eibela24.com
শনিবার, ১৫, ডিসেম্বর, ২০১৮
 

 
২০১৯ বিশ্বকাপেও থাকবেন ধোনি
আপডেট: ১২:২৪ pm ০৩-০৯-২০১৭
 
 


আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি শেষ হওয়ার পরপরই ভারতের প্রধান নির্বাচক এমএসকে প্রাসাদ জানিয়েছিলেন, ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপে খেলতে হলে পারফরম্যান্স করেই জায়গা পেতে হবে মাহেন্দ্র সিং ধোনিকে।’ অটোমেটিক চয়েজে আর থাকছেন না ভারতের বিশ্বকাপজয়ী এ অধিনায়ক।

নির্বাচকের এমন মন্তব্যকে কর্ণপাত করেননি অনেকেই। ধোনির উপর টিম ম্যানেজম্যান্ট পূর্ণ আস্থা রেখে আসছে শুরু থেকেই। ভারতের নতুন কোচ রবি শাস্ত্রী পাশে দাঁড়িয়েছেন ভারতের সবথেকে সফল অধিনায়কের।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ৪-০ ব্যবধানে এগিয়ে ভারত। সিরিজ জয়ের পর রবি শাস্ত্রী ধোনিকে নিয়ে বলেন,‘দলের প্রতিএমএস ধোনির নিবেদন বলে শেষ করা যাবে না। ড্রেসিং রুমের ও জীবন্ত কিংবদন্তি।  আমাদের ক্রিকেটের গর্ব । কোনোভাবেই ধোনি শেষ হয়ে যায়নি কিংবা ধোনি অর্ধেকও ফুরিয়ে যায়নি। কেউ যদি এরকমটা মনে করে থাকে তাহলে সে হয়ত জানে না পরবর্তীতে কি আসছে।  ‘বুড়ো’ ধোনির এখনও অনেক কিছু দেয়ার বাকি।’

ভারতকে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ, ওয়ানডে বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়নস ট্রফির শিরোপা জিতিয়েছেন মাহেন্দ্র সিং ধোনি। অধিনায়ক ধোনির নামের পাশে যুক্ত আছে আরও অনেক সাফল্য।  শ্রীলঙ্কার বিপক্ষেও ধোনি সাফল্য বলেন ঈর্ষনীয়। তিন ওয়ানডেতে তার রান ৪৫, ৬৭ এবং ৪৯। তিনটিতেই ধোনি অপরাজিত। দলকে সিরিজ জেতাতে উইকেটের পিছনে এবং সামনে বড় ভূমিকা তার।

‘ধোনি এখনও সীমিত পরিসরে দেশের সেরা উইকেট রক্ষক। তার ব্যাটিং পরিসংখ্যান ভুলে যান! একটা মানুষের কাছ থেকে কি প্রত্যাশা করছেন। ও কয়েক বছর ধরে খেলছে বলেই ওর রিপ্লেসমেন্ট প্রত্যাশা করছেন?  ও এখনও দেশের সেরা ক্রিকেটার।  একটা কথা বলুন তো, আপনি কি সুনীল গাভাস্কার কিংবা শচীন টেন্ডুলকারকে ৩৬ বছর বয়সে রিপ্লেস করে দিতে পারবেন।  ধোনি এখনও তার সেরাটা দিয়ে যাচ্ছে। যারা বাড়তি চিন্তা করছে তারা বিনোদনের জন্য অপেক্ষা করুন।’- বলেছেন রবি শাস্ত্রী।

২০১৪ সালে টেস্ট থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন ধোনি। এরপর ওয়ানডে ক্রিকেটের অধিনায়কের পদ ছাড়েন ২০১৭ সালে। বিরাট কোহলির নেতৃত্বে খেলে যাচ্ছেন ক্রিকেট ইতিহাসের সবচেয়ে সফল ওয়ানডে অধিনায়ক। ২০১৯ সালে ধোনির বয়স হবে ৩৮। ওই সময়ে ধোনি কতটুকু ফিট থাকবেন কিংবা কতটুকু পারফর্ম করতে পারবেন?

শাস্ত্রীর ব্যাখ্যা,‘অবশ্যই পারফরম্যান্স গুরুত্বপূর্ণ। কিন্তু দলের নিউক্লিয়াস থাকাও গুরুত্বপূর্ণ। ভারতের ফিল্ডিং যথেষ্ট উন্নত। ফিল্ডাররা সেরাদের কাতারেই রয়েছে।’

আরডি/