সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮
সোমবার, ৯ই আশ্বিন ১৪২৫
 
 
মুক্তাগাছায় কর্মপরম্পরায় নরসুন্দর সাধন
প্রকাশ: ১০:০৬ am ২৭-১২-২০১৬ হালনাগাদ: ১০:০৬ am ২৭-১২-২০১৬
 
 
 


স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহে মুক্তাগাছায় তার নাম সাধন ঠাকুর। তার পূর্বপুরুষেরা তার মতোই সুন্দর ছিলো।কর্মপরম্পরায় সাধন নরসুন্দর। হয়তো তারা মানুষের চুল, দাড়ি কেটে মানুষকে সুন্দর করে তোলে তাই তারা নরসুন্দর।

তার তিন ছেলে। অপু, পাপ্পু ও তপু। অপু নিজে একটা সেলুন দিয়েছে। পাপ্পু মাঝে মাঝে বাবার সেলুনে হাত জোগায় আর তপু আর্ম ব্যটেলিয়ানে নাপিতের চাকরি পেয়েছে।

সাধন তার দোকানে হলুদ রং করেছে। পড়ন্ত দুপুর বেলা যখন দোকানে লোকজন কম থাকে তখন সাধন হলুদ টিনের সামনের চেয়ারে বসে আয়নায় নিজেকে দেখে।

লুকানো বয়সটা হঠাৎ বেরিয়ে আসতে চায়। তখন তার হাসি হয়তো ক্ষনিকের জন্য থেমে যায়। কিন্তু সেই থামা হাসি দীর্ঘস্থায়ী হয় না। আবার চালু হয়ে যায় চেনা কাউকে দেখলেই। তখন রফিকের লাল চা।

সন্ধ্যাগুলো এখানে চকচকে হয় না। সেইসব সন্ধ্যায় ধুপকাঠির গন্ধে সাধন দা কেমন চুপচাপ হয়ে যায়। শহরের ঠিকঠাক জায়গায় একটা রঙিন সেলুন দিয়ে এক দীর্ঘজীবনেরর স্বপ্ন দেখে সে।

তখন সে পুরোনো আধুনিক বাংলা গান আর নজরুল গীতি গুনগুন করেন।সধন এক কীর্তণের দলে ঘুরে ঘুরে কীর্তণ করতেন।

শ্রী শ্রী রাধা গোবিন্দ সম্প্রদায়ের গাইয়ে সে। এই কীর্তন করতে করতেই তার তবলার প্রতি আকর্ষণ। তবলার বোল তার আঙুলে, হাতে, চোখে, প্রানে ধীরে ধীরে বাজতে লাগলো। পূন্য ওস্তাদজি তার তবলার ওস্তাদ।

নরসুন্দর সাধন ঠাকুরে হয়ে উঠলো তবলার সাধন ঠাকুর। নানা অনুষ্ঠানে, নানা গানে বাজিয়েছে সে। এখন সে এক ললিতকলা একাডেমিতে বাচ্চাদের তবলা শিখায়।

যার মুখের কথা হলো, হাইলাইট করতে হইবো তো। যে দ্রুতগতিতে তার কেচি চলে একই দ্রুতগতিতে চলে তবলায় আঙ্গুল।রাতে দোকান বন্ধ করে ঘরে ফেরার সময় পাশের চা দোকানী রফিক মজা করে বলে, মামু হাইলাইট করতে হইবো তো।

অন্ধকারে তারে দেখা যায় না কেবল কোন এক নজরুলগীতির আধো আধো লাইন ভেসে আসে।সবজায়গায় এরকম একজন সাধন দা থাকলে ভালো হয়। তখন আমাদের মনে হয়, জীবনটারে হাইলাইট করতে হইবো কারন সময় গেলে সাধন হবে না।

 

এইবেলাডটকম/মনোনেশ/গোপাল

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71