শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৩রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
রাশিয়ার হয়ে অলিম্পিক মাতাচ্ছেন রাজশাহীর রিতা
প্রকাশ: ১০:৩৭ am ২২-০৮-২০১৬ হালনাগাদ: ১০:৩৭ am ২২-০৮-২০১৬
 
 
 


রাজশাহী প্রতিনিধি: বাংলার বাঘিনী বলে কথা। তিনি নামবেন ময়দানে, আর তার অঙ্গভঙ্গি বৈচিত্রে মাতবেন না দর্শকরা সে কি হয়।

অবশ্য বাংলাদেশের হয়ে গ্রেটেস্ট শো অন অলিম্পিকে মাতানোর কথা ছিল তার। কিন্তু নানা জটিলতায় সেটি আর সম্ভব হয়নি। তবে অদম্য এই নারী ঠিকই অলিম্পিক মাতাচ্ছেন।

২০১৬ ব্রাজিল রিও অলিম্পিক জিমন্যাস্টিক্সে (রিদমিক) অংশ নিচ্ছেন রাশিয়া হয়ে রাজশাহীর দুর্গাপুরের তরুণী রিতা। শুক্রবার (১৯আগস্ট) বাংলাদেশ সময় সন্ধা সাড়ে ৭টায় ব্রাজিলের রিও অলিম্পিকে রিতার অল-অ্যারাউন্ড বাছাইয়ে অংশ নিয়ে রাজশাহীর দুর্গাপুরের কন্যা তার হিটে প্রথম হয়েছে।

নিজের চার ইভেন্টে হুপে ১৮.৮৩৩, বলে ১৯.০০০, ক্লাবে ১৭.৫০০ ও রিবনে ১৯.০৫০- একক অ্যারাউন্টে মোট ৭৪.৩৮৩ পয়েন্ট পেয়ে শীর্ষ থেকেই হিট শেষ করেছেন বিশ্বের র‌্যাংকিয়ে ১নম্বরে থাকা বাংলাদেশী বংশোভূত এই তরুণী।

পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২০বছর বয়সী এই নারীর জন্ম বাংলাদেশের রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার ক্ষিদ্র কাশিপুর গ্রামে। তবে তার মা রাশিয়ান। মূলত সে সূত্রে রাশিয়ায় বসাবস করেন।

মা ছিলেন রিদমিক জিমন্যাস্টিক, তার হাত ধরেই এই খেলায় হাতেখড়ি রিতার। পরে সেখান থেকে এ বছর প্রথমবারের মতো অলিম্পিকে অংশ নিচ্ছেন তিনি। রিতার বাবা আব্দুল্লাহ আল মামুন। তিনি মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং মাস্টার ডিগ্রিধারী।

১৯৮৩ সালে তিনি শিক্ষাবৃত্তি নিয়ে সোভিয়েত রাশিয়া যান। পরে তিনি সেখানে স্থায়ী হয়ে যান। পরে রাশিয়ার রিদমিক জিমন্যাস্টিক পেশাদার খেলোয়ার এ্যানা নামের এক নারীকে বিয়ে করেন আব্দুল্লাহ আল মামুন।

তারা এখন সহপরিবারে ওখানেই থাকেন। গত কয়েক বছর এ অঙ্গনে অনেক সুনাম কুড়িয়েছেন রিতা। এরমধ্যে জিতেছেন রাশিয়ার রিদমিক জিমন্যাস্টেরে প্রধান কোচের মনও। তাই সে কোচ রিতার নাম রেখেছে বেঙ্গল টাইগার বা বাংলার বাঘিনী।

তার  এই বিশেষ নামটি আর্šÍজাতিক জিমন্যাস্টিকস ফেডারেশনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইডেও পাওয়া যায়। এ বছর (২০১৬) একই আসরে একই ইভেন্টে চতুর্থ হয়েছেন।

এছাড়াও সোচিতে ২০১৬রাশিয়ান চ্যাম্পিয়ানশীপে তিনি রুপা পদক জিতেছেন অল-অ্যারাউন্ড ইভেন্টে। শুধু তাই নয় টানা ৬বছরের মতো রিদমিক জিমন্যাস্টিকসের দুনিয়ায় ধরে রেখেছেন আধিপত্য।


রিতার পরিবার আরো জানান, রিতা সর্বশেষ গত বছরের ১৪মে ঢাকায় এসে রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার ক্ষিদ্র কাশিপুর তার নিজ গ্রামে এসেছিলেন। তার আগে রিতা ছোটবেলায় দীর্ঘদিন পিতার সাথে দুর্গাপুরের ক্ষিদ্রকাশিপুর গ্রামে থেকে গেছেন।

এদিকে, তার গ্রাম ক্ষিদ্রকাশিপুরসহ পুরো দুর্গাপুরবাসী ব্রাজিলের রিও অলিম্পিকে অংশ নেওয়ায় রিতা বন্দনায় ভাসছে। তার এমনও সাফল্যে গর্বিত বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী।
 

এইবেলাডটকম/অরুন/পিসি 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71