eibela24.com
বৃহস্পতিবার, ২০, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
একুশে পদকের টাকা দিয়ে ক্যানসারের চিকিৎসা চালাচ্ছেন সুজেয় শ্যাম
আপডেট: ১০:২৭ am ২২-০৭-২০১৮
 
 


স্বাধীনতা অর্জনের ৪৫ বছর পর সম্প্রতি মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি পেয়েছেন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক সুজেয় শ্যাম। গত বছর এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় সম্মান একুশে পদকে ভূষিত করা হয়।

এই বীর মুক্তিযোদ্ধা-সঙ্গীতশিল্পী এখন দূরারোগ্য ক্যানসারে আক্রান্ত। একুশে পদকের সনদ-ক্রেস্টের সঙ্গে দুই লাখ টাকা পেয়েছিলেন তিনি। সেই টাকা দিয়েই চলছে তার চিকিৎসা। এমনটাই গণমাধ্যমকে জানান সুজেয় শ্যাম।

সুজেয় শ্যাম বলেন, ‘একুশে পদকের সঙ্গে দুই লাখ টাকা পেয়েছিলাম। সেই টাকা আর আগের কিছু জমানো টাকা দিয়ে আমার চিকিৎসা চলছে। আমি কোনো সরকারি ভাতা পাই না। আমি কোনোদিন চাকরিও করিনি। গান করেই যা আয় করেছি, সেটা দিয়েই চলেছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘তিন মাস পরপর কলকাতায় গিয়ে একটি করে ইনজেকশন নিতে হয়। প্রতিটা ইনজেকশনের দাম ২৬ হাজার টাকা। আমার যা সঞ্চয় ছিল, সেখান থেকেই খরচ করছি। বেশ কয়েক লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। আগামী ৪ আগস্ট আবারও বেঙ্গালুরে যাচ্ছি।’

কিছুদিন আগে শারীরিক পরীক্ষার জন্য ভারতের বেঙ্গালুরু যান সুজেয় শ্যাম। সেখানে চিকিৎসকেরা তাঁকে এমআরআই করার পরামর্শ দেন। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থ না থাকায় চিকিৎসা অসম্পূর্ণ রেখেই দেশে ফিরে আসেন। দেশে ফেরার কিছুদিন পর সুজেয় শ্যামের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ঢাকার একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টার থেকে এমআরআই পরীক্ষা করান। এরপর তাঁর প্রোস্টেটে ক্যানসার ধরা পড়ে।

স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শেষ গান এবং পাকিস্তানের হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের পর প্রথম গানের সুর করেন সুজেয় শ্যাম।  তাঁর বিখ্যাত গানগুলোর মধ্যে রয়েছে ‘বিজয় নিশান উড়ছে ওই’, ‘রক্ত দিয়ে নাম লিখেছি’, ‘রক্ত চাই রক্ত চাই’, ‘আহা ধন্য আমার জন্মভূমি’, ‘আয়রে চাষি মজুর কুলি’, ‘মুক্তির একই পথ সংগ্রাম’ ও ‘শোনরে তোরা শোন’।

সুজেয় শ্যাম ১৯৪৬ সালের ১৪ মার্চ সিলেটে জন্মগ্রহণ করেন। বর্তমানে ঢাকার মিরপুরে বসবাস করছেন বরেণ্য এই সঙ্গীত পরিচালক।

নি এম/