মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯
মঙ্গলবার, ১০ই বৈশাখ ১৪২৬
সর্বশেষ
 
 
সুইসে প্রবাসী বাংলাদেশীদের এমআরপি পাসপোর্ট প্রদানে নিবন্ধন শুরু
প্রকাশ: ১১:০৮ pm ০৯-০৮-২০১৫ হালনাগাদ: ১১:০৮ pm ০৯-০৮-২০১৫
 
 
 


প্রবাস ডেস্ক: সুইজারল্যান্ডে স্থায়ীভাবে বসবাসকারী বাংলাদেশীদের সংখ্যা অন্যান্য দেশের মত উল্লেখযোগ্য নয়। বিভিন্ন ক্যান্টন (শহরে) সর্বাধিক দুই হাজার প্রবাসী বাংলাদেশী পরিবার পরিজন নিয়ে বসবাস করেন। প্রায় সকলেরই বৈধ ট্রাভেল ডকুমেন্ট বাংলাদেশী পাসপোর্ট এর নবায়নের শেষ দিন ছিল ২৪ শে নভেম্বর ২০১৫ ইং। সরকার এ বছরের ২৪ শে নভেম্বর পর্যন্ত পাসপোর্ট  নবায়নের শেষ দিন বেধে দিয়েছিল। প্রায় এক বছর পূর্ব থেকে নির্ধারিত সময়ের পর থেকে এমআরপি পাসপোর্ট না পেলে কোন প্রবাসী নিজ দেশে অথবা অন্য কোন দেশে ভ্রমনের সুযোগ পাবে না।

সেই থেকে দীর্ঘ এক বছর যাবৎ সুইসের প্রবাসীদের মাঝে এমআরপি পাসপোর্ট পাওয়ার প্রতীক্ষা চাপা উৎকন্ঠা আর হতাশায় রুপ নেয়। অনেক প্রবাসী এমআরপি পাসপোর্ট না পাওয়ার কারনে সুইজারল্যান্ডের রেসিডেন্ট পারমিট নবায়ন না করা ও নানা  প্রতিকূল সমস্যায় ছিল জর্জরিত। প্রতিদিন দূতাবাসের কনস্যুলেট বিভাগে ফোন করে ও স্থানীয় প্রবাসী সাংবাদিকদের নিকট অভিযোগ অনুযোগ ছিণ অসংখ্য-অগনিত।

জুরিখ প্রবাসী সংবাদকর্মী  ‘বাকী উল্লাহ খান রিপন’ এ বিষয়ের উপর একাধিক টিভি রিপের্ট করেন এবং সরকারের দায়িত্বশীল মহলের অবহেলার অভিযোগ তুলে ধরেন বিভিন্ন টিভি টকশোতে।

দূতাবাসের মান্যবর রাষ্ট্রদূত  ‘এম শামীম আহসান’  প্রবাসীদের দীর্ঘ প্রতীক্ষা, কষ্ট আর অভিযোগের বর্ণনা তুলে ধরেন সরকারের উচ্ছ পদস্থ কর্মকর্তা ও একাধিক মন্ত্রী মহোদয়ের নিকট। দূতাবাসের দায়িত্বশীল কূটনৈতিকগন সরকারের নির্ধারিত পাসপোর্ট ও ইমিগ্রেশন দপ্তরে বিরামহীন লেখালেখি করেন।
অবশেষে দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান ঘটিয়ে গত ৭ই আগষ্ট, শুক্রবার বিকেলে রাষ্ট্রদূত ‘এম শামীম আহসান’ দূতাবাসের কূটনৈতিক কর্মকর্তা কর্মচারীদের সক্রিয় সহযোগিতায়, কনস্যূলেট বিভাগে মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট এর আবেদন পত্র জমা দেয়া ও নিবন্ধন কার্যক্রম  শুরু করেন। জেনেভার প্রবীন প্রবাসী বাংলাদেশী ডঃ ইফতেখার আহমেদ ও তার স্ত্রী মিসেস আহমেদ দূতাবাসের এই কার্যক্রমে সর্বপ্রথম এমআরপি পাসপোর্টের আবেদন পত্রে ডিজিটাল স্বাক্ষর দেন এবং ছবি তোলেন।
দূতাবাস এমআরপি এর আবেদন সংক্রান্ত সকল তথ্যাবলী সুইজারল্যান্ড প্রবাসী বাংলাদেশীদের কাছে ইতোমধ্যে পৌছানো শুরু করেছে।

এমআরপি পাসপোর্টের নিয়মাবলী :
সুইজারল্যান্ডের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসকারী বাংলাদেশীদের প্রতি জেনেভা স্থায়ী বাংলাদেশ মিশনের নব নিযুক্ত কাউন্সিলর জনাব তৌফিক ইসলাম শাতিল গত ৭ই আগষ্ট, শুক্রবার বিকেলে  এক লিখিত বার্তায় জানান ‘ আজ থেকে সুইসে বসবাসকারী সকল প্রবাসী বাংলাদেশীগন মেশিন রেডিবল পাসপোর্ট ( এমআরপি) আবেদন করতে পারবেন।

এমআরপি আবেদন করার জন্য নির্ধারিত ফরম পূরন করে সঙ্গে দুই কপি ছবি, পুরনো পাসপোর্ট এবং ব্যাংকে অর্থ জমাদানের রিসিট সহ দূতাবাসে জমা দিতে হবে। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা বাংলাদেশ হতে ইস্যুকৃত জন্মসনদ (১৭ ডিজিট সহ) আছে তাদেরকে উক্ত কাগজ জমা দিতে হবে। যাদের  জন্ম সনদ বা জাতীয় পরিচয় পত্র নেই (বিশেষত যারা বিদেশে জন্ম গ্রহন করেছেন) তাদের দূতাবাস হতে জন্ম সনদ  গ্রহন করে অতঃপর এমআরপির জন্য আবেদন করতে হবে। এম আর পি আবেদনের জন্য ফি বাবদ ১০০ সুইস ফ্রাঙ্ক (সাধারন) ও জরুরি প্রয়োজনে ২০০ সুইস ফ্রাঙ্ক নির্ধারিত ব্যাংকে একাউন্টে জমা দিতে হবে।

লিখিত বার্তায় আরো বলা হয় এম আর পি পাসপোর্টে কোন পরিবর্তন, পরিমার্জন কিংবা সংশোধন সম্ভব নয়। এছাড়া সন্তানদের ক্ষেত্রে আগের মত এন্ডোর্সমেন্ট করা হবে না। বরং পৃথক পাসপোর্ট গ্রহন করতে হবে।

এম আর পি পাসপোর্ট গ্রহনের  জন্যে প্রত্যেক আবেদনকারীকে সশরীরে উপসিথত হয়ে ডিজিটাল ছবি ও ফিঙ্গার প্রিন্ট দিতে হবে। এ সংক্রান্ত সাক্ষাৎকার এর জন্য দূতাবাসে ফোন করে সময় নেয়ার জন্য সকলকে অনুরোধ জানানো হয়েছে। চিঠিতে উল্লেখ করা হয় এমআরপি পাসপোর্ট হাতে পাওয়ার জন্য আবেদন কারীকে কমপক্ষে মাসাধিক কাল অপেক্ষা করতে হবে। সকল প্রবাসী বাংণাদেশীদের নূন্যতম সময়ে এমআরপি প্রদানের জন্য দূতাবাস সর্বাত্বক ভাবে চেষ্টা করবে।

এইবেলা ডটকম/এটি 

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71