eibela24.com
বৃহস্পতিবার, ১৫, নভেম্বর, ২০১৮
 

 
নিজের বাল্যবিবাহ বন্ধ করতে সক্ষম হয়েছে তসলিমা
আপডেট: ০৮:৫৭ pm ১৯-০৯-২০১৭
 
 


ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার দুওসু উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেনীর মেধাবী ছাত্রী তসলিমা (১৪) নিজেই তার বিয়ে রুখে দিয়েছে।

এলাকাবাসী জানায়, তসলিমার বাবা-মা তার বাল্যবিবাহ দেয়ার চেষ্টা করে। এ অবস্থায় সে মঙ্গলবার স্কুলে গিয়ে প্রধান শিক্ষক আব্দুর রশিদকে বিষয়টি জানায়। পরে প্রধান শিক্ষক আব্দুর রশিদ উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল মান্নানকে মুঠোফোনে এ ব্যাপারে অবগত করেন। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নিজেই ওই স্কুলে গিয়ে তসলিমার কথা শুনেন। সে নির্বাহী অফিসারকে জানায়, আমাকে না জানিয়ে আমার বাবা-মা বিয়ে ঠিক করেছে। সোমবার বিয়ের দিন ঠিক করা হয়েছিল। কিন্তু আমি বাল্যবিয়ে করতে চাইনি বলে তারা আমাকে না জানিয়ে বিয়ের বন্দোবস্ত করেন। আমি এখন বিয়ে করতে চাই না, আমি পড়াশুনা করে জর্জ হতে চাই।পরে নির্বাহী অফিসার কিশোরী তসলিমার বাবা-মা কে বুঝিয়ে বিয়ে বন্ধের ব্যবস্থা করেন। এ দিকে বাল্যবিবাহের আয়োজন করায় মেয়ের বাবা কাশেম অঙ্গীকারনামা দিয়ে মুচলেকা দেন। 

স্কুলের প্রধান শিক্ষক আব্দুর রশিদ জানান, তসলিমা এখনো প্রাপ্ত বয়স্ক হয়নি। তা সত্ত্বেও তার বাবা-মা তাকে বিয়ে দেয়ার জন্য দিন তারিখ ঠিক করেছিল। এ অবস্থায় মেয়েটি আজ আমাকে বিষয়টি অবগত করলে আমি উপজেলা নির্বাহী অফিসার কে জানাই। মেয়েটির বাড়িতে লোক মারফত খবর দিলে তার বাবা-মা স্কুলে আসেন। তাদের বাল্যবিবাহের কু-ফল সম্পর্কে সচেতন করি এবং তিনি (নির্বাহী অফিসার) বিষয়টি বুঝিয়ে বিয়েটি বন্ধের ব্যবস্থা করেছেন।

 

এমএসএইচ/আরপি