বুধবার, ১৬ জানুয়ারি ২০১৯
বুধবার, ৩রা মাঘ ১৪২৫
 
 
যৌনতার মেলা অলিম্পিক !
প্রকাশ: ০১:২২ am ১৫-০৭-২০১৬ হালনাগাদ: ০১:২২ am ১৫-০৭-২০১৬
 
 
 


স্পোর্টস ডেস্ক: বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়ার আসর অলিম্পিক। আগস্টে এবারের আসর বসতে যাচ্ছে ব্রাজিলের রিও-তে। সারা বিশ্বে একের পর এক সন্ত্রাসী হামলার পরিপ্রেক্ষিতে ব্রাজিলের প্রশাসন নিরাপত্তা নিয়ে এখন থেকেই তৎপর। তবে সন্ত্রাসবাদী হুমকির চেয়েও বড় আরেক হুমকির মুখে তারা। সেটা হলো ‘যৌনতা’। ব্রাজিল এমনিতেই খোলামেলা যৌনতার দেশ। তাদের দেশের যৌনতা ফুটবলের মতোই বিখ্যাত। অলিম্পিক চলাকালে সেটা যে আরও বেড়ে যাবে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

প্রসাশনের বাড়তি মাথাব্যথার কারণ এখানেই। জিকা ভাইরাস নিয়ে এমনিতেই বিপদে আছে ব্রাজিল। এই ভাইরাস বেশিরভাগ ছড়ায় যৌনতার মাধ্যমে। অলিম্পিক চলাকালে খেলোয়াড় ও দর্শকদের মধ্যে যৌনতার মাধ্যমে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কায় রয়েছে তারা। এতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে ব্রাজিল সরকার। খেলোয়াড় ও দর্শকদের যৌনতা কোনোভাবেই রুখা সম্ভব নয়। তাই প্রশাসন জোর দিয়েছে কনডমের ওপর। অলিম্পিক সামনে রেখে ব্রাজিলের সরকার যুদ্ধকালীন তৎপরতায় কনডম তৈরি করছে। আমাজনের গভীর জঙ্গল থেকে ল্যাটেক্স এনে তৈরি করা হয়েছে বিশেষ ধরনের কনডম। রোগ থেকে সুরক্ষা থাকার জন্য এখন থেকেই তারা দর্শক ও খেলোয়াড়দের কনডম ব্যাবহারের প্রতি উদ্বুদ্ধ করছে।

ইতিমধ্যে দেশটির সরকার যে পরিমাণ কনডম তৈরি করেছে তার পরিমাণ শুনলে চোখ কপালে উঠতে পারে। শুধুমাত্র দর্শকদের ব্যবহারের জন্য ইতিমধ্যে ৯০ লাখ কনডম তৈরি করা হয়েছে। অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করা খেলোয়াড়দের জন্যও প্রচুর পরিমাণে বিশেষ কনডম তৈরি করা হয়েছে। এবারের আসরে সর্বসাকুল্যে সাড়ে ১০ হাজার খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করবেন। কিন্তু তাদের জন্য তৈরি করা হয়েছে সাড়ে ৪ লাখ কনডম! এরমধ্যে এক লাখ নারীদের ব্যবহার ও সাড়ে ৩ লাখ পুরুষদের ব্যবহারের জন্য। একেকজন খেলোয়াড় পাবেন ৪২টি করে কনডম। তার মানে যদি অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করা নারী ও পুরুষ খেলোয়াড় যৌনতায় অংশ নেন তাহলে তারা দু’জনে মিলে পাবেন ৮৪টি কনডম!

অলিম্পিকের ইতিহাসে কখনও এত বেশি কনডম বানানো হয়নি। ১৯৯২-বার্সেলোনার অলিম্পিক থেকে খেলোয়াড়দের মধ্যে ফ্রি কনডম বিতরণ শুরু হয়। জীবনঘাতী এইডস ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কায় কর্তৃপক্ষ তখন থেকে খেলোয়াড়দের মধ্যে কনডম বিনামূল্যে কনডম বিতরণের সিদ্ধান্ত নেয়। চার বছর আগে অলিম্পিক বসেছিল লন্ডনে। সেবার খেলোয়াড়দের মধ্যে দেড় লাখ মতো কনডম বিতরণ করা হয়। কিন্তু এবার তারচেয়ে তিনগুণ বেশি কনডম বিতরণ করা হবে। ব্রাজিলিয়ান সংবাদমাধ্যম ‘ফোলহা দি সাও পাওলো’ জানিয়েছে ২০০০ সালের সিডনি অলিম্পিক থেকে গত লন্ডন অলিম্পিক পর্যন্ত প্রতি আসরে আড়াই লাখ মতো কনডম বিতরণ করা হয়। কিন্তু এবার সে সব রেকর্ড ভেঙে যাবে।  

 

এইবেলাডটকম/এসি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71