শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
শুক্রবার, ১০ই ফাল্গুন ১৪২৫
 
 
শিক্ষক শ্যামল কান্তি লাঞ্ছনা
সেদিনের ঘটনায় আমি দুঃখিত, লজ্জিত: সেলিম ওসমান
প্রকাশ: ১১:৪২ pm ২৬-০৫-২০১৬ হালনাগাদ: ১১:৪২ pm ২৬-০৫-২০১৬
 
 
 


নারায়ণগঞ্জ: নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার পিয়ার লতিফ সাত্তার উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন সংসদ সদস্য এ কে এম সেলিম ওসমান।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নারায়ণগঞ্জ ক্লাবের কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় জাতীয় পার্টির এ সংসদ সদস্য বলেন, 'সেদিনের ঘটনার জন্য আমি দুঃখিত, লজ্জিত।'

মতবিনিময় সভায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মী, ব্যবসায়ী নেতারা ছাড়াও নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের জাতীয় পার্টির এমপি লিয়াকত হোসেন খোকা, সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য হোসনে আরা বাবলী, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সহসহভাপতি মোহাম্মদ আলী, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান ও ফতুল্লা থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ বিশ্বাস, বন্দর উপজেলার চেয়ারম্যান ও বন্দর থানা বিএনপির সভাপতি আতাউর রহমান মুকুল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সেলিম ওসমান বলেন, 'ঘটনার পর প্রতিদিন অসংখ্য ফোন আসছে। আমি তাদের কাছে কোটি বার ক্ষমা চেয়েছি।'

স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিমকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, 'আপনারা আমাকে ক্ষমা চাইতে বললেন— এখানে আসেন, কথা বলেন, আমার দাওয়াত নেন। প্রয়োজনে আমি আপনাদের আসামি হব। তবু ক্ষমা চাইতে বলবেন না।'

মতবিনিময় সভায় উপস্থিত আলেমদের কাছে হাত জোড় করে তিনি বলেন, 'আমার কাছে খবর আছে— আপনারা শুক্রবার জুমার নামাজের পর বড় আন্দোলনে নামবেন। আমি সবার কাছে হাত জোড় করে মিনতি করি, আল্লাহর ওপর ভরসা রাখেন। প্রয়োজনে শুক্রবার জুমার নামাজের পর আমার জন্য মসজিদে মসজিদে দোয়া করেন। কারণ ইসলাম শান্তির ধর্ম। আপনারা কেউ রাস্তায় নামবেন না।'

শিক্ষক লাঞ্ছনার ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন ডেকে তা বাতিল করা প্রসঙ্গে সেলিম ওসমান বলেন, 'আমাকে আমার দলের প্রধান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ডেকে বললেন, সেলিম তুমিতো ওলি হয়ে গেছ। তুমি জানো, তোমার জন্য সারাদেশের কত মসজিদে দোয়া হয়েছে। তুমি শান্ত হও। আল্লাহ তোমার সহায় হবেন। তোমার সঙ্গে আল্লাহ আছেন। আমরা আছি। তুমি সংবাদ সম্মেলন বন্ধ করে দাও।'

ধর্ম অবমাননার অভিযোগে গত ১৩ মে নারায়ণগঞ্জের বন্দর উপজেলার পিয়ার সাত্তার লতিফ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তকে একদল লোক মারধর করে। পরে স্থানীয় সাংসদ সেলিম ওসমানের উপস্থিতিতে তাকে কান ধরিয়ে উঠবস করানো হয়।

এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে দেশজুড়ে উঠে সমালোচনার ঝড়। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে নিজের কান ধরার ছবি দিয়ে শুরু হয় অভিনব প্রতিবাদ 'সরি স্যার'। এ ঘটনার জের ধরে গত ১৭ মে শ্যামল কান্তি বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির দেয়া তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা সংক্রান্ত চিঠি হাতে পান।

এদিকে সরকারি তদন্ত কমিটি শিক্ষক শ্যামল কান্তি ভক্তের বিরুদ্ধে 'ধর্মীয় অবমাননার' অভিযোগ বিষয়ে প্রমাণ না পাওয়ায় গত ১৯ মে এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, বিদ্যালয়টির পরিচালনা কমিটি অন্যায়ভাবে শ্যামল কান্তিকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে। তাই ওই কমিটি বাতিল করা হয়েছে। আর শ্যামল কান্তিকে তার স্বপদে বহাল রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

এরপর নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কিত হয়ে পড়ে শ্যামল কান্তির পরিবার। পরে স্ত্রীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষক শ্যামল কান্তিকে নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকা মেডিকেলে স্থানান্তর করা হয়।

 

এইবেলাডটকম/পিসি

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71