রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮
রবিবার, ৮ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
শিক্ষিকাকে পেটানোর মামলায় প্রধান শিক্ষক কারাগারে
প্রকাশ: ১২:১১ am ০২-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০৯:১১ am ০২-০৮-২০১৭
 
ময়মসসিংহ প্রতিনিধি :
 
 
 
 


ময়মনসিংহ গৌরীপুর পৌর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফেরদৌস আলমের সাথে কালীপুর মধ্যমতরফ এলাকার আব্দুল সালাম এর দীর্ঘদিন যাবত জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে উভয়পক্ষের মধ্যে একাধিক মামলা-মোকদ্দমাও রয়েছে। গত ২৬ জুলাই (বুধবার) স্কুলের ভিতর সীমানা প্রাচীর ঘেঁষে অভিভাবক ছাউনী তৈরীর সময় আব্দুস ছালাম এসে বাঁধা দেয় ও শ্রমিকদের কাজ করতে নিষেধ করেন। 

আব্দুস ছালামের দাবী স্কুলের সীমানা প্রাচীরের ভেতর তার জমি পাওনা আছে। পুনরায় প্রধান শিক্ষকের নির্দেশে কাজ শুরু হলে বিকালে  আব্দুস ছালাম ও তার স্ত্রী পৌরসভার চকপাড়া হেলাল উদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষক নুসরাত জাহান নিপার সাথে ফেরদৌস আলমের হাতাহাতি ও সংঘর্ষ হয়। এতে নুসরাত জাহান নিপার হাতের একটি আঙ্গুল ভেঙ্গে যায়।

আহত নিপাকে ওই দিন প্রথমে গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। ফেরদৌস আলমের দাবী সেসময় তিনিও আহত হয়েছেন। 

এ ঘটনায় রবিবার (৩০ জুলাই) রাতে আব্দুস ছালাম বাদী হয়ে পৌর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক একেএম মাজহারুল আনোয়ার ফেরদৌসকে আসামী করে গৌরীপুর থানায় মামলা দায়ের করেন, মামলা নং-৩৪, তাং-৩০/০৭/১৭ইং। 

মঙ্গলবার (১ আগস্ট) ময়মনসিংহের বিজ্ঞ ৪ নং আমলী আদালতে হাজির হয়ে ফেরদৌস মাস্টার জামিনের আবেদন করলে এসময় সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বিল্লাল হোসেন জামিন আবেদন না মঞ্জুর করে তাকে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন। উক্ত মামলার আসামীপক্ষের আইনজীবি এডভোকেট জসিম উদ্দিন আহাম্মেদ সাংবাদিকদের এ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

গৌরীপুর উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার জুয়েল আশরাফ বলেন, ঘটনার সময় আমরা সবাই বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ ফুটবল ফাইনাল খেলার জন্য স্টেডিয়ামে ছিলাম। সকল শিক্ষকদের প্রতি নির্দেশ ছিলো খেলার মাঠে উপস্থিত থাকার। ফেরদৌস আলম ও নুসরাত জাহান নিপা মাঠে না গিয়ে পৌর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে তারা সংর্ঘষে জড়িয়েছেন। অফিসিয়ালি কেউ কোন লিখিত অভিযোগ না করে তারা আইনের আশ্রয় বা থানায় মামলা করায় বিভাগীয় তদন্তের সুযোগ নেই। তবে ফেরদৌস আলম শিক্ষা অফিসকে অবহিত করেই স্লীপের টাকায় স্কুলে অভিভাবক ছাউনী নির্মাণ করেছেন। 

সরকারি স্কুলের সীমানা প্রাচীরের সমস্যায় তারা ব্যাক্তিগত দ্বন্ধে জড়ানো ঠিক হয়নি। এক্ষেত্রে দু’জনেই সরকারি চাকরীর বিধিমালা ভঙ্গ করেছেন। গৌরীপুর পৌর মডেল একটি ঐতিহ্যবাহী স্কুল, এ প্রতিষ্ঠানটি রক্ষার দায়িত্ব সরকারের পাশাপাশি সকল শিক্ষক, অভিভাবক ও এলাকার মানুষের। এ নিয়ে সংঘাত কোন অবস্থাতেই কাম্য নয়।

এসএম

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71