eibela24.com
বৃহস্পতিবার, ১৫, নভেম্বর, ২০১৮
 

 
ঝিনাইদহে দুই বছরেও শুরু হয়নি সেবায়েত শ্যামানন্দ দাস হত্যা মামলার বিচার
আপডেট: ০৫:২৮ pm ০৩-০৭-২০১৮
 
 


জঙ্গিদের হাতে ঝিনাইদহ সদর উপজেলা উত্তর কাস্টসাগরা গ্রামের মদন গোপাল মঠ ও মন্দিরের সেবায়েত শ্যামানন্দ দাস বাবাজী হত্যাকাণ্ডের দুই বছর পেরিয়ে গেলেও বিচার কাজ শুরু হয়নি। তার হত্যার বিচার শুরু না হওয়ায় এলাকার মানুষের মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১ জুলাই সেবায়েত শ্যামানন্দ দাস বাবাজী মঠের সামনের বাগান থেকে পূজার ফুল তুলছিলেন। এ সময় জঙ্গিরা মোটরসাইকেলে চড়ে এসে তাকে কুপিয়ে হত্যার পর পালিয়ে যায়। ওইদিন রাতেই মঠ মন্দির পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুবোল চন্দ্র ঘোষ ঝিনাইদহ সদর থানায় মামলা দায়ের করেন। 

২০১৭ সালের ১৩ জুন তদন্তকারী কর্মকর্তা সদর থানার এসআই মো. আলাউদ্দিন তিনজনের নামে চার্জশিট দাখিল করেন।

আসামিরা হচ্ছে, শৈলকুপা উপজেলার ফুলহরি চরপাড়া গ্রামের আমিরুল ইসলামের ছেলে শাহীন আলম ( ২২), ঝিনাইদহ সদর উপজেলার লক্ষ্মীকোল গ্রামের ইসরাইল হোসেনের ছেলে আলি আজম ( ২৮ ) ও সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার রামনগরপুর গ্রামের শরিফুল ইসলামের ছেলে আনোয়ার হোসাইন ( ২৬ )। এদের মধ্যে আলি আজম ও আনোয়ার হোসাইন পলাতক রয়েছে। শাহীন আলম গ্রেফতারের পর জেলে আটক আছে। তবে এখনো মামলার বিচার শুরু হয়নি।

ঝিনাইদহের কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক ফিরোজা কুলসুম জানান, পলাতক আসামিদের আদালতে হাজির হওয়ার বিজ্ঞপ্তি সংবাদপত্রে প্রচারিত হয়েছে। তিনি আশা করেন শীঘ্রই এ মামলার বিচার কাজ শুরু হবে।

মঠ মন্দিরের বর্তমান সভাপতি নিরঞ্জন বিশ্বাস বলেন, ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত ভয়ে কেউ সেবায়েত হতে রাজি হচ্ছে না। তিনি মামলার দ্রুত বিচার শেষ করে দোষিদের শাস্তি দাবি করেন।

নি এম/