বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন ২০১৯
বৃহঃস্পতিবার, ১৩ই আষাঢ় ১৪২৬
 
 
গলাচিপায় ট্রিপল মার্ডার রহস্য এখন উদঘাটিত হয়নি
প্রকাশ: ০৯:০৭ pm ০৩-০৮-২০১৭ হালনাগাদ: ০৯:০৭ pm ০৩-০৮-২০১৭
 
গলাচিপা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি :
 
 
 
 


গলাচিপায় আলোচিত ট্রিপল মার্ডারের রহস্য এখন পর্যন্ত উদঘাটিত হয়নি।

উপজেলার আমখোলা ইউনিয়নের ছৈলাবুনিয়া গ্রামে মঙ্গলবার রাতের যে কোন সময় বাবা দেলোয়ার হোসেন মোল্লা (৬৫), মা পারভীন বেগম (৫৫) এবং মেয়ে কাজলী আক্তার (১৫)কে খুন করা হয়। এ খুনের ঘটনায় নিহত দেলোয়ার হোসেন মোল্লার বড় ভাই ইদ্রিস মোল্লা (৭০) বাদী হয়ে গলাচিপা থানায় বৃহস্পতিবার মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় কোন আসামীর নাম উল্লেখ করা হয়নি। 

বুধবার রাতে এডিশনাল এসপি মো. মাহফুজুর রহমান, এএসপি সার্কেল, মো. জহিরুল ইসলাম, গলাচিপা থানার ওসি মো. জাহিদ হোসেনসহ পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থলে যান। তারা সুরাতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে লাশগুলো রাতেই ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মর্গে প্রেরণ করেন। এ খুনের ঘটনায় এখন পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি।

এব্যাপারে গলাচিপা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. জাহিদ হোসেনের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তদন্তের স্বার্থে এখনই সব কথা বলা যাবে না। তবে খুনের রহস্য উদঘাটনের জন্য পুলিশ আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। 

সূত্র জানায়, খুনের শিকার দেলোয়ার হোসেন মোল্লার বড় ভাই ইদ্রিস মোল্লার বাড়িতে স্থানীয় মাইনুদ্দিন মোল্লার নেতৃত্বে ১০ ফেব্রুয়ারি শুক্রবার সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়। এসময় ইদ্রিস মোল্লার ছেলে এসএসসি পরীক্ষার্থী মো. সফি মোল্লা সন্ত্রাসীদের হামলায় মাথায় গুরুতর আঘাত প্রাপ্ত হয়। এর কয়েকদিন পর ঢাকার একটি হাসপাতালে আঘাতজনিত কারণে তার মৃত্যু হয়।

ইদ্রিস মোল্লার বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় ১১ ফেব্রুয়ারি তার মেয়ে মোসা. মাহিনুর বেগম বাদী হয়ে গলাচিপা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। সফি মারা যাওয়ার পর ওই মামলার সঙ্গে হত্যা মামলা ৩০২ ধারা যুক্ত হয়। মামলাটি বর্তমানে পটুয়াখালী সিআইডিতে তদন্তধীন রয়েছে। 

সফি হত্যা মামলার স্বাক্ষী মোসা. পারভীন বেগমকে  ৩০ মার্চ আসামীরা নানা রকম দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। তাকে মারধর করার পর নানা রকম হুমকি দিয়ে চলে যায়। এতে মোসা. পারভীন বেগম বাদী হয়ে গলাচিপা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন যার নম্বর (এমপি-১৫৮/১৭)। 

এ ঘটনার পর সফি হত্যা মামলার  স্বাক্ষী পিয়ারা বেগমের বসত ঘরে ২৫ মার্চ সফি হত্যা মামলার আসামী আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। এতে গলাচিপা সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা করলে আদালত পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন। 

সরেজমিনে এলাকাবাসী সাথে আলাপ করলে ট্রিপল মার্ডারের ঘটনায় কেউ মুখ খুলতে চায়নি। অনেক পিড়াপিড়ির পর নাম না প্রকাশ করার শর্তে কয়েকজন গ্রামবাসী জানান, এ ট্রিপল মার্ডারের ঘটনা সফি খুনের সাথে একই সূত্রে গাঁথা।

এসএম

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

সম্পাদক : সুকৃতি কুমার মন্ডল 

 খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

+8801711-98 15 52

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2019 Eibela.Com
Developed by: coder71