শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০
শুক্রবার, ৮ই কার্তিক ১৪২৭
সর্বশেষ
 
 
লিঙ্গ জানতে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীর পেট চিড়ে ফেলল ৫ কন্যার বাবা
প্রকাশ: ১০:০০ pm ২০-০৯-২০২০ হালনাগাদ: ১০:০০ pm ২০-০৯-২০২০
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


ভারতে ভ্রূণের লিঙ্গ নির্ধারণ আইনত অপরাধ৷ ডাক্তারি পরীক্ষার মাধ্যমে জন্মের আগে লিঙ্গ নির্ধারণ এদেশে বহু বছর ধরেই বেআইনি৷ স্ত্রীর গর্ভে কে এসেছে ছেলে না মেয়ে? সোজা পথে ডাক্তারি পরীক্ষায় তা জানা সম্ভব নয় বলে লিঙ্গ নির্ধারণ করতে নৃশংস পদক্ষেপ নিলেন এক ব্যক্তি৷ গর্ভস্থ ভ্রুণের লিঙ্গ জানতে সোজা ধারালো অস্ত্র দিয়ে ফালা ফালা করে কেটে ফেললেন স্ত্রীয়ের পেট ! নৃশংস এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের নেকপুরে।অভিযুক্তের নাম পান্নালাল৷

জানা গেছে, ওই দম্পতির এর আগে পাঁচটি মেয়ে রয়েছে৷ পর পর পাঁচটিই মেয়ে হওয়ায় স্ত্রীর প্রতি ভীষণ অসন্তুষ্ট ছিলেন পান্নালাল৷ প্রায়শই তিনি স্ত্রীয়ের সঙ্গে দুর্ব্যবহার, অত্যাচার করতেন বলে জানিয়েছেন প্রতিবেশীরা৷ এমন অবস্থায় ষষ্ঠবার বউ গর্ভবতী হতেই গর্ভের সন্তানের লিঙ্গ জানতে উদগ্রীব হয়ে ওঠে সে৷

কোনও আইনি পদ্ধতিতে নিশ্চিতভাবে ভ্রুণের লিঙ্গ নির্ধারণের উপায় খুঁজে না পেয়ে শেষ পর্যন্ত নিজেই এক নৃশংস পদ্ধতি নেয়৷ শনিবার রাতের দিকে রান্নাঘরের মাংস কাটার ধারালো ছুরি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে সাত মাসের অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীয়ের উপর৷ ছুরি দিয়ে একটানে চিরে ফেলেন স্ত্রীয়ের পেট৷ যন্ত্রণায় চিৎকার করে ওঠেন অন্তঃসত্ত্বা৷ তাঁর চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে দেখেন রক্তে ভেসে যাচ্ছে গোটা ঘর আর পেট কাটা অবস্থায় যন্ত্রণায় ছটফট করছেন ওই নারী ৷ তড়িঘড়ি তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয়রা৷ খবর দেওয়া হয় পুলিশে৷ গ্রেফতার হয় অভিযুক্ত পান্নালাল৷

পুলিশ জানিয়েছে, এই মুহূর্তে পান্নালালের স্ত্রী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন৷ প্রচুর রক্তক্ষরণ হওয়ায় মা ও গর্ভের শিশু দুজনেরই অবস্থা আশঙ্কাজনক৷

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

 

E-mail: info.eibela@gmail.com

a concern of Eibela Ltd.

Request Mobile Site

Copyright © 2020 Eibela.Com
Developed by: coder71