শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮
শুক্রবার, ৬ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
২ বছর ধরে শিকলে বাঁধা শিশু নিকিলেশ দাস
প্রকাশ: ০৯:৫১ am ০২-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ১০:০৪ am ০২-০৮-২০১৭
 
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি
 
 
 
 


সুনামগঞ্জ জেলার শাল্লা উপজেলা সদরে সবার চোখের সামনে অমানবিক ঘটনা ঘটলেও সহযোগিতায় কেউ এগিয়ে আসছেন না। অসহায় এক হত দরিদ্র এক হিন্দু পরিবারের ফুটফুটে ৮ বছরের শিশু নিকিলেশ দাসকে চিকিৎসার অভাবে হতভাগী মা নিশা রানী দাস নিরুপায় হয়ে ২ বছর যাবত কোমড়ে রশি দিয়ে ঘরের খুঁটির সাথে বেধে রেখেছে তার সন্তানকে। কারণ নিকিলেশ দাস যে কোন সময় মৃগী রোগ দ্বারা আক্রান্ত হয়ে মারা যেতে পারে যে কোন স্থানে তাই হতভাগী মা নিশা রানী দাস তার বুকের ধনকে বেধে রেখেছেন।  

উপজেলা সদরের ঘুঙ্গিয়ারগাঁও বাজারের পুর্ব দিকে খাদ্য গোদামে চাল বিতরণ অনুষ্ঠানে যাবার পথে হঠাৎ এক মহিলার করুন কান্নার স্বর শুনা যায়।  একটু এগিয়ে গিয়ে দেখা যায় গোদামের দক্ষিণ রাস্তার পাশে অবনী দাসের চা দোকানের পাশে সরকারী জায়গার উপর একটি ছাপটা ঘরের ভেতরে কাঁদছেন শিশু নিকলেশের মা নিশা রানী দাস।  ধাক্কা দিয়ে বাশেঁর দরজাটি খোলতেই বিধবা নিশা রানী দাস ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন,‘ আমরারে দেখন লাগত না, আমরা মরলে দেখতে আইওনা।  মহিলা ঘরের একটু বাহিরে এলেই দেখা যায় পায়ে রশি দিয়ে  বাধা শিশু নিকলেশকে বন্দি করে রাখার করুণ দৃশ্য।  ছেলেকে কেন পায়ে রশি দিয়ে বেধে রেখেছেন জানতে চাইলে মা নিশা রানী দাস কেঁদে কেঁেদ বলেন,‘ ভাই পুলাডার মিরকি (মৃগী) রোগ আছে।  এর লাগি ২ বছর ধইরা এই পালার (খুটি) সাথে বাইন্দা রাখতাছি।  ছাড়লেই কই যায় পাওয়া যায় না।  ’

শাল্লা উপজেলা প্রশাসনের চোখের সামনে গত ২ বছর যাবত শিশু নিকলেশ বন্দি অবস্থায় থাকলেও কেউ তা জানেন না।  এই বিষয় নিয়ে উপজেলা প্রশাসনের বেশ কয়েকজনের সাথে কথা হলে এ রকম কোন ঘটনা কথা কেউ শুনেনি বলে জানান। 

অভাগী মা নিশা রানী কেঁদে কেঁদে আরো বলেন,‘ভাই চিকিৎসা করলে আমার পুলা ভাল ওইব।  আমি গরিব মানুষ।  মানুষের দোকান ও বাড়িত কাম কইরা দুইডা ভাত কাই।  নিজের বাড়িও নাই রাস্তায় থাকি।  একবার খাইলে আর একবার পাইনা।  খাইতাম পারি না ডাক্তর দেখাইমু কেমনে।  আমার জামাই আড়াই বছর আগে মারা গেছে।  মরার আগে আমার জামাই পুলাডারে ২ বার ডাক্তর দেখাইছে তখন একটু ভালা আছিল আমার পুলাডা।  এখন কি আর করমু বলেই তিনি কেঁদে ফেলেন। 

জেলা প্রশাসক মো. সাবিরুল ইসলামকে অবগত করা হলে তিনি বলেন,‘ খোঁজ খবর নিয়ে সমাজসেবার মাধ্যমে ওই শিশুর চিকিৎসা সহায়তার উদ্যোগ নেয়া হবে। কিন্তু এই রোগের চিকিৎসার ভাল ব্যবস্থা রয়েছে বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে। আমাদের একটু সহয়তা পারে শিশু নিকিলেশ দাসে’র মুখে হাসি ফুটাতে।

সাহায্যের জন্য যোগাযোগ করুন: ০১৫১৬৭৫৪৮৭৫

প্রচ

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71