eibela24.com
বুধবার, ০২, ডিসেম্বর, ২০২০
 

 
মুসলিম ছেলে হিন্দু সেজে হিন্দু মেয়ের সাথে প্রেম; অতপর...
আপডেট: ১২:১০ am ২২-০৫-২০২০
 
 


মাদারীপুর সদর মডেল থানার এসআই প্রশিক্ষনকালীন অনিমা বাড়ৈকে গলা কেটে হত্যার চেষ্টা করেন কথিত এক প্রেমিক! ৪২ দিন পর সোমবার দিবাগত রাত দেড়টার দিকে সাভারের যাদুরচর এলাকা থেকে কথিত প্রেমিক জাকির/বাতেন/রনবীরকে (২৮) গ্রেপ্তার করেছে মাদারীপুর পুলিশ।

কথিত প্রেমিক জাকির নাম এবং ঠিকানা গোপন করে বাতেন ও রনবীর নাম ব্যবহার করতো অনিমার কাছে! কথিত প্রেমিক গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা থানার শিমুলবাড়ী এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে। 

গত মঙ্গলবার (১৯ মে) মাদারীপুর পুলিশ সুপার কার্যালয়ের সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অপরাধ ও প্রশাসন আব্দুল হান্নান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল মোহাম্মদ বদরুল আলম মোল্লা ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান ফকিরসহ গণমাধ্যমকর্মীরা।

মাদারীপুর পুলিশ মোঃ মনিরুজ্জামান সুপার জানান, কথিত প্রেমিক মোঃ জাকির হোসেন সে নাম পরিবর্তন করে অনিমার সাথে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে তোলে, যখন অনিমা জানতে পারে সে মুসলিম, তার সাথে প্রতারনা করছে তখন তাকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করে।

উল্লেখ্য, গত ৫ এপ্রিল রাতে কৌশলে অনিমাকে মাদারীপুর শহরের "শকুনিলেক" পাড়ের দৃশ্য মোবাইলে দেখবে বলে লেকের পাড়ে এসে ভিডিও কল করতে বলে, কথিত প্রেমিক জানিয়েছিল সে ঢাকায় আছে তাই মোবাইলে দেখবে কিন্তু জাকির হোসেন আগে থেকেই ওখানে ওৎ পেতে ছিল! অনিমাকে হত্যা করার জন্য এবং অনিমা সদর মডেল থানা থেকে ডিউটি শেষে লেকপাড় আসার সাথে সাথে পিছন থেকে তাকে ধরে গলায় ছুরি দিয়ে আঘাত করে এবং মৃত্যু নিশ্চিত হয়েছে ভেবে চলে যায়।

এসময় স্থানীয় লোকজন আহত অনিমাকে উদ্ধার করে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখান থেকে পুলিশ তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রাতেই বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে। রাতেই তার গলায় অপারেশন হয়। ঐ সময় ঘটনাস্থল থেকে একটি ছুরি ও এক জোড়া স্যান্ডেল উদ্ধার করা হয়। পরদিন তার ছোট ভাই কপিল বাড়ৈ মাদারীপুর সদর থানায় একটি মামলা করেন। এরপর মাদারীপুর সদর মডেল থানার এসআই সুমন কুমার আইচ বিভিন্নসময় তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রথমে আসামীর শ্যালক নাইমকে আটক করে, এরপর তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে ঐ ঘটনার ৪২দিন পর ঢাকা জেলার সাভারের হেমায়েতপুরের যাদুরচর এলাকা থেকে আসমী অনিমা হত্যার চেষ্টাকারী জাকির হোসেনকে গ্রেফতার করে।

অনিমা বাড়ৈর বাড়ী গোপালগঞ্জ জেলার ভাঙ্গারহাট এলাকায়। গত ৪ মাস পূর্বে অনিমা বাড়ৈ মাদারীপুর সদর মডেল থানায় পিএসআই হিসেবে যোগদান করেন। বর্তমানে অনিমা বাড়ৈ সুস্থ হয়ে মাদারীপুর সদর মডেল থানা যোগদান করে উিউটি করছে। 

নি এম/