eibela24.com
শুক্রবার, ২১, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
হিন্দু সমাজকে অস্ত্রহীন করে দুর্বল করা হয়েছে: দিলীপ ঘোষ
আপডেট: ০৬:৪০ pm ২৮-০৩-২০১৮
 
 


রামনবমীর শোভাযাত্রায় বিভিন্ন জায়গাতে কিশোরদের হাতে অস্ত্র দেখতে পাওয়া যায়। এ নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করে বিভিন্ন রাজনৈতিক মহলে। বিতর্কও হয়। আর এই ঘটনাকে সমর্থন করে BJP রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, ছোটো থেকে শ্রীকৃষ্ণ ও রাম তির ধনুক নিয়ে খেলেছেন। অর্থাৎ এটা আমাদের পরম্পরা।

মঙ্গলবার নদিয়ার ভীমপুরের একটি কর্মীসভায় রামায়ণ-মহাভারতের প্রসঙ্গ টেনে এনে দিলীপ ঘোষ বলেন, “আমাদের দেশে ইতিহাসে বালক বিদ্রোহের কথা বলা হয়েছে। এমনকী নিজেদের সম্মান রক্ষার্থে হাতে অস্ত্র তুলে নিয়েছেন মা-বোনেরা। লব কুশের ইতিহাসও আমরা জানি। মহারাজ ভরত ছোটোবেলা থেকেই সিংঘের সঙ্গে লড়াই করতেন। তাকে দেখলে তো আমরা কেউ ভয় পাই না। বরং আনন্দিত হই। ওইরকম সুপুরুষ বীরপুরুষ চাই। ছোটো থেকে শ্রীকৃষ্ণ ও রাম তির ধনুক নিয়ে খেলেছেন। অর্থাৎ এটা আমাদের পরম্পরা। আর আজ এসব নিয়ে প্রশ্ন উঠছে কেন ?” 

তিনি আরও বলেন, “হিন্দু সমাজকে অস্ত্রহীন করে দুর্বল করা হয়েছে। তাই দেশভাগ হয়েছে। মা-বোনেদের সম্মান নষ্ট হচ্ছে। সরকার যখন মানুষকে সুরক্ষা দিতে পারে না, সম্মান রক্ষা করতে পারে না। তখনই সমাজের লোক হাতিয়ার ধরে নেয়। এটা সরকারের বিফলতা। সরকার যদি নিজের কাজ ঠিক করে তাহলে এই ধরনের ঘটনা ঘটবে না।” 

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “উনি কোন রামের কথা বলছেন আমি জানি না। সেই জন্য বলেছিলাম যারা থ্রি এক্স রামের ভক্ত তারা এই রামকে চিনতে পারবে না। ছোটো থেকেই রামের হাতে অস্ত্র রয়েছে। এমনকী দেবী-দেবতা সবার হাতেই অস্ত্র রয়েছে। আসলে উনি তো এতদিন নমাজ পড়তেন, তাই ব্যাপারটা বুঝতে পারছেন না।” 

দিলীপ ঘোষ আরো বলেন, “তৃতীয় ফ্রন্ট, চতুর্থ ফ্রন্ট এসব কিছুই হবে না। আসলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সবাই গ্যাস দিচ্ছে। বলছে আসুন প্রধানমন্ত্রী করে দেব। আর এবার প্রধানমন্ত্রী হতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর পদই না চলে যায়।” 

নি এম/