eibela24.com
সোমবার, ২৪, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
মিথ্যা মামলা দিয়ে হিন্দু পরিবারকে উচ্ছেদের হুমকি
আপডেট: ১২:৪৬ pm ১৫-০১-২০১৮
 
 


ফরিদপুর শহর সংলগ্ন বদরপুরে চলছে ভিটেমাটি দখল আতঙ্ক। জমি দখলে ব্যর্থ হয়ে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে সংখ্যালঘু একটি শিক্ষক পরিবারের সকলকে। প্রভাবশালীদের চাপে পুলিশও অসহায় হয়ে পড়েছে। এই ঘটনা নিয়ে ফরিদপুর শহরেও সংখ্যালঘুদের ভেতর চাপা আতঙ্ক কাজ করছে। কিন্তু নানা শঙ্কায় কেউই মুখ ফুটে কিছুই বলতে পারছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বদরপুরের এক ব্যবসায়ী জানান, দেড়-দুই বছর আগে বদরপুরের শিক্ষক বিকাশ সেন, তার দুই ভাই শিক্ষক প্রকাশ সেন ও পশু চিকিৎসক পাচু সেন তাদের পৈত্রিক ভিটেয় পাঁচ তলা ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেন। এলাকার একটি প্রভাবশালী হাইব্রিড চক্র ওই সময় নির্মাণ কাজে বাধা দেন। তারা তখন বাধাদানের কারণ হিসেবে জানিয়েছিলেন, আমাদের নিজেদের বাড়ি দুই তলা, আমরা আমাদের বাড়ির পাশে পাঁচতলা ভবন বানাতে দিতে পারি না। এই পর্যায়ে বিকাশ, প্রকাশ ও পাচু দুই তলার বেশি ভবন নির্মাণ করবেন না, এই মর্মে মৌখিক মুচলেকা দিয়ে আবার ভবনের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। সেই নির্মাণ কাজ এখনো চলছে। এই অবস্থায় গত সপ্তাহে এক হাইব্রিড নেতা ভবন নির্মাণ কাজে ফের বাধা দেন এবং তাদের বসত ভিটে বিক্রি করে অন্যত্র চলে যাওয়া পরামর্শ দেন। শিক্ষক পরিবারটি ভিটেমাটি বিক্রির প্রস্তাবে সম্মত না হওয়ায় ওই পরিবারটির বিরুদ্ধে একই এলাকার জনৈক সূর্য দাসকে দিয়ে ফরিদপুরের কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা দায়ের করানো হয়। পুলিশকেও প্রভাবিত করা হয়, ওদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে। পুলিশ ওই মামলা সূত্রে গত ১২ জানুয়ারি শুক্রবার আওয়ামীলীগ সরকারের চতুর্থ বছর পূর্তির দিন দুপুরে বিকাশ ও প্রকাশকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। 

অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, শিক্ষক ওই দুই ভাইকে প্রথমে থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। তারা বসত ভিটের জমি বিক্রিতে সম্মত না হওয়ায় পরে ওই সাজানো মামলার আয়োজন করা হয়। ওই মামলায় কারা কারা আসামী এটা জানা যায়নি এবং শিক্ষক দুই ভাইয়ের সাথে তাদের স্বজনদের দেখা করতে দেওয়া হয়নি। শনিবার বিকেলে ওই সাজানো মামলায় সহোদর দুই শিক্ষককে ফরিদপুর জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। 

সূত্রটি আরও জানায়, ওই মামলায় বিকাশ সেন, প্রকাশ সেন ও পাচু সেন ছাড়াও আরো অন্তত ৫/৭ জন অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তিকে আসামি করা হয়। এই প্রসঙ্গে ওই সূত্রটি আরও জানান, অতি সম্প্রতি বিকাশ সেনদের বাড়ির পাশের অন্য আরেক ভূমি মালিককে বাধ্য করা হয় তার বসতবাড়ি নির্মাণের জন্য কিনে রাখা ১৩ শতাংশ জমি বিক্রি করতে। 

এ ব্যাপারে শনিবার দুপুরে ফোনে বলেন ফরিদপুরের কোতোয়ালি থানার অফিসার ইন চার্জ মোঃ নাজিম উদ্দিনের সাথে। তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সূর্য দাস নামের এক ব্যক্তির দায়ের করা চাঁদাবাজির একটি মামলায় বিকাশ সেন ও প্রকাশ সেনকে আটক করা হয়েছে। পরে সম্পাদক সর্বশেষ অবস্থা জানতে আবার ফোন করেন কোতোয়ালি থানার অফিসার ইন চার্জ মোঃ নাজিম উদ্দিনকে। এবার পরিচয় পেয়েই তিনি মিটিংয়ে ব্যস্ত বলেই ফোনের লাইন কেটে দেন। ফরিদপুরের জেলা প্রতিবেদক বেশ কয়েকবার ফোন করেও মামলার বাদি সূর্য দাসের সঙ্গে কথা বলতে পারেননি।

প্রচ