শনিবার, ২৫ মে ২০১৯
শনিবার, ১১ই জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬
 
 
যুক্তরাজ্যের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার
প্রকাশ: ০৫:৩৩ pm ১৯-০২-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:৩৭ pm ১৯-০২-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


অবশেষে বাংলাদেশ থেকে আকাশপথে সরাসরি পণ্য পরিবহনের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে যুক্তরাজ্য। নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে প্রায় দুই বছর আগে তারা এ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছিল।

রবিবার বিকেলে ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কনফারেন্স রুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের কথা জানান বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেক।

এরপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার সংক্রান্ত পত্র বেসামরিক বিমান পরিবহন মন্ত্রী এ কে এম শাহজাহান কামালের হাতে তুলে দেন হাইকমিশনার।

ব্রিটিশ-বাংলাদেশ ফুড অ্যান্ড ভেজিটেবল ইম্পোর্টার্স এসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট রফিক হায়দার বলেন, নিষেধাজ্ঞার ফলে সে সুযোগ নিয়ে এরমধ্যে অন্যান্য দেশ এ বাজারে ঢুকে পড়েছে। ফলে বিরাট ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে গেছে বাংলাদেশ।

হায়দার বলেন, ‘এ অবস্থার কারণে ব্যবসা অনেকটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বিশেষ করে যুক্তরাজ্যে আগে যত মালামাল আসতো নিষেধাজ্ঞার ফলে অন্যান্য দেশ যেমন ভারত, পাকিস্তান, জর্ডান, হল্যান্ড, ইতালি বিভিন্ন দেশ এসব পণ্য উৎপাদন করে অর্থনৈতিকভাবে লাভবান হয়ে গেছে।’

তিনি বলেন, এমবার্গোর ফলে সে সুযোগে অন্যান্য দেশে এ বাজারে ঢুকে পড়েছে।

‘এখন আমাদের পণ্য নিয়ে প্রায় ৪০% আছি। যেসব দেশ এসব পণ্যের ব্যাপারে আগে জানতো না সেইসব দেশের সরকার বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দিয়ে মার্কেটটা ধরে ফেলেছে। সুতরাং বিরাট একটা ক্ষতির সম্মুখীন হয়ে গেছে বাংলাদেশ।’

গত দুই বছর ধরে এ নিষেধাজ্ঞার ফলে বাজারে বাংলাদেশের যে অবস্থা ছিল সেটি অনেক নিম্নমুখী হয়ে গেছে। একসময় এমন কিছু সবজি ছিল যা বাংলাদেশের বাইরে অন্য কোথাও থেকে আসতো না। এরমধ্যে রয়েছে বরবটি, শিমসহ বেশ কয়েক ধরনের সবজি।

এখন নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার পর সেই বাজার ফিরে পাওয়া কি কঠিন হবে?

এমন প্রশ্নে এই আমদানিকারক বলেন, অন্যান্য দেশ চেষ্টা করছে যাতে তাদের বাজার বন্ধ হয়ে না যায়। তারা সাবসিডি দিচ্ছে, বাজার মনিটর করছে-বাজার ধরে রাখার জন্য।

বাংলাদেশ থেকে এ ধরনের কী পরিমাণ পণ্য আমদানি করা হয় জানতে চাইলে রফিক হায়দার বলেন, ‘কুড়ি বছর আগে বাংলাদেশ থেকে এ ধরনের পণ্যের চাহিদা ছিল ৪০ মিলিয়ন ডলারের। কুড়ি বছর পরেও এখনো সেই ৩০/৪০ মিলিয়নে আটকে আছে বাংলাদেশ। বাজার কিন্তু ৪০০ মিলিয়ন ডলারের।’

তার মতে, দেশ থেকে যারা রপ্তানি করেন তাদের অধিকাংশই যুক্তরাজ্যের চাহিদা কী সেটি সঠিকভাবে অনুধাবন করতে পারেনি। তারা মনে করে স্থানীয় বাজারে যেভাবে পণ্য পাঠিয়ে দেয় সেভাবে পাঠালেই হয়, কিন্তু যুক্তরাজ্যের বাজার আর স্থানীয় বাজার তো সমান নয়।

এ বিষয়গুলো যাদের দায়িত্ব মনিটর করার তারা তা সঠিকভাবে না করায় বাজারটি নষ্ট হয়ে গেছে বলে যুক্তরাজ্যের আমাদনিকারকরা মনে করেন। সূএ: বিবিসি

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71