রবিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
রবিবার, ১২ই ফাল্গুন ১৪২৫
সর্বশেষ
 
 
সংখ্যালঘু শিক্ষক নির্যাতনের প্রতিবাদ জানালেন সুইডেন ছাত্রলীগ নেতা তানজিল
প্রকাশ: ০১:২৮ am ১৬-০৫-২০১৬ হালনাগাদ: ০১:৩৬ am ১৬-০৫-২০১৬
 
 
 


তানজিল ইসলাম : আমাদের দেশের স্থানীয় জনতা বা উত্তেজিত জনতাদের আচরণ খুব অদ্ভুত। এরা কেউ ধর্ষিত হলে ধর্ষকের সাথে ধর্ষিতাকেও পেটায় ! মসজিদে কোনো হুজুরের মাইকে ঘোষণা পেয়ে সত্য মিথ্যা যাচাই না করেই মানুষের বাড়িতে আগুন দেয় ! রাস্তায় কঙ্কালসার চোর অথবা ছিনতাইকারীকে পিটিয়ে মেরে ফেলে! গতরাতে যে পতিতার শরীর কিনেছে, পরদিন সবার সামনেই পতিতাবৃত্তির অভিযোগে গাছে বেধে পেটায় ! অদ্ভুত এই উত্তেজিত জনতার সর্বশেষ সংযোজন একজন স্কুলশিক্ষককে মারধর ও কানে ধরে উঠবস করানো। তাঁর অপরাধ তিনি ধর্ম নিয়ে কটুক্তি করেছেন।

খবর ঘাটতে গিয়ে থলের বেড়াল বেড়িয়ে এসে বলল, ব্যপারটা ধর্ম নিয়ে কটুক্তি নয় বরং স্কুল পরিচালনা কমিটি নিয়ে বিরোধিতার জের ! অভিযোগ এসেছে স্থানীয় এমপি মহোদয় এই 'উত্তেজিত জনতা' শান্ত করার জন্য বাধ্য হয়ে শিক্ষককে কানে ধরে উঠবস করিয়েছেন। রাজনীতি করার সুবাদে জানি এমন কোনো নেতা নেই যার কথা 'উত্তেজিত জনতা' শোনে না। এইটুকু ক্ষমতা যদি থেকেই থাকে তবে কেনো মানুষ গড়ার এই কারিগরকে এতো বড় অসম্মান !

যে জনতা মাননীয় শিক্ষককে মারধর করেছে, তাদের ছেলেমেয়েরা ঐ শিক্ষকেরই ছাত্রছাত্রী। আমার খুব দেখতে ইচ্ছা করছে, তারা বাড়িতে গিয়ে নিজেদের ছেলেমেয়ের চোখে চোখ রাখতে পারবে তো ?

ধর্ম নিয়ে অসম্মান করেছেন একজন শিক্ষক, এই খবরে নিজেদের ধার্মিক প্রমাণ করা বীর পুরুষদের কয়জন ৫ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন ? যদি নামাজ নাই পড়েন তবে আপনি ধর্মীয় নির্দেশ অমান্য করছেন। এই অমান্যটা কি অবমাননার পর্যায়ে পড়ে না ? একটি সহিহ হাদিস উল্লেখ করছি নিচে- রাসুলাল্লাহ (সা:) বলেছেন- "সাবধান, যে মুসলিম অন্য ধর্মাবলম্বীদের অধিকার কেড়ে নেয় অথবা তাকে সীমাহীন কষ্ট দেয় অথবা তার কোনো বস্তু অনুমতি ব্যতিত নেয় তবে আমি হাশরের ময়দানে সে মুসলিমের বিরুদ্ধে দাড়াবো।" আবু-দাউদ, ৩০৫২ নং হাদিস। আপনি যখন সংখ্যালঘুর অজুহাতে আরেকজনকে আঘাত করছেন তখন নবীজির আদেশ অমান্য করছেন না ? এজন্য আপনাকে কি শাস্তি দেয়া যায় বলুনতো !

লেখক পরিচিত: সাধারণ সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, সুইডেন শাখা

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71