধ্যাত্ব চলছে। এ অচলাবস্থা কাটাতে কেন্দ্রকেই উদ্যেগী ভুমিকা নিতে হবে। তা না হলে হাইব্রীড বা কাউয়া মার্কারা হালুয়া রুটির জন্য অর্থ ছিটিয়ে দলে তাদের আসন পাকাপোক্ত করে নিতে পারে। যার দায় কেন্দ্র এড়াতে পারবে না বলেই আমাদের বিশ্বাস।

 

এইবেলাডটকম/গোপাল/এসএস/সুমন

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71