মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯
মঙ্গলবার, ৯ই মাঘ ১৪২৫
 
 
রাণীনগরে ২বিঘা জমির ধান জোর করে কেটে নিল প্রভাবশালীরা
প্রকাশ: ০৫:১০ pm ২৭-০৪-২০১৮ হালনাগাদ: ০৫:১৮ pm ২৭-০৪-২০১৮
 
নওগাঁ প্রতিনিধি:
 
 
 
 


নওগাঁর রাণীনগরে পিরপালের জমির জিম্মাদার মোঃ সাদেক আলী আকন্দের পিরপালের ২বিঘা জমির ধান জোর করে কেটে নিয়ে গেছে মাতব্বরদের নেতৃত্বে গ্রামের কিছু লোকজন। আবারও সাদেক আলী আকন্দের পরিবারকে এক ঘরে করে রাখলো গ্রামের সেই কথিত মাতব্বর ও লোকজনরা। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে। পিরপালের ওই জমি নিয়ে জিম্মাদার সাদেক আলী আকন্দের পরিবারের সঙ্গে ওই গ্রামের মাতব্বরসহ কিছু  লোকজনের বিরোধ চলে আসছে দীর্ঘদিন ধরে।

বৃহস্পতিবার উপজেলার একডালা ইউনিয়নের টং গ্রামের সাদেক আলী আকন্দের পিরপালের জমির ধান জোর করে কেটে নেয়া ও তার পরিবারকে এক ঘরে করে রাখার ঘটনাটি ঘটেছে। এমন কি সাদেক আলী আকন্দের পরিবারের লোকজনের সঙ্গে গ্রামের কেউ কথা বললে তাকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা দিতে হবে বলে ঘোষনা দিয়েছে ওই গ্রামের কতিপয় মাতব্বররা। 

জানা গেছে, সাদেক আলী আকন্দের পিতা মৃত মহরম আলী আকন্দ ওই গ্রামের পিরপালের ১একর ৯২শতংশ জমির জিম্মাদার ছিলেন। তার বাবা মারা যাওয়ার পর ছেলে সাদেক আলী আকন্দ দীর্ঘদিন যাবৎ এই জমি গুলোর দেখভাল করে আসছিলেন। পিরপালের ২বিঘা জমিতে এবার বোরো ধান লাগান জিম্মাদার সাদেক আলী আকন্দ। বৃহস্পতিবার সকালে সাদেক আলীর দিনমজুর লোকজন নিয়ে জমিতে ধান কাটতে যান। হটাৎ করে গ্রামের কতিপয় মাতব্বরদের নেতৃত্বে গ্রামের কিছু লোকজন তাদের ধান কাটায় বাধা দিয়ে জমি থেকে শ্রমিকদের তুলে দিয়ে গ্রামের মাতব্বর আবু সালেসহ কিছু মাতব্বরের নেতৃত্বে গ্রামের কালাম, বাবু, সোলেমান, আব্দুর রউফ, রুহুল আমীন, লুৎফর, রুবেল, ফজলু মোল্লা, আব্দুস সাত্তারসহ শতাধিক লোক মিলে ধান কেটে নিয়ে যায় এবং রাস্তার ওপর মাড়াই মেশিন দিয়ে মাড়াই করে। ধান কেটে নিয়ে যাওয়ার পরই আবারও সাদেক আলী আকন্দের পরিবারকে এক ঘরে করে রাখার ঘোষণা দেয় ওই লোকজন। এঘটনার পর থেকে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে ওই পরিবারটি।

সাদেক আলী জানায়, একডালা ইউনিয়নের চেয়াম্যান মোঃ রেজাউল ইসলামের মদদে টং গ্রামের বিদেশ ফেরত প্রভাবশালী নেতা মোঃ মতিউর রহমান দুলু, হবিবর রহমান, আবু সালেহ্, আব্দুর রউফ, আজাহার আলী, কালামসহ গ্রামের লোকজন ও কিছু বিএনপির নেতারা মিলে সাদেক আলী আকন্দের পরিবারকে প্রায় ৩ মাস আগে এক ঘরে করে রেখেছিল। আবার পিরপালের জায়গার জিম্মাদারকে কোন কিছু না বলেই জোরপূর্বক জমির গাছ, বাঁশ, পুকুরের মাছসহ প্রায় ২-৩ লাখ টাকার গাছ ও মাছ বিক্রি করে ওই গ্রামের কতিপয় ব্যক্তিদের নিয়ে গ্রামে গরু-খাসি জবাই করে ভোজনের আয়োজন করে। বৃহস্পতিবার সাদেক আলীদের লাগানো জমির ধান সন্ত্রাসী কায়দায় গ্রামের লোকজনদেরকে মদদ দিয়ে কেটে নিলো চেয়ারম্যান। এ বিষয়ে গ্রামের এই দু’পক্ষের মধ্যে যে কোন সময়ে একটি বড় ধরনের রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ বেধে যেতে পারে।
 
সাদেক আলী আকন্দের ছেলে হযরত আলী জানান, আমাদের রোপন করা ধান জমিতে কাটতে গেলে তারা আমার লোকজনদেরকে জোরপূর্বক উঠিয়ে দিয়ে তারা ধান কেটে রাস্তার ওপর মেশিন দিয়ে মাড়াই করে বিক্রি করেছে। শুধু তাই নয়, আমাদের পরিবারকে তারা আবারও এক ঘরে করে রাখার ঘোষনা দিয়েছে এবং গ্রামের অন্য লোকজনরা আমাদের পরিবারের সঙ্গে কথা বললে তাদের ৫হাজার টাকা জরিমানা করা হবে বলে ঘোষনা দিয়েছে গ্রামের কতিপয় মাতব্বর। এখন আমরা চরম নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছি। 

একডালা ইউপি আ’লীগের সাধারন সম্পাদক আনোয়ার হোসেন বলেন, সমস্যা যাই হোক না কেন একজনের জমির ধান আরেক জন জোর করে কেটে নিয়ে যাওয়ার অধিকার রাখে না। এটি খুবই অন্যায় কাজ। দীর্ঘদিনের এই সমস্যা সমাধান করার জন্য আমি একাধিকবার চেষ্টা করেছি কিন্তু পারিনি। 

নি এম/ বিকাশ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71