বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১
বৃহঃস্পতিবার, ১৩ই কার্তিক ১৪২৮
সর্বশেষ
 
 
সাতক্ষীরা ও গোপালগঞ্জে যাবেন নরেন্দ্র মোদি
প্রকাশ: ০১:৩৮ am ১৩-০৩-২০২১ হালনাগাদ: ০১:৩৮ am ১৩-০৩-২০২১
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠান উপলক্ষে আগামী ২৬ মার্চ ঢাকা আসবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ঢাকায় জাতীয় প্যারেড গ্রাউন্ডে অনুষ্ঠান ও দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদি তাঁর সফরে গোপালগঞ্জ ও সাতক্ষীরা যাবেন। ঢাকার বাইরের দুই জেলায় নরেন্দ্র মোদির এই সফর নিয়ে তৈরি হয়েছে বিপুল আগ্রহ।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সফরের দ্বিতীয় দিন ২৭ মার্চ নরেন্দ্র মোদির সাতক্ষীরার যশোরেশ্বরী মন্দির, গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ এবং কাশিয়ানীর ওড়াকান্দিতে মতুয়া সম্প্রদায়ের একটি মন্দিরে যাওয়ার কথা রয়েছে। প্রাথমিকভাবে বরিশাল যাওয়ার কথা থাকলেও তা শেষ মুহূর্তে বাদ দেওয়া হয়েছে।

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির গোপালগঞ্জ সফরকে কেন্দ্র করে স্থানীয়দের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা সৃষ্টি হয়েছে। চলছে ধোয়ামোছাসহ পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার কাজসহ নানা প্রস্তুতি। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরকে সামনে রেখে ৯ মার্চ ভারতীয় দূতাবাসের কর্মকর্তারা ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শন করেছেন। এর পরপর পুলিশের ঢাকা বিভাগের ডিআইজি হাবিবুর রহমান ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়ি পরিদর্শন করেন। মূলত ওড়াকান্দি হলো মতুয়া মতবাদের প্রবক্তা হরিচাঁদ ঠাকুরের জন্মস্থান। আর মতুয়া অনুসারীদের প্রধান তীর্থস্থান হলো ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়ির হরি মন্দির। মতুয়া অনুসারী ডা. অসীতবরণ রায় বলেন, শ্রীশ্রী হরিচাঁদ ঠাকুর ছিলেন নিপীড়িত ও অবহেলিত মানুষের মুক্তির কান্ডারি। তিনি তাঁর আধ্যাত্মিক সাধনার পাশাপাশি সুবিধাবঞ্চিত অনগ্রসর হিন্দু সমাজকে শিক্ষাদীক্ষায় পূর্ণতা দিয়ে আলোকিত করেন। ’৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধকালীন ভারত আমাদের আশ্রয় দিয়েছে। আমরা এ জন্য ভারতের কাছে চিরকৃতজ্ঞ। এবার নরেন্দ্র মোদির সফরের মধ্য দিয়ে আমাদের দুই দেশের সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে।  বাংলাদেশ মতুয়া মহামিশনের সংঘাতিপতি মতুয়াচার্য পদ্মনাভ ঠাকুর জানান, আমরা জেনেছি নরেন্দ্র মোদি ঠাকুরবাড়ির হরিমন্দিরে পূজা দেবেন। এ ছাড়া তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করবেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে ওড়াকান্দি ঠাকুরবাড়ি প্রস্তুত বলেও তিনি জানান। ঠাকুর পরিবারের সদস্য ও গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলা চেয়ারম্যান সুব্রত ঠাকুর বলেন, নরেন্দ্র মোদির ওড়াকান্দি সফরকে কেন্দ্র করে মতুয়া মতাবলম্বীদের মধ্যে জাগরণের সৃষ্টি হয়েছে।  ওড়াকান্দি হরিমন্দিরের সেবায়েত হরি গোসাই বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে আমি পূজা করতে সহযোগিতা করব। আশা করি হরিচাঁদ ঠাকুর মোদির মনের আশা পূর্ণ করবেন। পরে মতুয়া সম্প্রদায় ও বিশ্বের সব মানুষের কল্যাণ কামনায় প্রার্থনা করা হবে। টুঙ্গিপাড়া পৌর মেয়র শেখ তোজাম্মেল হক টুটুল বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাবেন ও কাশিয়ানীর শ্রীধাম ওড়াকান্দি পরিদর্শন করবেন। এ বিষয়ে পৌরসভার পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। গোপালগঞ্জের জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যে বিভিন্ন বিভাগ ও রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গকে নিয়ে কয়েকটি সভা করা হয়েছে। প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আগমনের প্রাথমিক সংবাদকে কেন্দ্র করে সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছে। তিনি আরও জানান, রাষ্ট্রীয় সফরকালে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে সব ধরনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গোপালগঞ্জের পুলিশ সুপার আয়েশা সিদ্দিকা বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমন উপলক্ষে আমরা সব ধরনের নিরাপত্তার ব্যবস্থা নিচ্ছি।

