বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮
বুধবার, ১১ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
সংখ্যালঘুদের বাড়ি কারা পোড়ায়, কেন পোড়ায়?
প্রকাশ: ১০:১৯ am ১৯-১১-২০১৭ হালনাগাদ: ১০:১৯ am ১৯-১১-২০১৭
 
সোহরাব হাসান
 
 
 
 


গত ২৩-২৪ অক্টোবর ত্রিপুরা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক নিয়ে যে সেমিনারের আয়োজন করে, একজন আমন্ত্রিত হিসেবে সেখানে যাওয়ার সুযোগ হয়েছিল। এই সেমিনারের ব্যতিক্রমী বৈশিষ্ট্য ছিল ছয়জন গবেষকের বাংলাদেশ সম্পর্কিত গবেষণার সারসংক্ষেপ উপস্থাপন এবং তাঁর ওপর আলোচনা। এসব গবেষণায় ব্যবসা-বাণিজ্য, সীমান্ত-যোগাযোগ ইত্যাদির পাশাপাশি জায়গা পেয়েছিল বাংলাদেশের মাটি–মানুষ, ইতিহাস-ঐতিহ্য ও একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ। পুরোনো প্রজন্মের অনেকের মনে থাকার কথা, ১৯৭১ সালে আগরতলায় যে লোকসংখ্যা ছিল, তার দ্বিগুণ মানুষ গিয়েছিল বাংলাদেশ থেকে।

আগরতলার বাঙালিরা ভীষণ বাংলাদেশপ্রেমী, কলকাতার ‘বাবুদের’ মতো নাকউঁচু ভাব দেখান না। কবি রাতুল দেব বর্মণ লিখেছেন, ‘বাংলাদেশে মেঘ হলে আগরতলায় বৃষ্টি পড়ে/ বাংলাদেশ দুঃখ পেলে আগরতলায় অশ্রু ঝরে।’ আগরতলার বাঙালিদের অনেকের পৈতৃক বাড়ি ছিল বাংলাদেশে। সাতচল্লিশের দেশভাগের ঝড় তাঁদের ওখানে নিয়ে গেছে। আবার ওখান থেকেও অনেকে বাংলাদেশে এসেছেন। দুই দেশের মানুষই দেশভাগের ক্ষত বয়ে বেড়াচ্ছে। তবে সংখ্যালঘুদের যন্ত্রণাটা বেশি।

আগরতলার কাছেই ওস্তাদ আলাউদ্দিন খাঁর জন্মভূমি ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং শচীন দেববর্মণের স্মৃতিধন্য কুমিল্লা। ঢাকার খবর না রাখলেও আগরতলার লেখক-বুদ্ধিজীবী-শিল্পীরা কুমিল্লা ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার খোঁজখবর রাখেন। সরকারি উদ্যোগে শচীন দেববর্মণের বাড়ি সংস্কারের সংবাদ যেমন তাঁদের আনন্দ দেয়, তেমনি আলাউদ্দিন খাঁ জাদুঘরে মৌলবাদীদের হামলা কিংবা নাসিরনগরের সংখ্যালঘুদের বাড়িঘরে আক্রমণ তাঁদের ব্যথিত করে। এক সাংবাদিক বন্ধু জিজ্ঞাসা করলেন, আওয়ামী লীগের আমলেও কেন সংখ্যালঘুদের বাড়িঘরে হামলা হচ্ছে? এই প্রশ্ন করার অধিকার তাঁদের আছে। সে বিষয়ে পরে আসছি। কৈফিয়তের সুরে বললাম, সরকার নাসিরনগরের হামলাকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে; ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর তৈরি করে দিয়েছে। ভবিষ্যতে যাতে এ ধরনের অঘটন না ঘটে সে বিষয়ে সরকার সজাগ আছে। এর তিন সপ্তাহ না যেতেই বাংলাদেশে আরেকটি সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘটল।

