রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯
রবিবার, ১০ই চৈত্র ১৪২৫
 
 
রাজকীয় ভাবে ব্যাঙের বিয়ে!
প্রকাশ: ০১:৪৯ pm ০৩-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০১:৪৯ pm ০৩-০৮-২০১৭
 
 
 


ভরা বর্ষায় ব্যাঙের বিয়ের আয়োজন করলেন জামুড়িয়ার নণ্ডি গ্রামের বাসিন্দারা। কুনো ব্যাঙ আর সোনা ব্যাঙের বিয়ে হল রাজকীয় ভাবে। মঙ্গলবার রাত ৯টা নাগাদ ছিল বিয়ের লগ্ন। বিবাহ সম্পন্ন হল নানু বন্দোপাধ্যায়ের পৌরোহিত্যে। 

বিয়ের জন্য ছাদনাতলা, ফুলের মালা, গায়ে হলুদ, আশীর্বাদের ধান-দুব্বো, খাওয়াদাওয়া, সব ধরনের ব্যবস্থাই ছিল। শুধু তাই নয়, বিয়েতে আমন্ত্রিতরা ব্যাঙ দম্পতিকে দিয়েছেন নগদ অর্থ-সহ বিভিন্ন উপহার সামগ্রী। বিয়েতে দর্শকের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় লাইভ প্রোজেক্টারের ব্যবস্থা করতে হয় উদ্যোক্তাদের! 

প্রচলিত আছে, ব্যাঙের বিয়ে হয় বর্ষার আহ্বানে। এই বর্ষায় যখন ভেসে যাচ্ছে বাংলার বিভিন্ন এলাকা, তখন কেন ব্যাঙের বিয়ে? গ্রামবাসীদের দাবি যে বৃষ্টি হচ্ছে তা কাজের নয়। চাষের উপযোগী বৃষ্টি তাঁদের প্রয়োজন। গ্রামের বেশিরভাগ মানুষ সবজি ও ধান চাষ করেন। আরেক পক্ষ জানায়, সারা বাংলা জুড়ে প্রবল বৃষ্টি হলেও জামুড়িয়ায় তেমন বৃষ্টি হয়নি। তাই ব্যাঙের বিয়ের আয়োজন।

গ্রামবাসীর মধ্যেই ভাগাভাগি হয়ে কিছু লোক কনেপক্ষ আর কিছু লোক বরপক্ষে যোগ দিয়েছেন। ব্যাঙ দম্পতির গায়ে হলুদের কার্যক্রম শেষ হলে, শুরু হয় বিয়ের কার্যক্রম। গোয়ালাপাড়া থেকে আসেন কনেযাত্রীরা। বরপক্ষ কনেপক্ষ মিলে দেড় হাজারের বেশি অতিথি বিয়ের ভূরিভোজে খেলেন খিচুড়ি, কুমড়োর ঝাল, মাছ, ও চাটনি। 

 বিয়ে উপলক্ষে গ্রামে তৈরি হয় মণ্ডপ, এলইডি আলো, ডিজে-সাউন্ড বক্স। সঙ্গে আনা হয় ব্যান্ড পার্টিও। ব্যাঙ দু’টিকে তেল-সিঁদুর মাখিয়ে বসানো হয় বিয়ের পিঁড়িতে। মালাবদল, শুভদৃষ্টি-সহ বিভিন্ন আনুষ্ঠানিকতায় সম্পন্ন হয় বিয়ে। বরপক্ষ ও কনেপক্ষ উভয়েই ধান-দুব্বো দিয়ে আশীর্বাদ করেন নবদম্পতিকে। এর পর গ্রামবাসী ও আমন্ত্রিত অতিথিরা খাওয়াদাওয়া শেষে ব্যাঙ দম্পতিকে নগদ অর্থ-সহ বিভিন্ন উপহার প্রদান করেন।

মূলত বৃষ্টির দেবতাকে খুশি করার জন্যই ব্যাঙের বিয়ের প্রচলন হয়েছিল। সেই ধারা অনুসারে ব্যাঙের বিয়ের আয়োজন এর আগেও করেছেন এলাকার বাসিন্দারা। তাঁদের বিশ্বাস, ব্যাঙের বিয়ে দিলে বৃষ্টির দেবতা খুশি হয়ে বৃষ্টি দেন। অন্য গ্রামবাসীদের কটাক্ষ, এর পরে ভারী বৃষ্টিতে বানভাসি হলে, মুখ্যমন্ত্রী কিন্তু ডিভিসিকে আর দায়ী করতে পারবেন না। 

আরডি/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71