eibela24.com
বুধবার, ২৬, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
বগুড়ার চন্দনা টিয়া পাখির কৃত্রিম প্রজনন আবাসস্থল ঝুলিয়ে দিল ওয়েষ্ট বাংলাদেশ
আপডেট: ০৩:২৪ pm ১২-১১-২০১৬
 
 


বগুড়া প্রতিনিধি : গ্রামের নাম বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার ডেমাজানী।বিরল প্রজাতির চন্দনা টিয়ার অভয়ারণ্য হিসেবে অভয়ারন্যস্থল এ গ্রামটি ইতোমধ্যেই  বেশ আলাদা পরিচিতি ও সুনাম পেয়েছে।

বিরল প্রজাতির চন্দনা টিয়া পাখির শতবর্ষী মেহগনি গাছে প্রজনন আবাসস্থল বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাঠের গুড়ি দিয়ে তৈরি কৃত্রিম প্রজনন আবাসস্থল ঝুলিয়ে দিয়েছে পরিবেশবাদি সংগঠন ওয়াইল্ড লাইফ এন্ড এনভাইরনমেণ্ট সেভ টীম (ওয়েষ্ট) বাংলাদেশ নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী প্রতিষ্ঠান।

শুক্রবার(১১ নভেম্বর) উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরকার বাদল প্রধান অতিথি হিসেবে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন।

এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওয়েষ্ট’র নির্বাহী পরিচালক সহযোগী অধ্যাপক এস.এম ইকবাল, ওয়েষ্ট’র ডেমাজানী শাখার সভাপতি মোফাজ্জল হোসেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল মান্নান, বিমান, ইয়াছিন আলী, মিজানুর রহমান, আজিজার রহমান, বগুড়া বার্ড ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক তৌহিদ পারভেজ বিপ্লব, ওয়াইল্ড লাইফ ফটোগ্রাফার আদনান আজাদ আসিফ, আহসান হাবিব, অনিক প্রমুখ।

ওয়েষ্ট’র নির্বাহী পরিচালক বগুড়া সরকারী শাহ সুলতান কলেজের প্রাণীবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এস.এম ইকবাল জানান, ২০১০ সালে ডেমাজানী বন্দরে শতবর্ষী মেহগণি গাছে বিরল প্রজাতির ১ জোড়া চন্দনা টিয়া  দেখতে পান তিনি।

এরপর থেকেই তিনি চন্দনা টিয়া সংরক্ষণ ও এর বংশ বৃদ্ধিতে কাজ শুরু করেন।পাখির খাবার উৎপাদনে মেহগনি গাছের পাশে সূর্যমুখির চাষ করেন।

এছাড়া পাখির বসবাস ও প্রজননের সুবিধার জন্য মাটির কলস এবং কাঠের বাক্স দিয়ে বাসা  তৈরি করে গাছে ঝুলিয়ে দেন।এতে ওই ১ জোড়া চন্দনা থেকে এখন ৬ জোড়া চন্দনা টিয়ে হয়েছে।

চন্দনার প্রজননের পথ আরও সুগম করতে কাঠের গুড়ি দিয়ে মোট ৩০টি কৃত্রিম প্রজনন আবাসস্থল তৈরি করে গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়েছে।


এইবেলাডটকম/দীপক/এফএআর