সোমবার, ২৫ মার্চ ২০১৯
সোমবার, ১১ই চৈত্র ১৪২৫
 
 
হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায়
প্রকাশ: ০৯:৫৫ am ২৮-০৫-২০১৮ হালনাগাদ: ০৯:৫৬ am ২৮-০৫-২০১৮
 
এইবেলা ডেস্ক
 
 
 
 


হিট স্ট্রোক হচ্ছে দেহের তাপমাত্রা বৃদ্ধ্বি পেয়ে সৃষ্টি হওয়া এক প্রকার জটিলতা। স্বাভাবিক দেহের তাপমাত্রা ৯৮ ফারেনহাইট। যদি এটি ১০৪ ফারেনহাইট ক্রস করে তখনি হিট স্ট্রোক হতে পারে। হিট স্ট্রোক এক প্রকার মেডিকেল ইমার্জেন্সি, যেখানে সাথে সাথে রোগিকে চিকিৎসা না দেয়া হলে রোগি মৃত্যুবরন করতে পারে। রোগিকে গরম থেকে সরিয়ে এনে তার দেহের তাপমাত্রা কমিয়ে আনা হিট স্ট্রোকের চিকিৎসার একটি দরকারি ধাপ। 

 কারা হিট স্ট্রোকে বেশি আক্রান্ত হয়? 

ছোট বাচ্চা, বয়স্ক লোক, ব্যায়ামবীর বা দিনমজুরদের হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হবার সম্ভাবনা খুবই বেশি। বাচ্চাদের ক্ষেত্রে এটি খুবই ভয়াবহ, বাচ্চাদের দেহের তাপ নিয়ন্ত্রন করার সিস্টেম ডেভেলপড না হওয়ায় তাদের হিট স্ট্রোকের সম্ভাবনা বেশি। প্রচন্ড গরমে বাচ্চাকে লক করা গাড়িতে রেখে পাশের দোকানে কেনাকাটা করতে নামবেন না। বাচ্চাকে সাথে নিয়ে যান। বৃদ্ধদেরও দেহের তাপ নিয়ন্ত্রন করার সিস্টেম দুর্বল হয়ে যায়। মাথা ঝিম ঝিম করা বমি করা, অবসাদ দুর্বলতা, মাথা ব্যাথা, মাংশপেশির খিঁচুনি, চোখে ঝাপসা দেখা তখন হিট স্ট্রোকের নিমোক্ত লক্ষনগুলো দেখা যায়: দেহের তাপমাত্রা অস্বাভাবিক বেশি ঘামের অনুপস্থিতি, চামড়া খসখসে লাল হয়ে যাওয়া পালস বেড়ে যাওয়া শ্বাস নিতে কষ্ট মাতালের মত ব্যবহার হ্যালুসিনেশন কনফিউশন অশান্তি করা খিঁচুনি কোমায় চলে যাওয়া।

হিট স্ট্রোক থেকে বাঁচার উপায়

১। বেশি করে পানি খান
যেহেতু পানিশূন্যতা থেকেই হিট স্ট্রোক হয়, তাই গরমে দেহ থেকে বেরিয়ে যাওয়া পানির শূন্যতা পূরণে প্রচুর পরিমাণে পানি খেতে হবে। খাবার পানির পাশাপাশি কাচা আমের ঘরে তৈরি জুস, লেবু, বেল, তরমুজের শরবত খেতে যেমন ভালো লাগবে, তেমনি তা আপনার দেহের পানিশূন্যতা পূরণ করে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি কমিয়ে আনবে।

২। পোশাক পরুন ঢিলেঢালা ও হালকা রঙ্গের
ফ্যাশনে যাই চলুক না কেন। গরমে আঁটসাঁট পোষাক থেকে শরীরকে রেহাই দিন। তীব্র গরমে হালকা রঙ এর, ঢিলেঢালা সুতি কাপড়ের পোশাক বেছে নিন। নরম কাপড়ের অন্তর্বাস অবশ্যই ব্যবহার করুন। কেন না এটি দ্রুত ঘাম শুষে নিয়ে আপনার শরীরকে ঠাণ্ডা রাখবে।

