সোমবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৮
সোমবার, ২৬শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
যার র কারনে দুই ছিনতাইকারী আটক
প্রকাশ: ০৫:০৯ pm ১৮-১১-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:০৯ pm ১৮-১১-২০১৮
 
সরাইল প্রতিনিধি
 
 
 
 


এই সেই রিক্সা চালক মোঃ সাত্তার (৩৫), যার সাহসিকতার কারনে দুই ছিনতাই কারীকে আটক করতে সক্ষম হয় পুলিশ। কিন্তু তার এই বীরত্বের কথা কেউ মনে রাখেনি। সাত্তার গেঞ্জি এবং হেলমেট রেখে দেয়াতেই ছিনতাই কারীকে খুজে পেতে সহজ হয় পুলিশের। ঘটনার ৫দিন অতিবাহিত হলেও সাত্তার কে দেখতে কেউ যায়নি। 

রবিবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সাত্তার মিয়া উপজেলার বড্ডা পাড়া এলাকায় খুপরি আকৃতির একটি ঘরে ৫০০টাকা ভাড়ায় ভাড়াটিয়া  হিসেবে বসবাস করে। মোঃ সাত্তার এর ইমরান (৫) নামে এক ছেলে আর স্ত্রী রয়েছে ঘরে। খুবই অভাব অনটনের মধ্যে চলে সংসার। তার থাকার কোন জায়গা জমি নেই।

সাত্তার মিয়া বলে, প্রতিদিনের ন্যায় সে রিক্সা নিয়ে বের হয়, ১৫টাকা ভাড়ার জন্য নিয়ে যাচ্ছিলো আপন স্বর্ণ শিল্পালয়ের মালিক তপন বনিক ও তার ছোট ছেলে বিষ্ণু বনিককে। সে বিকাল বাজার শাহী জামে মসজিদ সংলগ্ন হাজী সুপার মার্কেটের সামনে থেকে তাদের দুজনকে নিয়ে রওনা হয় বড় দেওয়ান পাড়া এলাকায়। তখন সে বাজার পেরিয়ে বড় দেওয়ানপাড়া কবরস্থান এলাকায় পৌছা মাত্রই তার রিক্সার গতিরোধ করে দাঁড়ায় হেলমেট পরিহিত তিন মোটরবাইক আরোহী ডাকাত দলের সদস্যরা। কিছু বুঝে উঠার আগেই রিক্সায় আরোহী বাবা ছেলের চোখে মরিচের গুরা ছিটিয়ে দেয়। আর ব্যাগ নিয়ে ধস্তাধস্তি শুরু করে, হাতের ব্যাগ লইয়া মোটরবাইক নিয়া পালায়। আমার চোখে মোখেও মরিচের গুরা ছিটিয়ে দেয়। তবুও জীবনের মায়া না করে ডাকাত দলের সাথে আমার ধস্তাধস্তি শুরু হয় একসময় একজনের মাথার হেলমেট ও গেঞ্জি টেনে ধরি ডাকাত দলের এরা সবাই এইগুলি ফালাইয়া গেছেগা। আমি ডাকাত দলের একটি হেলমেট ও গেঞ্জি টেনে রেখে দেয়াতেই আজকে পুলিশ তাদের ধরতে পারছে। সেইদিন তার পকেটে থাকা ৩০০শত টাকাও ছিনতাই কারীরা নিয়ে যায় বলে জানান। মরিচের গুরার কারনে তার চোখ ফুলে ছিলো বলে জানায় সে। 

সে আরো বলে সেইদিন ডাকাতের দেয়া মরিচের গুরার কারনে আমি দুইদিন বিছানায় পড়ে ছিলাম কেউ আইয়া একটু দেখছেও না। যাক আমার মাধ্যমে যদি তারার উপকার হয় তাইলে আমি খুশি। 

এদিকে মোঃ সাত্তার কে দেখতে গিয়ে সরাইল দেওড়া মিতালী সমাজ কল্যাণ সমিতির পক্ষ থেকে সামান্য উপহার দিয়ে আসেন, মিতালী সমিতির সভাপতি ও সরাইল প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক  মাহবুব খান বাবুল। এই উপহার পেয়ে মোঃ সাত্তার খুবই খুশি। সে বলেন আমাকে দেখতে এখনো কেউ আসেনি, আপনেরা আমারে যে উপহার দিছেন আমি এবং আমার পরিবার খুব খুশি। 

উল্লেখ্য গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সরাইল বাজারের স্বর্ণ দোকানী ছিনতাই কারীর কবলে পড়ে ১৮০ভড়ি স্বর্ণালঙ্কার ও ব্যাগ ভর্তি নগদ টাকা খোয়ান। এরই সূত্র ধরে সাইদুল (৪০),ইমরান খা(৩৫) নামে দুই ছিনতাই কারীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে শুক্রবার রাতে স্বর্ণালঙ্কার ও নগদ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার কথা স্বীকার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্য মতে উপজেলার বণিক পাড়া এলাকার নিত্য তলা পাত্রের বাড়ির পেছনে কলা গাছের তলায় মাটি খুড়ে ১৪১ভড়ি স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করে। কিন্তু বাকী ৩৯ভড়ি স্বর্ণ ও নগদ টাকার সন্ধান করতে পারেনি এখনো পুলিশ।

যার তীক্ষ্ণ বুদ্ধির কারনে দুই ছিনতাই কারীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় পুলিশ, সেই তরুণ অফিসার এ এস আই শাহজালাল বলেন, তাকে আসলেই পুরষ্কৃত করা দরকার। 

নি এম/দ্বীপক
 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71