১০ নভেম্বর রংপুরের গঙ্গাচড়ার ঠাকুরপাড়া গ্রামে কয়েকটি সংখ্যালঘু বাড়িঘর পুড়িয়ে দিয়েছে সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের একদল লোক। এলাকাবাসীর অভিযোগ, হিন্দু পরিবারে আগুন দেওয়ার কয়েক দিন আগে থেকেই সেখানে সভা হয়েছে, মাইকিং হয়েছে। টিটু রায় নামে যে ব্যক্তির বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ ছিল, ৫ নভেম্বর তাঁর নামে থানায় মামলাও হয়েছিল। তাহলে পুলিশ বা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা কী করেছেন? পুলিশ আগেভাগে ব্যবস্থা নিলে হয়তো সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর রক্ষা করা যেত।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ শতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে, যাঁদের মধ্যে স্থানীয় বিএনপি–জামায়াতের নেতা-কর্মীরা রয়েছেন। আমরা চাই হামলাকারীরা ধরা পড়ুক, শাস্তি পাক। কিন্তু রাজনৈতিক বিবেচনায় কাউকে ধরলে, কাউকে ছাড় দিলে পুরো মামলাটিই কেঁচে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। নাসিরনগরের জেলেপল্লিতে হামলার ঘটনা ঘটে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বের কোন্দলের জের ধরে। পরে বিএনপির এক নেতাকে ফাঁসাতে গিয়ে মামলাটি গতি হারিয়েছে। যদিও মূল অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতা দেওয়ান আতিকুর রহমান জেলে আছেন।

টিটু রায় নামে যে যুবকের মোবাইল নম্বর থেকে ধর্মের প্রতি অবমাননাকর স্ট্যাটাস দেওয়া হয়েছিল, তিনি এখন পুলিশের জিম্মায়। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, পরীক্ষা করে দেখা হবে তিনিই স্ট্যাটাস দিয়েছেন, না তাঁর মোবাইল থেকে অন্য কেউ দিয়েছেন। এর আগে পত্রিকায় দেখেছিলাম টিটু রায় নিরক্ষর। সে ক্ষেত্রে তাঁর পক্ষে স্ট্যাটাস দেওয়া সম্ভব নয়। তারপরও বলব, টিটু ধর্ম অবমাননাকর কিছু করলে প্রচলিত আইনে বিচার হবে।

কিন্তু তাঁর মা-বাবা তো কোনো অপরাধ করেননি। তাঁদের ও প্রতিবেশীদের বাড়িঘর কেন পোড়ানো হলো? আমরা আশা করব, পুলিশ সত্য বের করবে। আটক ব্যক্তিকে মারধর করে জজ মিয়ার মতো স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নেবে না।

গত বছর নভেম্বরে একই অভিযোগে নাসিরনগরে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর যে তাণ্ডব হয়েছে, তাদের ঘরবাড়ি ও মন্দিরে হামলা হয়েছে, তার ক্ষত এখনো শুকায়নি। সেই ঘটনার খলনায়ক করা হয়েছিল রসরাজ দাস নামে এক নিরক্ষর তরুণকে। বিভিন্ন গণমাধ্যমে, তদন্তকারী কর্মকর্তা ও মানবাধিকার সংস্থার তদন্তে বেরিয়ে এসেছে জেলা আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের কোন্দলের জের ধরেই সংখ্যালঘুদের বাড়িঘরে হামলা হয়েছে। সেই ঘটনায় আটটি মামলা হলেও কোনোটির অভিযোগপত্র দেওয়া হয়নি।

এর আগে কক্সবাজারের রামু ও আরও কয়েকটি জায়গায় একই ঘটনা ঘটেছে। সেখানে উত্তম বড়ুয়া নামে এক যুবকের নামে ভুয়া ফেসবুক স্ট্যাটাস দিয়ে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের ঘরবাড়ি ও উপাসনালয় ভাঙচুর করা হয়েছিল, পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। স্থানীয় বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতে ইসলামীর নেতা-কর্মীদের সঙ্গে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরাও সেই ‘অভিযানে’ যোগ দিয়েছিলেন। কিন্তু মামলার চার্জশিটে আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের বাদ দেওয়া হয়েছে। এখন মামলার শুনানির জন্য সাক্ষীও পাওয়া যাচ্ছে না। ভারতের গুজরাটের দাঙ্গার মামলায় যদি সাক্ষী পাওয়া যায়, অপরাধীর বিচার হয়, বাংলাদেশে কেন হবে না?

