শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৭ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
যশোরের চাঁচড়া মত্স্যপল্লীতে বেচাকেনায় ধস
প্রকাশ: ১২:০০ am ২৫-০৩-২০১৫ হালনাগাদ: ১২:০০ am ২৫-০৩-২০১৫
 
 
 


বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ডাকা টানা হরতাল ও অবরোধের কারণে যশোরের চাঁচড়া মত্স্যপল্লীতে বেচাকেনায় ধস নেমেছে। দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ক্রেতা না আসায় প্রতিদিন অন্তত ৩০ লাখ টাকার ক্ষতি হচ্ছে বলে ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। আবার যারা আসছেন, তারা অধিক পিকআপ ভাড়ার কারণে মাছ না কিনে ফিরে যাচ্ছেন। এভাবে চলতে থাকলে এ শিল্পে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত প্রায় দেড় লাখ পরিবার পথে বসবে বলে তারা আশঙ্কা প্রকাশ করছেন।
ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সারা দেশে চাহিদার মোট আমিষের শতকরা ৪০-৫০ ভাগ যশোর থেকে পূরণ হয়ে থাকে। যশোর চাঁচড়া মত্স্যপল্লীর ৪২টি হ্যাচারি মালিক ও পাঁচ হাজার মত্স্যচাষী সাদা মাছের রেণু (একদিন বয়সী) ও পোনা (ছোট মাছ) উত্পাদন করে সারা দেশে সরবরাহ করেন। এতে প্রতি বছর ৫০০-৭০০ কোটি টাকার লেনদেন হয় এ মত্স্যপল্লীতে।
যশোর বাবলাতলা মত্স্যচাষী সমিতির উপদেষ্টা নজরুল ইসলাম বলেন, ‘চাঁচড়া মত্স্যপল্লীতে উত্পাদিত পোনা বিক্রির জন্য প্রতিদিন সকালে যশোরের শংকরপুর নতুন বাসস্ট্যান্ডসংলগ্ন বাবলাতলায় হাট বসে। এ হাটে সারা দেশের বিভিন্ন এলাকার ঘের মালিকরা পোনা কিনতে আসেন। তবে হরতাল-অবরোধে বাইরের ব্যবসায়ীরা তেমন না আসায় বেচাকেনা অনেক কমে গেছে।’
চাঁচড়া রাজবাড়ী এলাকার মত্স্যচাষী শরীফুল ইসলাম বলেন, ‘হরতাল-অবরোধের মধ্যে গাড়ি চলাচল করলেও নাশকতার ভয়ে অন্যান্য জেলা থেকে তেমন ক্রেতা আসছেন না। ফলে পোনার দাম একেবারেই কমে গেছে।’
ব্যবসায়ীরা জানান, ২০০-২৫০ গ্রাম ওজনের চিতল মাছের পোনা স্বাভাবিক সময়ে ১৮০-২০০ টাকায় বিক্রি করা হতো। কিন্তু গত মঙ্গলবার প্রতি পিস চিতল বিক্রি হয়েছে মাত্র ১০০ টাকায়। এতে চাষীরা চরম ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।
এছাড়া ১০০ টাকার প্রতি কেজি (৪০-৫০ পিস) সিলভার  কার্প ৭০ টাকা, ১৩০ টাকার কেজি (১০ পিস) জাপানি পুঁটি ১০০ টাকা, ২০০ টাকা দরের গ্রাস কার্প কেজিপ্রতি (১০-১৫ পিস) ১৫০ টাকা, ১৩০ টাকার প্রতি কেজি (১৫ পিস) কাতলা ৯০ টাকা, ৩ হাজার টাকার বিভিন্ন ধরনের রেণুর কেজি দেড় হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মাগুর-তেলাপিয়াসহ সব ধরনের পোনার ক্রেতা না থাকায় দাম কমেছে।


যশোর জেলা মত্স্য হ্যাচারি মালিক সমিতির সভাপতি ফিরোজ খান বলেন, ‘চাঁচড়া মত্স্যপল্লীতে উত্পাদিত রেণু ও পোনা মাছ ঢাকা, বরিশাল, টাঙ্গাইল, নীলফামারী, পটুয়াখালী, বাগেরহাট, কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, যশোর ও খুলনা জেলার বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করা হয়। তবে হরতাল-অবরোধের কারণে বাইরের জেলা থেকে ব্যবসায়ীরা না আসায় তারা রেণু বিক্রি করতে পারছেন না। আবার যারা আসছেন, তারা পিকআপ সংকটে ভুগছেন। কেননা হরতালের মধ্যে পিকআপ ভাড়া দ্বিগুণ নেয়া হচ্ছে। এ কারণে হ্যাচারিতে ৯০ শতাংশ উত্পাদন বন্ধ রাখা হয়েছে। এতে চরম ক্ষতির শিকার হচ্ছেন তারা।’


তিনি বলেন, ‘আগে আমাদের এখানে ৮২টি হ্যাচারি ছিল। ব্যবসা না থাকায় এর মধ্যে অর্ধেক বন্ধ হয়ে গেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে বাকিগুলোর অবস্থাও একই হবে।’
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71