eibela24.com
বুধবার, ২১, নভেম্বর, ২০১৮
 

 
গর্ভাবস্থায় মাইগ্রেন সমস্যার সমাধান
আপডেট: ১০:৩৫ am ১৩-১১-২০১৭
 
 


মেয়েদের ক্ষেত্রে মাইগ্রেনের সমস্যা বেশি দেখা যায়৷ ঋতুচক্রের আগে এবং পরে হরমোনের ওঠানামা, গর্ভনিরোধক বড়ি, বিশেষ কিছু খাবার যেমন চকোলেট, পনির ইত্যাদি মহিলাদের মাইগ্রেনের প্রধান করাণ হয়ে দাঁড়ায়৷ তবে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে গর্ভধারনকালীন সময়ে মহিলাদের মাইগ্রেনের প্রকোপ অনেকটাই কমে আসে৷ কিন্তু গর্ভাসবস্থায় যদি মাইগ্রেনের সময় যদি নারীদের মধ্যে মাইগ্রেনের প্রকোপ লক্ষ করা যায় তবে বিশেষ কিছু সতর্কতা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়৷

গর্ভবস্থায় মাইগ্রেনের জন্য অনেকেই গর্ভধারন হরমোনকে দোষ দিয়ে থাকেন৷ তবে হরমোন একমাত্র দোষী নয়৷ গবেষকেরা বলছেন, স্নায়ু পথ পরিবর্তন, মস্কিষ্কে কেমিক্যালের ভারসাম্য নষ্ট হওয়া এবং মস্কিষ্কে রক্তসংবহন বেড়ে গেলেও মাইগ্রেন দেখা দিতে পারে৷ এছাড়াও স্ট্রেস, ক্লান্তি, চড়া আলো, হট্টোগোল, অতিরিক্ত ঠান্ডা বা গরম পরিবেশ এবং যে খাবার গুলি গর্ভবস্থায় খাওয়া উচিত নয় সেগুলির কারণেও মাইগ্রেনের সমস্যা দেখা দিতে পারে৷

এছাড়াও রক্তে শর্করার পরিমাণ কম হলে এবং জলের পরিমাণ কমে হলেই মাথা ম্যথার প্রকোপ বাড়ে৷ তাই এই সময় কিছুসময় অন্তর কম পরিমাণে খাবার খাওয়া প্রয়োজনীয়৷ এছাড়াও পরিমিত জল এবং না চাইলেও সামান্য শর্করা জাতীয় খাবারও খেতে হবে৷ পর্যাপ্ত পরিমাণে বিশ্রামও প্রয়োজন৷ সাধারন মাইগ্রেনের ব্যথা প্রতিকার করা গেলেও গর্ভবস্থায় এটি প্রতিকার সাধারনত মুশকিল কারণ এই বিশেষ সময়ে বেশ কিছু ওষুধ চাইলেও সেবন করা যায়না৷ নিজের অজান্তেই যদি কেউ গর্ভকালীন অবস্থায় এই ধরণের ওষুধ সেবন করে ফেলেন তবে তার প্রভাব গর্ভজাত শিশুর উপরেও পড়তে পারে৷

গবেষকদের সমীক্ষায় দেখা গেছে অধিকাংশ মহিলাই গর্ভকালীন অবস্থায় মাইগ্রেনের আক্রান্ত হন না৷ তবে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা হওয়া মাত্রই চিকিৎসকের পরামর্শ একান্ত প্রয়োজনীয়৷

প্রচ