eibela24.com
শুক্রবার, ২১, সেপ্টেম্বর, ২০১৮
 

 
রায়গঞ্জের ব্রহ্মগাছায় ২টি সড়কের বেহাল দশা
আপডেট: ০৩:৫৫ pm ২৯-১১-২০১৬
 
 


সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার ব্রহ্মগাছা ইউনিয়ন একটি অবহেলিত জনপদের নাম। এ ইউনিয়নে অর্ধশত গ্রামে বসবাসের লোক সংখ্যা ৮০ হাজার।

উপজেলা শহরে আসা যাওয়া ও কৃষিপণ্য আনা-নেয়ার ক্ষেত্রে চাঁদপুর থেকে ভাতহাড়িয়া হয়ে পাঙ্গাসী ও বামনভাগ থেকে ধর্মদাসগাতী দিয়ে লক্ষিকোলা রাস্তা ব্যবহার করে এ অঞ্চলের বাসিন্দারা কিন্তু দুটি রাস্তা খানা খন্দের কারনে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে।

রায়গঞ্জ উপজেলার নিবার্হী অফিস সুত্রে যানা যায় ২০০৪/২০০৫অর্থ বছরে এলজিইডি অর্থায়নে প্রায় ১১ কিঃমিঃ রাস্তা নির্মান করা হয়। সড়ক দুটি দীর্ঘ একযুগেও মেরামতের আচঁড় পড়েনি।

বন্যায় ডুবে থাকার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ হয় ব্যাপক ভাবে। যে কারনে সড়ক দুটির কার্পেটিং উঠে গিয়ে নিচের ইটের খোয়া দাত ভেংচি দিয়ে আছে। সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের।

বেহাল সড়ক দিয়ে মালামাল আনা নেয়া, কৃষি পণ্য ক্রয় বিক্রয় সহ সাধারন পথচারীরা প্রতিনিয়ত ছোট বড় দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। জটিল রুগী আনা নেয়ার ক্ষেত্রে এ্যামবুলেন্স ও বড় ধরণের অগ্নিকান্ডে ব্যবহিত দমকল বাহিনী যাতা য়াত বন্ধ হয়ে গেছে।

আইনশৃংখোলা রক্ষাকারী পুলিশ বাহিনী সহযেই যেতে না পারায় দুর্বৃত্তরা এ অঞ্চলকে নিরাপদ আশ্রয় স্থল হিসেবে বেছে নিয়েছে।

এব্যাপারে রায়গঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ ইকবাল আখতার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন ইতি পূর্বেও এ রাস্তা দুটি নিয়ে বেশ কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছিল।

আমি তখন এ বিষয়ে উপজেলা প্রকৌশলিকে তাৎক্ষনিক প্রকল্প প্রণয়নের জন্য নির্দেশ দিয়েছি। ব্রহ্মগাছা ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম সরোয়ার লিটন রাস্তা দুটি পূর্ণ নির্মানের জন্য উপজেলা প্রকৌশলী বরাবর প্রকল্প দাখিল করেছেন বলে যানান।

সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মাহমুদ নাজীর জানান রাস্তা দুটির ব্যাপারে আমি উপজেলার সম্মনয় কমিটির সভায় বারবার উপস্থাপন করাসত্বেও কর্তৃপক্ষ নজর দেয়নি।

 

এইবেলাডটকম/চন্দন/গোপাল