বুধবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৮
বুধবার, ২৮শে অগ্রহায়ণ ১৪২৫
 
 
পাইকগাছায় দুদকের গণশুনানি; বিভিন্ন দপ্তরে কর্মচারীদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বৃদ্ধি
প্রকাশ: ০৮:১১ pm ০৯-০৭-২০১৭ হালনাগাদ: ১১:৫০ am ১৮-০৭-২০১৭
 
মহানন্দ, খুলনা প্রতিনিধি
 
 
 
 


খুলনার পাইকগাছায় সদ্য অনুষ্ঠেয় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) এর উন্মুক্ত গণশুনানি পরবর্তী বিভিন্ন দপ্তরে কর্মচারীদের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকন্ঠা বৃদ্ধি পেয়েছে।

ইতোমধ্যে সেবা প্রদানকারী সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে এর প্রভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। দুদকের এ পদক্ষেপে বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ সংশ্লিষ্টদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। এদিকে অনেকেই জানিয়েছেন, অভিযোগ দেয়ার পরও গণশুনানিতে তাদের অভিযোগগুলো উত্থাপন হয়নি। এ বিষয়ে দুদকের খুলনা বিভাগীয় উপ-পরিচালক মোঃ আবুল হোসেন জানিয়েছেন, সময় স্বল্পতার কারণে যে সব অভিযোগের শুনানি গ্রহণ করা হয়নি, সেগুলো তদন্ত করে ব্যবস্থা নিবেন বলে জানিয়েছেন।

পূর্ব ঘোষণা মতে, গত ৫ জুলাই পাইকগাছা উপজেলা পরিষদ চত্ত্বরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফকরুল হাসানের সভাপতিত্বে শত মানুষের উপস্থিতিতে দুদক, উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয় দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির আয়োজনে ও বিআইডিজি’র সহযোগিতায় দেশে ৫৮তম গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়। জেলা প্রশাসক আমিনুল আহসানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি দুদক (অনুসন্ধান) কমিশনার ড. নাসির উদ্দীন আহমেদ মানুষের সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিত করতে দুর্নীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য বিভিন্ন দপ্তরের কর্মচারীদের সাবধান করে বলেন, এ শুনানিতে কি অর্জন হলো তা আগস্ট মাসের মধ্যে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দেশবাসীকে জানানো হবে।

ঐ গণশুনানিতে বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে সেবাপ্রদানকারী দপ্তর সমূহের মধ্যে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোঃ জুবায়ের হোসেন চৌধুরী, সেটেলমেন্ট কর্মকর্তা কাজী আসাদুজ্জামান, সাব-রেজিস্ট্রার মোঃ আকবর আলি, পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম মোঃ ফজলুর রহমান, উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা প্রভাত কুমার দাশ, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জয়নাল আবদীন, হিসাবরক্ষণ অফিসার মুজিবুর রহমান সহ বিভিন্ন দপ্তরের প্রধানদের বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ের উত্তরসহ করণীয় বিষয়ে ব্যাখ্যা দেন। গণশুনানী অনুষ্ঠানে ১০টি সরকারি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে সাধারণ জনগণের আনিত বিভিন্ন অভিযোগের শুনানী হয়।

জনগণকে হয়রানী ও অসাদাচরণ করার অভিযোগে সোলাদানা ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা নূর ইসলামকে শোকস এবং কয়েকজনের অভিযোগের ভিত্তিতে লস্কর ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা লতিফা খানমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফকরুল হাসান সরকারের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য বাস্তবায়ন ও সেবার মান বাড়ানোর কথা উল্লেখ করে বলেন, বিভিন্ন দপ্তরের অভিযোগের তদন্ত সহ ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) নির্দিষ্ট সময়-সীমার মধ্যে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে তদন্ত রিপোর্ট দাখিল করবেন বলে জানিয়েছেন।

 
 
 
   
  Print  
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
Study in RUSSIA
 
আরও খবর

 
 
 
 
 

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : নিন্দ্রা ভৌমিক

খবর প্রেরণ করুন # info.eibela@gmail.com

ফোন : +8801517-29 00 02

a concern of Eibela Foundation

Request Mobile Site

 

 

Copyright © 2018 Eibela.Com
Developed by: coder71