রামুর ঘটনা ঘটেছে পাঁচ বছর আগে। যাঁর ফেসবুক স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে লঙ্কাকাণ্ড ঘটে গেছে, সেই উত্তম বড়ুয়া কোথায় আছেন কেউ জানেন না। রামুর ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপে দ্রুত ভেঙে যাওয়া বাড়ি ও মন্দিরগুলো নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের যে মন ভেঙেছে, সেটি কে নির্মাণ করে দেবে?

রামুর পর নাসিরনগর। নাসিরনগরের পর গোবিন্দগঞ্জ। গোবিন্দগঞ্জে যাঁদের ওপর হামলা হয়েছে, তাঁরা সংখ্যালঘুও নন; একেবারে প্রান্তিক মানুষ। বেঁচে থাকাই তাঁদের ধর্ম। আমরা ভিডিও ফুটেজে দেখলাম পুলিশ সদস্যরা তাঁদের বাড়িঘরে আগুন দিচ্ছেন। আইনের মানুষ কীভাবে আইন ভঙ্গ করেন?

ওই পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র কী কোনো ব্যবস্থা নিয়েছে? এক বছর পরও গোবিন্দগঞ্জের দরিদ্র ও নিঃস্ব সাঁওতালেরা সেই পুড়ে যাওয়া, ভেঙে যাওয়া বাড়িঘরেই বাস করছে। বাংলাদেশ রাষ্ট্র কিংবা সমাজের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশ তাদের দিকে সহানুভূতির হাত বাড়ায়নি।

অনেকে বলেন, বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ। ধর্মনির্বিশেষে সব মানুষ সুখে-শান্তিতে বসবাস করছে। সেটাই যদি হবে তাহলে কিছুদিন পরপর সংখ্যালঘুদের বাড়িঘরে আক্রমণের ঘটনা ঘটছে কেন? তাদের বাড়িঘরে কারা আগুন দেয়, কেন দেয় বুঝতে অসুবিধা হয় না। একজন সংখ্যালঘু বাড়ি ছাড়লে সংখ্যাগুরু সম্প্রদায়ের মানুষ সেটি সহজে দখল করে নিতে পারে।

পাকিস্তান ছিল ঘোষিত সাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র। সেই পাকিস্তানকে নাকচ করেই হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান—সবার সম্মিলিত প্রয়াসে আমরা বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করলাম। এখনো কেন সংখ্যালঘুরা আক্রান্ত হবেন? আগরতলার বন্ধুরা জানালেন, দেশভাগের পর গত ৭০ বছরে ত্রিপুরায় কখনো সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়নি। বাঙালি ও উপজাতিদের মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়েছে। কিন্তু বাঙালি হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টানদের মধ্যে কোনো ঝগড়া হয়নি। আমরা কেন সে রকম একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে পারলাম না?

