শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০১৯
শুক্রবার, ৪ঠা শ্রাবণ ১৪২৬
 
 
সৈয়দপুরে শেয়ার হোল্ডারের মামলা করায় জীবন নাশের হুমকি
প্রকাশ: ০৬:০৭ pm ০২-১২-২০১৫ হালনাগাদ: ০৬:০৭ pm ০২-১২-২০১৫
 
 
 


 সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধি : নীলফামারীর সৈয়দপুরে অবস্থিত সাজেদা কোল্ড স্টোরেজ ও মেসার্স খালেক কোল্ড স্টোরেজ- এর শেয়ার হোল্ডার এক মহিলাকে মেরে ফেলে শেয়ার আত্মসাত করার চেষ্টার অপরাধে দায়ের করা মামলায় আদালত স্থানীয় থানা পুলিশকে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিলেও তা কার্যকর করা হচ্ছেনা বলে অভিযোগ মিলেছে। থানা পুলিশের তদন্ত কর্মকর্তার বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ করেন উল্লেখিত কোল্ড স্টোরেজের শেয়ার হোল্ডার সনি জাহান ওরফে তারান্নুম জাহান।

অভিযোগে জানা যায়, শহরের গোয়ালপাড়ার বাসিন্দা ও মেসার্স খালেক কোল্ড স্টোরেজের মালিক মোস্তাক আহম্মেদ এর সাথে সনি জাহান ওরফে তারান্নুম জাহান শেয়ার হোল্ডার পার্টনার ছিলেন। তিনি মারা যাওয়ার পর তার স্ত্রী নূল আয়েশা খাতুনের শেয়ার পার্টনার হওয়ায় তার মেয়ে সানজিদা খাতুনের বিবাহের জন্য জনৈক এসকে আব্দুর আমিন মিন্টুর কাছে ১৮০০ শেয়ার বিক্রি করে দেন। ওই সময় সনি জাহান ওরফে তারান্নুম জাহানও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এ ঘটনায় তারান্নুম জাহান উপস্থিত থাকায় মরহুম মোস্তাক আহম্মেদের ছেলে নেয়াজ আহম্মেদ ও শাহনেয়াজ আহম্মেদ তাদের গোয়ালপাড়ার বাসায় কোল্ড স্টোরেজের শেয়ারের কথা বলার জন্য তারান্নুমকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে তারান্নুম উপস্থিত হওয়ার সাথে সাথে ২টি সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করতে বলা হয়।

কিন্ত তারান্নুম সাদা স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করতে না চাইলে মোস্তাক আহম্মেদের ছেলে নেয়াজ আহম্মেদ ও শাহনেওয়াজ আহম্মেদ গালিগালাজের এক পর্যায় লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে সারা শরীর থেতলে দেয়। এ সময় তারান্নুমের চিৎকারে পার্শ্ববর্তী লোকজন ছুটে এসে তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় ১০০ শয্যা হাসপাতালে ভর্তি করায়। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্ত করা হয়।

সূত্র জানায়, সনি জাহান ওরফে তারান্নুম জাহান মেসার্স খালেক কোল্ড স্টোরেজের শেয়ার হোল্ডারের পাশাপাশি সাজেদা কোল্ড স্টোরেজের শেয়ারের পরিমাণ ২৭০০টি। আহত তারান্নুমের শেয়ারগুলি আত্মসাত করার ঘটনায় হত্যার উদ্দেশ্যে মারডাং করার অপরাধে চলতি বছরের ৭ নভেম্বর নীলফামারী চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সৈয়দপুর আমলী আদালতে মামলা দায়ের করা হয়। এ মামলা আদালত সৈয়দপুর থানায় মামলা নথিভূক্ত করতঃ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার আদেশ দিলেও থানা পুলিশ কোন আইনী ব্যবস্থাই নিচ্ছেন না বলে অভিযোগ করেন তারান্নুম। উপরন্ত ফাইনাল রিপোর্ট দেয়ার কথা বলছেন তদন্তকারী কর্মকর্তা।
সৈয়দপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আমিরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ে তদন্ত চলছে। সত্যতা মিললেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

এইবেলা ডট কম / মোমেন / আর বি
 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71