শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৭ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
ময়মনসিংহে প্রেমের ফাঁদে ফেলে যুবতীকে গণধর্ষণ
প্রকাশ: ০৫:২৯ pm ১২-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০৫:২৯ pm ১২-০৮-২০১৭
 
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি :
 
 
 
 


ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার ভাটিচর নওপাড়া এলাকার এক বখাটে গোপালগঞ্জের এক যুবতীকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে নিজ এলাকায় এনে পালাক্রমে গনধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। 

শুক্রবার (১১ আগস্ট ) রাতে গোপালগঞ্জ জেলার ফজলুল হকের কন্যা ভিকটিম নিজেই বাদি হয়ে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে ৯ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

স্থানীয়রা জানায়, উপজেলার রাজীবপুর ইউনিয়নের ভাটিচর নওপাড়া গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে জুয়েল মিয়া গোপালগঞ্জ জেলার কোটালীপাড়া উপজেলার বান্দাবাড়ি গ্রামের ফজলুল হকের যুবতী কন্যার সাথে এক বছর আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে তাদের দুজনের পরিচয় হয়। 

জুয়েলের সাথে ওই যুবতীর মোবাইল ফোনে কথাবার্তা শুরু হলে এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই প্রেমের ফাঁদে পরেই জুয়েলের সাথে দেখা করতে ওই যুবতী তার বড় বোনকে সঙ্গে নিয়ে ৬ আগস্ট রাত ৯ টার দিকে ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ সদর বাস স্টেশনে পৌঁছে। সেখান থেকে দুই বোনকে নিয়ে জুয়েল সিএনজি যোগে উপজেলার রাজীবপুর ইউনিয়নের লাটিয়ামারী বাজার বেড়িবাঁধ এলাকায় পৌছে। সে ব্রহ্মপুত্র নদের বালুর চরে তাদের দুজনকে নিয়ে যায়।

 রাত ১১টার দিকে জুয়েল ও তার সহযোগীরা বড় বোনকে আটকে রেখে ছোট বোন ভিকটিমকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। সেই সাথে তাদের সঙ্গে থাকা বিভিন্ন স্বর্ণালংকার ও দুটি মোবাইল ফোন, ক্যামেরা, নগদ টাকাসহ অন্যান্য জিনিসপত্র লুট করে নিয়ে যায় ধর্ষকরা। ভোরে অসুস্থ্য অবস্থায় বড় বোনের সহায়তায় ওই এলাকার আক্তারুজ্জামানের বাড়িতে আশ্রয় নেয় তারা। 

আক্তারুজ্জামান ঘটনার বিবরণ শুনে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানেকে অবগত করলে চেয়ারম্যান ঘটনাস্থলে গিয়ে আশে-পাশের লোকজনকে জিজ্ঞাসা করে সত্যতা পেয়ে ওই নারীকে আইনের আশ্রয় নিতে বলে। 

শুক্রবার সন্ধ্যায় ওই নারী বাদী হয়ে জুয়েল মিয়াসহ নয়জনকে আসামি করে ঈশ্বরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ইউপি চেয়ারম্যান মোদাব্বিরুল ইসলাম জানান, এলাকায় গিয়ে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি। ঘটনার সাথে জড়িতদের পরিচয় পাওয়া গেছে।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বদরুল আলম খান বলেন, প্রেমের ফাঁদে ফেলে ভিকটিমকে ধর্ষণ করা হয়। এ ঘটনায়  ৯ জনকে আসামী করে একটি মামলা হয়েছে। তবে ধর্ষকদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান ওসি।

আর/এসএম

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71