আমরা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অনেক সমালোচনা করতে পারি। তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে তিনি যে কাণ্ড করেছেন, তা অমানবিক ও আন্তর্জাতিক আইনের লঙ্ঘন। কিন্তু সেখানকার সংখ্যালঘু মুসলমানদের মমতা যে ছায়া দিয়ে রেখেছেন, তাদের বিপদে-আপদে পাশে দাঁড়িয়েছেন, তা অস্বীকার করার উপায় নেই। সেখানকার সংখ্যালঘুরা জানাচ্ছেন, বামফ্রন্টের আমলের চেয়েও তারা ভালো আছেন।

একটি দেশ তখনই বড় হয় যখন ধর্মবর্ণ–নির্বিশেষে সব মানুষকে সমানভাবে দেখতে পারে। একজন নেতা তখনই বড় হন, যখন তাঁর ওপর সব ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষ আস্থা রাখতে পারে। আওয়ামী লীগ নেতারা বলেন, বিএনপি সাম্প্রদায়িক শক্তির সঙ্গে আঁতাত করেছে, বিএনপি তাদের তোয়াজ করে চলে। আওয়ামী লীগের তোয়াজ করার প্রয়োজন নেই। অসাম্প্রদায়িক মানুষের ওপরই নাকি তারা ভরসা রাখেন। কিন্তু বাস্তবে দেখা যাচ্ছে, সাম্প্রদায়িক শক্তির কোনো কোনো অংশকে তোয়াজ করে চলছে দলটি। আর সংখ্যালঘুদের ভরসার জায়গা ক্রমেই সংকুচিত হচ্ছে। একসময় বামপন্থীরা সংখ্যালঘুদের আশ্রয়স্থল ছিল। এখন সেই বামেরাই অন্যের ঘরে আশ্রিত হয়ে আছেন (সবাই নয়, কেউ কেউ)। বিগত নির্বাচনে সংখ্যালঘুরা আওয়ামী লীগকে শেষ আশ্রয় হিসেবে নিয়েছিল। কিন্তু রামু, নাসিরনগর কিংবা গঙ্গাচড়ার ঘটনা তাদের আরও নিরাশ্রয় করে তোলে।

সরকারের দাবি, সাম্প্রদায়িক অপশক্তি এসব অঘটন ঘটাচ্ছে। কিন্তু সেই অপশক্তির বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা তারা নিয়েছে বা নিচ্ছে? বিএনপি-জামায়াত আমলে যে শত শত সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে বলে আওয়ামী লীগ প্রচার করছে, গত নয় বছরে তারই বা কয়টির বিচার হয়েছে? কতজন শাস্তি পেয়েছে?

ধর্মীয় অবমাননার কথিত অভিযোগে রংপুরে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা ও বাড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার ঘটনার পেছনে গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে বলে মনে করেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। সরকারের কাজ তো ষড়যন্ত্রকারীদের মুখোশ উন্মোচন ও অপরাধীদের শাস্তি দেওয়া। শুধু মুখের কথায় তো সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে নিবৃত্ত করা যাবে না।

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক তুহিন ওয়াদুদ ঘটনাস্থল ঘুরে এসে লিখেছেন, আশপাশের এলাকা থেকে যেসব লোকজন আক্রান্তদের বাড়িঘর দেখতে এসেছেন, তাদের মধ্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনই বেশি। বাংলাদেশের সংখ্যাগুরু সম্প্রদায় কি এতটাই সংকীর্ণমনা? আক্রান্ত প্রতিবেশীকেও দেখতে যাবে না? দেশের নাগরিক হিসেবে নিজেকে অপরাধী মনে হয়।

অতীতকে আমরা ফিরিয়ে আনতে পারব না। কিন্তু বর্তমানকে বদলাতে পারি। ভবিষ্যৎ নতুন করে তৈরি করতে পারি। আসুন, আগরতলার বন্ধুদের আমরা এই বলে আশ্বস্ত করি, আগামী পাঁচ, দশ, পঞ্চাশ বছরে বাংলাদেশে কোনো সংখ্যালঘু আক্রান্ত হবে না। কোনো সংখ্যালঘুর বাড়িতে কেউ হামলা করবে না, আগুন দেবে না। সেটাই হবে মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের প্রতি শ্রেষ্ঠ সম্মান প্রদর্শন এবং গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার উত্তম পথ।

সোহরাব হাসান: কবি, সাংবাদিক।

sohrabhassan55@gmail.com

 

প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71