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি জানান, ২৭ মার্চ সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে সাতক্ষীরার সুন্দরবন ঘেঁষা শ্যামনগরের ঈশ্বরীপুরে অবস্থিত যশোরেশ্বরী দেবীমন্দির পরিদর্শন করবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী। সেখানে ২০ মিনিট অবস্থান শেষে একই দিন ১০টা ১০ মিনিটে হেলিকপ্টারে প্রস্থান করবেন গোপালগঞ্জের উদ্দেশে। হিন্দু সম্প্রদায়ের ৫১ শক্তিপীঠের মধ্যে শ্যামনগর উপজেলার যশোরেশ্বরী কালীমন্দির একটি শক্তিপীঠ। শক্তিপীঠের ৫১ খন্ডের একখ- দেখতে সাতক্ষীরা উপকূলের এই মন্দিরে আসছেন নরেন্দ্র মোদি। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনে সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর ইউনিয়নের যশোরেশ্বরী কালীমন্দির এবং সংলগ্ন এলাকায় শুরু হয়েছে উৎসবের আমেজ। চারদিকে সাজসাজ রব চলছে। নেওয়া হয়েছে তিন স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা। তিনি ঈশ্বরীপুর যশোরেশ্বরী কালিমন্দির পরিদর্শন ও পূজা-অর্চনায় অংশ নেবেন। নরেন্দ্র মোদির আগমন উপলক্ষে ঈশ্বরীপুর এ সোবহান মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে দুটি এবং পার্শ্ববর্তী স্থানে এশটি হেলিপ্যাড প্রস্তুত করা হচ্ছে। তাঁর আগমন উপলক্ষে মন্দির সংস্কারের কাজ চলছে পুরোদমে। মন্দির সংলগ্ন ঐতিহ্যবাহী ঈশ্বরীপুর বাজার মাঠে চলছে পাকাকরণের কাজ। ভারতের প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে ইতিমধ্যে একাধিকবার ভারত ও বাংলাদেশের পৃথক নিরাপত্তা টিম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। জেলা প্রশাসন, জেলা পুলিশ, উপজেলা প্রশাসন, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধি পরিদর্শন করছেন প্রতিনিয়ত। এলজিইডির তত্ত্বাবধানে এলাকার বিভিন্ন স্থানে সংস্কারের কাজ চলছে। মোদির আগমনে পল্লী বিদ্যুতের একটি ইউনিট উচ্চশক্তির ট্রান্সমিটার লাগানোর কাজ করছে। ওইদিন নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎসেবা দিতে তাদের কার্যক্রম থেমে নেই। শ্যামনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আ ন ম আবুজর গিফারী বলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির শ্যামনগরে আগমন উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী চলছে সব ধরনের প্রস্তুতি। তাঁর আগমন উপলক্ষে যশোরেশ্বরী মন্দিরে সংস্কার কাজ চলছে। আমরা প্রতিনিয়ত স্থানটি প্রস্তুতে পরিদর্শন করছি। শ্যামনগর উপজেলা মতুয়া সম্প্রদায়ের সভাপতি ও নকিপুর পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কৃষ্ণান্দ মুখার্জি জানান, নরেন্দ্র মোদির আগমনে মতুয়া সম্প্রদায়ের মধ্যে আনন্দের বন্যা বইছে। যশোরেশ্বরী কালীমন্দিরের পুরোহিত দিলীপ মুখার্জি জানান, এ মন্দিরে প্রতিবছর শ্যামা কালীপূজা অনুষ্ঠিত হয়। এ ছাড়া প্রতি শনি ও মঙ্গলবার পূজা-অর্চনা হয়ে থাকে। এসব পূজা-অর্চনায় শত শত ভক্তের সমাগম ঘটে। বরিশাল থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বরিশাল সফর অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। মার্চের মাঝামাঝি সময়ে বাংলাদেশ সফরে এলে তিনি সনাতন ধমাবলম্বীদের তীর্থ স্থান হিসেবে পরিচিত বরিশালের উজিরপুর উপজেলার ‘সুনন্দা শক্তিপীঠ মন্দির’ (শ্রীশ্রী উগ্রতারা মন্দির) পরিদর্শন করতে পারেন বলে আভাস দিয়েছিল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের ভারতীয় হাইকমিশনের কর্মকর্তাসহ ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর দুটি দল গত ২৬ ফেব্রুয়ারি বরিশাল এসে সম্ভাব্য সফরের নানা বিষয় প্রত্যক্ষ করে যায়। বরিশাল এলে তিনি সড়কপথে আসবেন না কি আকাশপথে আসবেন, এলে তাঁর আবাসন, চিকিৎসা এবং নিরাপত্তাব্যবস্থা সব কিছু পরখ করেন তারা। সেদিন থেকে মন্দিরটি পাহারা দিচ্ছে স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তবে সফরের দিন যত ঘনিয়ে আসছে, সে অনুযায়ী দৃশ্যমান কোনো প্রস্তুতি নেই স্থানীয় প্রশাসনের। স্থানীয় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারাও নরেন্দ্র মোদির বরিশাল সফরের বিষয়ে তেমন একটা ওয়াকিবহাল নয়। উজিরপুর থানার ওসি মাইনুল ইসলাম জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী উজিরপুরের ‘সুনন্দা শক্তিপীঠ মন্দির’ (শ্রীশ্রী উগ্রতারা মন্দির) পরিদর্শনে আসতে পারেন খবরের পরিপ্রেক্ষিতে ওই মন্দিরে সার্বক্ষণিক পুলিশ পাহারা বসানো হয়েছে। কিন্তু তাঁর উজিরপুর সফরের কোনো আপডেট তথ্য নেই তাদের কাছে। নেই কোনো দৃশ্যমান প্রস্তুতিও। এ কারণে ভারতের প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ সফরে এলেও উজিরপুরের শ্রীশ্রী উগ্রতারা মন্দিরে নাও আসতে পারেন বলে ধারণা করছেন তিনি।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 

 

E-mail: info.eibela@gmail.com

a concern of Eibela Ltd.

Request Mobile Site

Copyright © 2021 Eibela.Com
Developed by: coder71