৩। জাঙ্ক ফুড একেবারেই নয়
গরমের এই দুই মাস ফাস্টফুডকে না বলুন। কেননা এতে থাকা অতিরিক্ত লবন, তেল গরমে আপনার শরীরকে আরো বেশি ক্ষতিকর অবস্থার দিকে নিয়ে যায়। শরীর ঠান্ডা থাকে এমন ঘরে তৈরী খাবার খান।

৪। গোসল করুন যতবার সম্ভব
প্রচণ্ড গরমে শরীরের তাপমাত্রা যাতে সীমা অতিক্রম না করে, এ জন্য যতবার সম্ভব গোসল করুন। তবে প্রতিবার গোসলের পরে চুল ভালোভাবে শুকিয়ে নিন। তা না হলে ঠাণ্ডা লেগে যেতে পারে।

৫। দুপুর ১২টা থেকে ২টা থাকুন ছায়ায়
দুপুর ১২টা থে ২টায় রোদের তীব্রতা সবচেয়ে বেশি থাকে। অর্থাৎ গরমের পরিমাণটাও। তাই চেষ্টা করুন ঘরের বা অফিসের বাহিরে জরুরি কাজগুলো এর আগে বা পরে সেরে ফেলার। এই সময়টার সরাসরি সূর্যতাপে কাজ করা থেকে বিরত থাকুন।

৬। ব্যাগে রাখুন ছাতা, টুপি, পানি, সানগ্লাস
ব্যাগে এই গরমে কয়েকটা জিনিস রাখতেই হবে। ছাতা, টুপি, সানগ্লাস, পানি ছাড়াও রাখতে পারেন একটা পানি স্প্রে করার বোতল ও রুমাল। প্রচণ্ড রোদে ঘেমে গেলে মুখে গলায় একটু পানি স্প্রে করতে পারেন।

৭। চা কফি কোল্ড ড্রিঙ্কস নয়
চা, কফি কোল্ড ড্রিঙ্কস গরমে নিস্তেজ শরীরকে কিছুক্ষণের জন্যে সতেজ করলেও, এগুলোর কারণে শরীর থেকে পানি আরো দ্রুত বেরিয়ে গিয়ে পানিশূন্যতা তৈরি হতে পারে। তাই এর বদলে মৌসুমি ফল ও ফলের রস বেছে নিন। সুস্থতা, সতেজতা দুটোই একসঙ্গে পাবেন।

৮। প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে থাকা নয়
প্রখর রোদ এড়িয়ে চলুন। কাজের প্রয়োজনে প্রখর রোদে দাঁড়িয়ে থাকা লাগলে সেক্ষেত্রে একটু পর পর ছায়াইয় যাবার চেষ্টা করুন। ছাতা, সানগ্লাস, টুপি যা কিছু সম্ভব ব্যবহার করে রোদ থেকে নিজেকে আড়ালে রাখার চেষ্টা করুন।

৯। খাদ্যতালিকার রাখুন সবজি ও ফল
দৈনন্দিন খাদ্যতালিকা থেকে ভুনা খিচুড়ি, বিরিয়ানি জাতীয় খাবারগুলোকে কিছুদিনের জন্য বিদায় দিন। এর বদলে ভাত, কম তেল মশলায় রান্না মাছ, প্রচুর পরিমাণে সবজি খেতে পারেন। কম তেলে রান্না খাবার আপনাকে এই গরমে সতেজ রাখবে।

১০। তাপমাত্রার পরিবর্তন খেয়াল রাখুন
নিজের চারপাশের তাপমাত্রা খেয়াল রাখুন। শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত জায়গা থেকে বেরিয়েই প্রচণ্ড রোদে চলে যাবেন না। বা প্রখর রোদ থেকে এসেই হুড়মুড় করে এসি রুমে ঢুকবেন না। একটু সময় নিন। নইলে তাপমাত্রার হঠাৎ পরিবর্তনের সঙ্গে আপনার শরীর মানিয়ে নিতে না পারলে মারাত্মক অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন। হিট স্ট্রোক যেকোন সময় যে কারও হতে পারে। শিশু ও বৃদ্ধদের এই ঝুঁকি বেশী। তবে সব মানুষেরই এ থেকে সাবধান থাকা উচিত।

নি এম/

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71