eibela24.com
শুক্রবার, ২১, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
আবারো ডিমলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ী ও মন্দির ভাঙচুরসহ অগ্নিসংযোগ
আপডেট: ০২:৩৫ pm ১০-০৯-২০১৮
 
 


নীলফামারীর ডিমলায় জমি জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে হিন্দু সম্প্রদায়ের রাধা কৃষ্ণের মন্দির, প্রতিমা ভাঙচুর ও বাড়িতে অগ্নি সংযোগের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে হিরা লাল ভুঁইমালি (১৫) নামের এক কিশোর গুরুতর আহত হয়েছে। তাকে ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। 

শুক্রবার সকালে ডিমলা উপজেলা সদরের বাবুরহাট শিব মন্দির পাড়া গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। 

হিরালালের মা বাসন্তী ভুঁইমালী (৪৫) অভিযোগ করে বলেন, আমার স্বামী নারায়ন ভুঁইমালির মৃত্যুর পর প্রায় ১০ বছর যাবৎ ছেলে সন্তান নিয়ে স্বামীর বসতভিটায় বসবাস করে আসছি।

শুক্রবার সকালে খগাখড়িবাড়ি ইউনিয়নের বন্দর খড়িবাড়ি গ্রামের মৃত তমদ্দিনের ছেলে আতাউর রহমান (৪৫) ও ডিমলা সদরের বাবুরহাট শিব মন্দিরপাড়া গ্রামের মৃত চাটি মামুদের ছেলে মহুবার রহমানসহ (৫০) ২০ থেকে ২৫ জন লোক আমার বাড়ি দখলের উদ্দেশে হামলা চালায়। এ সময় গাছপালা কাটতে থাকলে আমি বাড়িতে না থাকায় আমার ছেলেরা বাধা দেয়। বাধা দিতে গেলে ছেলে হিরা লাল ভুঁইমালিকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। খবর পেয়ে দ্রুত বাড়িতে এসে তাকে ডিমলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করাই। এ সময় তারা আমার বাড়ি, রাধা কৃষ্ণের মন্দির ও মূর্তি ভাঙচুরসহ অগ্নিসংযোগ করে। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

হিরালালের বড়ভাই কৈলাস ভুঁইমালি (২০) বলেন, জমির কাগজপত্র আমাদের নামে। এরপরও কেনার নাম করে তারা দখল নিতে আসে। বাধা দিলে আমাদেরকে আহত করে ভাঙচুর করে আগুন লাগিয়ে দেয়। এখন আমরা খোলা আকাশের নিচে আছি।

এ ঘটনায় কথা বলতে গেলে আতাউর রহমানকে পাওয়া যায়নি। তবে তার স্ত্রী মোসুমি আক্তার (৪৮) বলেন, দুই বছর আগে ওই স্থানে ১১ শতক জমি আমরা ধীরেন ভুঁমালির কাছ থেকে কিনেছি। দুইমাস আগে রেজিস্ট্রি হলে শুক্রবার ধীরেন আমাদেরকে জমি বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য ঢেকে নেয়। এ সময় ওই জমিতে থাকা একটি গাছ কাটার সময় গাছের ডাল পড়ে হিরালালদের ঘরটি ভেঙে যায়। অগ্নি সংযোগ, মন্দির ও মূর্তি ভাঙচুরের ঘটনাটি তারা নিজেরাই ঘটিয়েছেন। আমাদেরকে ঘায়েল করার জন্য হিরালালকে তার মা বাসন্তী নিজে কুপিয়ে আহত করেছে।

এ ব্যাপারে ডিমলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মফিজ উদ্দিন শেখ বলেন, সেখানে তেমন কোনো ঘটনা ঘটেনি, তাদের মধ্যে জমি জমা নিয়ে বিরোধ ছিল। সকালে আতাউর গাছ কাটলে পেয়ারা গাছের ডাল পড়ে পুরনো মন্দির ঘরের চালা ভেঙ্গে পড়েছে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হিরা লাল ভুঁইমালী আহত হয়, সে এখন সুস্থ আছে। এ ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি।

নি এম/