eibela24.com
রবিবার, ২৩, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
ধর্মের নামে যারা মানুষ হত্যা করে তারা অমানুষ: আসাদুজ্জামান নূর
আপডেট: ০৯:৩০ pm ১০-০৫-২০১৮
 
 


সংস্কৃতি মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, বাঙালি জাতির অসাম্প্রদাইক চেতনাই সৃষ্টি করেছিলেন বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। বঙ্গবন্ধুও ঠিক ওই কাজটিই করেছেন। রবীন্দ্রনাথ তার সাহিত্যকর্ম দিয়ে বাঙালি জাতিকে বিশ্বে পরিচয় করিয়েছেন। আর বঙ্গবন্ধু সেই চেতনায় জাতিকে উদ্বুদ্ধ করে এ দেশের মানুষকে মুক্তি দিয়েছেন। তিনি বলেন, ধর্মের নামে যারা মানুষ হত্যা করে তারা মানুষ নামের অমানুষ। 

জঙ্গীবাদ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, একাত্তরেও জঙ্গীবাদ ছিল। তারা ধর্মের নামে এ দেশের নিরিহ মানুষকে হত্যা করেছে। মা বোনদের ইজ্জত হরণ করেছে। ওই একই শক্তি পরবর্তীতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবর রহমানকে হত্যা করেছে। ওই একই শক্তি প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বারবার হত্যার চেষ্টা করেছে। কিন্তু তাদের সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

সেই একই শক্তি ধর্মের নামে জঙ্গীবাদ সৃষ্টি করে বিদেশী সহ প্রায় ৩০ জনকে হত্যা করেছে। অন্তঃস্বত্বা নারীও তাদের হাত থেকে রেহাই পায়নি। তিনি বলেন সংস্কৃতি চর্চাই পারে আমাদের এ সব বিপথগামী তরুণ প্রজন্মকে সঠিক পথ দেখাতে। এ জন্য আমাদের বেশি করে সংস্কৃতি চর্চা করতে হবে। সংস্কৃতি চর্চা মানুষকে পরিশিলিত করে। বিপদে মানুষকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়ার শিক্ষা দেয়। মানুষকে ভালবাসতে শিখায়। এ সবের সব কিছুই রবীন্দ্র সাহিত্যে উঠে এসেছে। তাই রবীন্দ্রনাথকে বেশি করে চিনতে হবে জানতে হবে। তার লেখা বেশি করে পড়তে হবে। তিনি আরো বলেন,এখন তরুণদের সংস্কৃতি চর্চা করা খুবই জরুরী।
 
বুধবার দুপুরে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরের রবীন্দ্র কাছারিবাড়ি মিলনায়তনে বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ১৫৭তম জন্মবার্ষিকী  উদযাপন উপলক্ষে আয়োজিত ২ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সমাপনী দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ সব কথা বলেন। সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক কামরুন নাহার সিদ্দিকার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় এমপি হাসিবুর রহমান স্বপন,ডাঃ হাবিবে মিল্লাত মুন্না এমপি ও পাবনা-সিরাজগঞ্জ সংরক্ষিত মহিলা আসনের এমপি সেলিনা বেগম স্বপ্না।

উক্ত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ড. প্রফেসর বিশ্বজিৎ ঘোষ, শাহজাদপুর উপজেলা চেয়ারম্যান প্রফেসর আজাদ রহমান, সিরাজগঞ্জ পুলিশ সুপার মিরাজ উদ্দিন আহমেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সৈয়দ ইরতিজা  আহসান, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক আবু নূর মোহাম্মদ শামসুজ্জামান প্রমূখ। পরে এ অনুষ্ঠানে সমবেত সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করেন স্থানীয় ও ঢাকার শিল্পীবৃন্দ। 

এ ছাড়া দুদিন ব্যাপী এ উৎসবকে ঘিরে শাহজাদপুর হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত গ্রামীণ মেলায় দর্শকদের ব্যাপক সমাগম ঘটে।

নি এম/ চন্দন