eibela24.com
শুক্রবার, ১৬, নভেম্বর, ২০১৮
 

 
 একের পর এক রোগী মারা যাচ্ছে
নড়াইল সদর হাসপাতালের স্টোরেই নষ্ট হচ্ছে সাপে কাটার ওষুধ
আপডেট: ০৪:০৯ pm ০৪-০৬-২০১৮
 
 


হাসপাতালের স্টোরেই নষ্ট হচ্ছে, সাপে কাটা রোগীর চিকিৎসার জন্য সরবরাহ করা ওষুধ। অথচ গত ৫ বছরে একজন সাপে কাটা রোগীরও চিকিৎসা হয়নি, নড়াইল সদর হাসপাতালে। স্থানীয়দের অভিযোগ, এই হাসপাতালে সাপেকাটা কোনো রোগী এলে পাঠিয়ে দেয়া হয় খুলনা বা যশোর। যদিও প্রশিক্ষিত চিকিৎসক না থাকাকে দায়ী করছে, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

গত ৫ বছরে নড়াইল জেলায় সাপে কামড়ে মারা গেছে অন্তত শ’খানেক রোগী। যার মধ্যে অন্তত ৫০ জন সদর হাসপাতালে এসে চিকিৎসা না পেয়ে  মারা গেছে। সর্বশেষ ১ জুন রাতে সাপে কেটে মেরে ফেলে দুইজনকে। সদর হাসপাতালে আসার পর চিকিৎসা না পেয়ে এদের মৃত্যু হয়। এদের একজন কালিয়া উপজেলার কালডাঙ্গা গ্রামের ওহিদুল মোল্যার ছেলে ১৩ বছরের শিশু সামিউল। অপরজন লোহাগড়া উপজেলার নলদী ইউনিয়নের নালিয়া গ্রামের বিশ্বজিত দে’র ছেলে শান্ত দে (৩৫)। 

১ জুন সন্ধ্যা ৭টার দিকে সাপে কাটার পরে সদর হাসপাতালে ভর্তি হন শান্তু দে। এর কিছুক্ষন পরেই তিনি মারা যান। সাড়ে ৭টার দিকে চিকিৎসা নিতে আসেন সামিউল, তাকে ভর্তিও করা হয়। হাসপাতালে এসে চিকিৎসকের কাছে এন্টিভেনাম নাই এই কথা শুনে এবং অপর রোগীর মৃত্যুর কথা জানতে পেরে তারা হাসপাতাল ত্যাগ করে।

সামিউলের পরিবার জানায়, সন্ধ্যার দিকে স্থানীয় মাঠে খেলতে গিয়ে সাপে কাটে সামিউলকে। এর পরপরই ভ্যানে করে তাকে নড়াইল সদর হাসপাতালে আনা হলে জরুরী বিভাগে কোন চিকিৎসক পাওয়া যায়নি। এসময় চিকিৎসকের সহকারী মহিলার কাছ থেকে তারা জানতে পারেন যে, এই হাসপাতালে সাপেকাটা ইনজেকশন নাই। অন্য একজন সাপেকাটা রোগীর মৃত্যুর খবর পেয়ে হাসপাতাল থেকে বেরিয়ে যান। ধোপাখোলা মোড়ে এসে ওঝার সন্ধান পাওয়া যায়। সেখানে ৩ জন ওঝা মিলে আধাঘন্টা চিকিৎসার পরে  মারা যায় সামিউল।

এই দুইজন রোগী মৃত্যূর ক্ষেত্রে সদর  হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তাদের কাছে সাপের কামড়ের  এন্টিভেনাম না থাকার অযুহাত দিলেও নড়াইল  সদর হাসপাতালে  গত ৫ বছরে মেয়াদউত্তীর্ন হয়ে স্টোরে  নষ্ট হয়েছে ৮’শ এন্টিভেনাম। অনুসন্ধানের পর এসব তথ্য বেরিয়ে আসলেও দায় নেয়নি কেউ। চিকিৎসকদের দুই ধরনের বক্তব্যে সদর হাসাপাতালের এই বিষয়ের  চিকিৎসায় আরো হতাশ  হয়ে পড়ছেন স্থানীয়রা।

২০১৩ সাল থেকে ২০১৭ পর্যন্ত ৫ বছরে সাপেকাটা রোগীদের চিকিৎসার জন্য সরকারিভাবে সরবরাহকৃত ৮’শ ঔষধ নড়াইল সদর হাসপাতালের স্টোরে থেকে নষ্ট হয়েছে। পর্যাপ্ত ওষুধ সরবরাহ থাকলেও কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় নড়াইল আধুনিক সদর হাসপাতালে গত ৫/৬ বছরে একটিও সাপেকাটা রোগীর চিকিৎসা হয়নি। সদর হাপাতালের স্টোরে থাকা সরকারিভাবে সরবরাহকৃত এন্টিভেনাম নামের ঔষধের চিত্র। যার সবই ২০১৭ সালের অক্টোবরে মেয়াদউত্তীর্ন হয়ে গেছে।

নি এম/রুপক