বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮
বৃহঃস্পতিবার, ১লা অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে মোদীর দ্বারস্থ খালেদা
প্রকাশ: ০৩:৩৯ pm ১০-০৬-২০১৮ হালনাগাদ: ০৩:৩৯ pm ১০-০৬-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


আসন্ন জাতীয় নির্বাচনের আগে বাংলাদেশের অন্যতম বিরোধী দল বিএনপির শীর্ষ প্রতিনিধি দল ভারতে গেলেন৷ দলের তরফে এমনই জানানো হয়েছে৷ বিবিসি জানাচ্ছে এই খবর৷ শনিবার জেল বন্দি দলনেত্রীর গুরুতর অসুস্থতার সংবাদে বাংলাদেশের রাজনৈতিক মহলে আলোড়ন ছড়ায়৷ তার কিছু পরেই বিএনপি জানাল,আসন্ন সাধারণ নির্বাচন, ভারতের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নসহ আরও বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা করতে দিল্লি গেছে তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল।

তিন সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী। অপর দুই সদস্য হলেন: বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আওয়ার মিন্টু এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ক সহ-সম্পাদক হুমায়ুন কবির।

ওই সফরে তারা ভারতের ক্ষমতাসীন বিজেপি, বিরোধী দল কংগ্রেস, সে দেশের তিনটি এনজিও, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বিশ্লেষকদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

ভারতীয় একটি গণমাধ্যম সংবাদের শিরোনাম করেছে, “হাসিনাকে চাপে রেখে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবিতে মোদীর দ্বারস্থ খালেদার দল।”বিএনপি সূত্রে বলা হয়েছে, আসন্ন নির্বাচনের আগে ভারতের প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বদের মতামত জানতে এবং নিজেদের মত বিনিময় করতেই এই সফর।

বিবিসি তার সংবাদে লিখেছে, বিএনপি নেতারা সেখানে তারা দেশটির প্রভাবশালী কয়েকটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বা থিংক ট্যাংকে সাবেক কূটনীতিক, অর্থনীতিবিদ এবং বিশ্লেষকদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন।

বিএনপির ফরেন উইংয়ের একটি প্রভাবশালী সূত্র জানায়, ‘ভারত সফর করতে ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কনসার্ন ছিল। তার সম্মতি নিয়েই আমীর খসরু, আবদুল আউয়াল মিন্টু ও হুমায়ুন কবির ভারতে যান। তাকে (তারেক রহমান) বলা হয়েছে, খালেদা জিয়ার মুক্তি রাজনৈতিকভাবে আদায় করতে হলে নির্বাচনে বিজয়ী হওয়া দরকার এবং নির্বাচনে ভারতকে প্রয়োজন।’

দি হিন্দু পত্রিকায় লেখা হয়েছে - দিল্লিতে বিএনপি নেতারা বাংলাদেশের একটি সুষ্ঠু এবং নিরপেক্ষ নির্বাচনের সহায়তার জন্য নরেন্দ্র মোদী সরকারের সাহায্য চেয়েছেন।

দ্য হিন্দুর খবরে বলা হয়, বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির বলেছেন, ‘পেছনে ফিরে তাকানোর পরিবর্তে আমাদের সামনে এগিয়ে যাওয়া প্রয়োজন। ৮০ ও ৯০ দশকের রাজনীতি এখন বিলুপ্ত হয়ে গেছে।’ তারেক রহমানের উপদেষ্টা হুমায়ুন আরও বলেন বলেন, ‘তারেক রহমান চান আমরা ভারতের সঙ্গে যুক্ত হই। এখন উভয় দেশের তরুণ জনগোষ্ঠীই আমাদের প্রধান অগ্রাধিকারের বিষয়।’ এছাড়া, বিএনপি সরকারের বিগত আমলগুলোতে ভারত ও বাংলাদেশের খারাপ সম্পর্কের নীতিকে ‘ভুল ও বোকামি’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এই বক্তব্যের পর বিএনপি নেতাদের মধ্যে তোলপাড় তৈরি হয়। নেতারা একে-অপরে উৎসুক হয়ে জানতে চাইছেন, ভারতের বিষয়ে সহমর্মী হওয়ার বিনিময়ে নিজেদের বিগত দিনের পররাষ্ট্রনীতি প্রশ্নের মুখে ঠেলে দেওয়া কেন?

ভারতে ক্ষমতাসীন বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোট৷ তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক বাংলাদেশে ক্ষমতাসীন আওয়ামি লিগে জোট সরকারের৷ সম্প্রতি দিল্লি গিয়েছিলেন আওয়ামি লিগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে প্রতিনিধিরা৷ তাঁদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর৷ এরপরেই পশ্চিমবঙ্গে গিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা৷ বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধনের পর সেখানেই হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী৷ এই বৈঠকে দুই রাষ্ট্রের মধ্যে সুসম্পর্ক আরও জোরালো করার বিষয় প্রাধান্য পেয়েছে৷ তবে বহু প্রতীক্ষিত তিস্তা জলবন্টন চুক্তি এখনো সম্ভব হয়নি৷

এবার জাতীয় নির্বাচন ঘিরে নিরপেক্ষতার আর্জিতে সরব হয়েছে বিএনপি৷ তাদের অভিযোগ, গত জাতীয় নির্বাচনে তুমুল ভোট জালিয়াতি ও রিগিং করে ক্ষমতায় টিকে গিয়েছেন শেখ হাসিনা৷ সেই কারণে গত নির্বাচন বয়কট করে বিএনপি৷ তারপরেই বিএনপি- জামাত ইসলামির লাগাতার হিংসাত্মক আন্দোলনে বাংলাদেশে শতাধিক মানুষের মৃত্যু হয়৷ 
বিশেষজ্ঞদের ধারণা, আসন্ন জাতীয় নির্বাচনে আর কোনও ঝুঁকি নিতে চায়না বিএনপি৷ তাই ভারতে গিয়ে সেখানকার শীর্ষ রাজনৈতিক দলগুলির সঙ্গে আলোচনা চালাতে তারা তৎপর৷

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71