মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮
মঙ্গলবার, ৬ই অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
রবীন্দ্র ভবন শুধু নকশাতেই আটকে আছে
প্রকাশ: ০৮:৫১ am ০৬-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০৮:৫১ am ০৬-০৮-২০১৭
 
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি
 
 
 
 


বছর দেড়েক আগে চূড়ান্ত হয়েছে নকশা। কথা ছিল দ্রুত কুষ্টিয়ায় রবীন্দ্র স্মৃতিবিজড়িত কুঠিবাড়িতে নির্মাণ করা হবে রবীন্দ্র ভবন। দেড় বছর পর ওই নকশাতেই আটকে আছে ভবনটির নির্মাণ প্রক্রিয়া। তবে সংস্কৃতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, খুব অল্প সময়ের মধ্যে দরপত্র আহ্বান করে নির্মাণকাজ শুরু করা হবে। ভারত সরকারের আর্থিক অনুদানে কুঠিবাড়ির সামনের উন্মুক্ত স্থানে রবীন্দ্র ভবন নির্মাণ হওয়ার কথা। এটি নির্মাণ হলে রবীন্দ্র কুঠিবাড়িতে পর্যটকের সংখ্যা আরও বাড়বে বলে মনে করছেন কুষ্টিয়ার সংস্কৃতি অঙ্গনের লোকজন।


বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের সাংস্কৃতিক বিনিময় চুক্তির আওতায় ভবনটি নির্মাণের জন্য সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়কে ১৩ কোটি টাকার আর্থিক অনুদান দিয়েছে ভারত। জানা গেছে, এর বাইরে অতিরিক্ত টাকার প্রয়োজন হলে তার জোগান দেবে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়। ২০১৩ সালের মার্চে ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি শিলাইদহ সফরে গিয়ে কুঠিবাড়ির নানা সমস্যা দেখে এর সম্প্রসারণ ও কমপ্লেক্স নির্মাণে অর্থ সহায়তার ইচ্ছা পোষণ করেন। প্রণব মুখার্জির ইচ্ছা পোষণের পর ২০১৫ সালের ৭ জুন প্রকল্পটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।


সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ২০১৪ সালের ১৬ মার্চ সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের সঙ্গে তৎকালীন ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরণের এক বৈঠকে রবীন্দ্র ভবন নির্মাণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়। এরপর ভূমি জরিপসহ বিভিন্ন কাজ শেষ করে ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে ভবনটির নকশা চূড়ান্ত করা হয়। তবে নকশায় সামান্য পরিবর্তন হওয়ায় ভবন নির্মাণ ও সম্প্রসারণে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। কারণ এসব কাজ করতে দখল করে নেওয়া জমি প্রথমে উদ্ধার করতে হবে।


সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, 'শিলাইদহের কুঠিবাড়ির নকশায় কিছুটা সংশোধন করা হয়েছে। এ কারণে কাজ শুরু হতে কিছুটা বিলম্ব হচ্ছে। ভারত সরকারের সঙ্গে চুক্তি হওয়ায় আর্থিক বিষয়ে কোনো জটিলতা নেই। দ্রুত সময়ের মধ্যে দরপত্র আহ্বান করে কাজ শুরু করা হবে।


সূত্রমতে, কুঠিবাড়ির প্রধান ফটকের সামনে দীর্ঘদিন অন্যের দখলে থাকা ৬ একর জমি উদ্ধার করেছে স্থানীয় প্রশাসন। সেখানেই নির্মিত হবে রবীন্দ্র ভবন। স্থপতি রবিউল হুসাইনের নকশায় রবীন্দ্র ভবনটি মূলত একটি সাংস্কৃতিক কেন্দ্র হিসেবে তৈরি করা হবে।


রবীন্দ্র ভবন নির্মাণ বিষয়ে শিলাইদহ রবীন্দ্র কুঠিবাড়ির কাস্টোডিয়ান মোখলেচুর রহমান  বলেন, 'চলতি মাসেই লাইব্রেরি, রেস্ট হাউসসহ কয়েকটি ভবন নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান করা হবে। দরপত্র হয়ে গেলেই কাজ শুরু হবে। অন্য কাজও দ্রুত শুরু হবে।'


কুষ্টিয়া শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম বলেন, রবীন্দ্র ভবন তৈরির কাজ দ্রুত শুরু হবে আশা করছি। কাজটি যাতে ভালোভাবে হয়, সেজন্য সবাইকে আন্তরিক হতে হবে। কাজটি শেষ হলে কুঠিবাড়িতে দর্শনার্থীর সংখ্যা আগের চেয়ে বেড়ে যাবে।


কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ড. সরওয়ার মুর্শেদ বলেন, ররীন্দ্রনাথ ভারত-বাংলাদেশ উভয়ের। রবীন্দ্র ভবন নির্মাণ একটি ভালো উদ্যোগ। এতে আশপাশের বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে আরও বেশি জানার সুযোগ পাবে।


প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71