শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮
শনিবার, ৩রা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
সাংবাদিক জাহানকে হত্যা চেষ্টা : গ্রেফতার হয়নি আসামী
প্রকাশ: ০৭:৪১ pm ২৮-০৭-২০১৭ হালনাগাদ: ০৭:৪১ pm ২৮-০৭-২০১৭
 
সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
 
 
 
 


বাঘাবাড়ি ওয়েল ডিপোর ভিতরে ট্যাংকলরী থেকে তেল চুরির ছবি তোলায় দৈনিক যুগান্তর ও বিজয় টিভির শাহজাদপুর উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ মুমীদুজ্জামান জাহানের উপর হামলা চালিয়ে বেধরক মারপিট ও হত্যা চেষ্টার ঘটনায় দায়ের করা মামলার আসামীরা গত ৫ দিনেও গ্রেফতার হয়নি।

বিপিসির বাঘাবাড়ি ওয়েল ডিপোর সিসি ক্যামেরার ফুটেজও এখনও পুলিশ উদ্ধার করেনি। ফলে ফুটেজ নষ্ট করে ফেলার আশংকা করছে স্থানীয় সাংবাদিকরা। এ মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই মোতালেব বলেন, আসামীদের কাউকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া সিসি ক্যামেরার ফুটেজ চাইলেও তারা দিবে না। তারপরেও চেষ্টা করে দেখব। 

রোববার রাতে বাঘাবাড়ি ওয়েল ডিপোর ভিতরে ট্যাংকলরী থেকে তেল চুরির ছবি তোলায় দৈনিক যুগান্তর ও বিজয় টিভির শাহজাদপুর উপজেলা প্রতিনিধি মোঃ মুমীদুজ্জামান জাহানের উপর হামলা চালিয়ে বেধরক মারপিট ও হত্যা চেষ্টার ঘটনায় শাহজাদপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নং ২০, তাং২৩/৭/২০১৭ ইং। সাংবাদিক মোঃ মুমীদুজ্জামান জাহান নিজেই বাদী হয়ে ১২ জনের নাম উল্লেখ সহ আরো অজ্ঞাত ১০/১২ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। আসামীরা সবাই সাংবাদিক জাহানের উপর হামলা চালিয়ে হত্যা চেষ্টা ও ট্যাংকলরী থেকে তেল চুরির সাথে জড়িত। 

প্রসঙ্গত ১৬ জুলাই রোববার দুপুরে বাঘাবাড়ি ওয়েল ডিপোর গেটের ভিতরে ট্যাংকলরী থেকে তেল চুরির ছবি তোলায় যমুনা ওয়েল কোম্পানির অফিস কক্ষে ঢুকে সংঘবদ্ধ তেল চোর চক্রের সন্ত্রাসীরা বেধরক মারপিট করে মুমীদুজ্জামান জাহানকে হত্যার চেষ্টা করে।
তিনি ওই দিন বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের ফার্ণেস ওয়েল ঘাট দিয়ে ওটি তটিনি নামের একটি তেলবাহী জাহাজ থেকে ছয় লাখ লিটার অবৈধ ডিজেল চুরি করে কালোবাজারে বিক্রি করার ব্যাপারে ফলোআপ নিউজ করার জন্য সেখানে যান।

বাঘাবাড়ি ওয়েল ডিপোর সিকিউরিটিদের সামনেই ডিপো গেটের ভিতরে ট্যাংকলরী থেকে তেল চুরি করতে দেখে তিনি এর ছবি তোলেন। ছবি তোলার কারণে এ দিন দুপুরে ওই সংঘবদ্ধ তেল চোররা বেআইনি ভাবে তার উপর হামলা চালিয়ে তাকে বেধরক পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। এ হামলায় তার বাম চোখ গুরুতর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। 

জানা যায়, গত ৭ জুলাই সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার বাঘাবাড়ি নৌবন্দরের ফার্ণেস ওয়েল আনলোড ঘাটে ওটি-তটিনি নামের একটি জাহাজ চোরাই ও অবৈধ ৬ লাখ লিটার ডিজেল তেল নিয়ে আসে। এরপর ৮ জুলাই সকাল থেকে ১২ জুলাই রাত ১০ টা পর্যন্ত এ তেল পলিথিনের পাইপের সাহায্যে ট্যাংকলরীতে লোড দিয়ে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে পাচার করে কালোবাজারে বিক্রি করে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ও তোলপাড় সৃষ্টি হয়। 

প্রতি লিটার ডিজেল ৬২ টাকা ৮১ পয়সা হিসাবে এর বাজার মূল্য ৩ কোটি ৭৬ লাখ ৮৬ হাজার টাকা বলে জানা যায়। ১৫ জুলাই শনিবার দৈনিক যুগান্তরে এ সংক্রান্ত একটি সংবাদ প্রকাশ হয়। ওই সংবাদের ফলোআপ করতে গিয়ে তিনি ট্যাংকলরী থেকে তেল চুরির ছবি তোলায় এ হামলার শিকার হন।

সি এ / এস এম

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71