eibela24.com
শুক্রবার, ০৪, ডিসেম্বর, ২০২০
 

 
জাতিসংঘে শান্তির বার্তা চীনের!
আপডেট: ০৮:৪১ pm ২৩-০৯-২০২০
 
 


লাদাখ সীমান্তে উত্তেজনার মধ্যে চীন কোনো ধরনের যুদ্ধে আগ্রহী নয় বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

মঙ্গলবার ভারতকে পরোক্ষে বার্তা দিয়ে জাতিসংঘের সাধারণ সভায় এ কথা বলেন চীনের প্রেসিডেন্ট। 

এমন একটা সময়ে চীনা প্রেসিডেন্ট জাতিসংঘে এই ভাষণ দিলেন, যখন পূর্ব লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর অঞ্চলে চরম উত্তেজনাপূর্ণ আবহ তৈরি হয়ে রয়েছে। সংঘাতের আশঙ্কায় দু-পক্ষই সেনা জড়ো করে রেখেছে।

শি জিনপিং বলেন, ঠান্ডা যুদ্ধ বা রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের কোনও ইচ্ছা নেই। আমরা আলোচনার মাধ্যমে অন্যদের সঙ্গে মতবিরোধ মেটাতে বা বিরোধের সমাধান করতেই পছন্দ করি। চীন বিশ্বব্যাপী শান্তিপূর্ণ, উন্মুক্ত, সমবায় ও সাধারণ উন্নয়নে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ বৃহত্তম উন্নয়নশীল দেশ। আমরা কখনোই আধিপত্য, প্রসার বা প্রভাব বাড়ানোর পক্ষপাতী নই।

সীমান্ত উত্তেজনায় দু'দেশের বিমান বাহিনী ঘাঁটিওগুলিও যে কোনও পরিস্থিতি মোকাবিলায় তৈরি রয়েছে। কূটনৈতিক থেকে সামরিক নানা পর্যায়ে একাধিকবার দু-দেশের মধ্যে বৈঠকের পরেও লাদাখে উত্তেজনা কমেনি। আলোচনায় দু-পক্ষই সেনা সরিয়ে নেওয়ার কথা বললেও চীন শেষ পর্যন্ত সে কথা রাখেনি। নামমাত্র কয়েকটি জায়গায় সেনা সরালেও দেখা গিয়েছে অন্যত্র বাড়িয়েছে। ফলে পূর্ব লাদাখে গালওয়ান সংঘাতের কয়েক মাস পরেও উত্তেজনা আবহের এতটুকু বদল হয়নি।

গত জুনে লাদাখে চীনা বাহিনীর আগ্রাসনের পর থেকে সীমান্তে উত্তেজনা চরমে। একাধিকবার ছোটখাটো সংঘর্ষে জড়িয়েছে দুই দেশের সেনাবাহিনী। সংঘাতে ২০ ভারতীয় সেনা প্রাণ হারিয়েছে। 

শি জিনপিং ছাড়াও মঙ্গলবার জাতিসংঘের অধিবেশনে বক্তব্য রাখেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং ব্রাজিলের রাষ্ট্রপতি জাইর বলসোনারো। রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি পুতিনও উপস্থিত ছিলেন। ইউএনজিএ ঐতিহ্যগতভাবে দেশগুলিকে সাফল্য অর্জন, পারস্পরিক সমর্থন, প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে বিরত রাখা এবং বিশ্বব্যাপী অগ্রাধিকার সম্পর্কে মতামত প্রকাশের প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করে।

নি এম/